ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

ফরিদপুরে সেই জায়গায় এক মাসে ১৫ দুর্ঘটনা

হারুন-অর-রশীদ, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩০১ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৬, ২০২৪
ফরিদপুরে সেই জায়গায় এক মাসে ১৫ দুর্ঘটনা

ফরিদপুর: জেলায় যাত্রীবাহী বাস ও পিকআপভ্যানের সংঘর্ষে ১৪ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও চারজন।

আহতরা সবাই ফরিদপুরের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই মহাসড়কের এই স্থানে গত এক মাসে ছোট-বড় অন্তত ১৫টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনাস্থল দিকনগর এলাকার আশপাশের গঙ্গাবর্দী থেকে ফুটপার্ক নামক স্থান পর্যন্ত এক কিলোমিটার এলাকা। মহাসড়কের দু’পাশ নিচু থাকা, সড়ক কিছুটা বাঁকা, কিছু জায়গায় কিছুটা দেবে থাকা এবং দ্রুত গতির কারণে এসব দুর্ঘটনা ঘটছে বলে স্থানীয়দের দাবি।

সরেজমিনে কথা হয় দুর্ঘটনাকবল দিকনগর এলাকার বাসিন্দা লাল মিয়া (৬০) ও মরিয়ম বেগমের (৫০) সঙ্গে। তারা বাংলানিউজকে বলেন, গত একমাসে দিকনগর, তেঁতুলতলা ও গঙ্গাবর্দী এলাকায় ছোট-বড় অন্তত ১৫টি দুর্ঘটনা ঘটেছে। সেগুলো বেশিরভাগই ছিল মোটরসাইকেল ও ছোট-ছোট যানবাহনের। তবে আজকের এ দুর্ঘটনা সবচেয়ে বড়।

তারা আরও বলেন, মাঝেমধ্যেই আমাদের বাড়ির সামনে গিয়ে দেখি মোটরসাইকেল, ট্রাকসহ নানা যানবাহন সড়কের পাশে পড়ে আছে। মানুষজনও পড়ে আছেন সড়কের পাশে। অনেকেই আহত হচ্ছেন, কেউবা মারা যাচ্ছেন। কর্তৃপক্ষের এ ব্যাপারে তেমন নজরদারি নেই।
 
একই এলাকার হাতেম শেখ (৬০) নামের এক বৃদ্ধ বাংলানিউজকে বলেন, দিকনগর এলাকার আজকের যে স্থানে দুর্ঘটনা ঘটেছে, এর একটু সামনেই সড়ক কিছুটা নিচু থাকায় অন্তত ১০টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা ঘটেছে।

গঙ্গাবর্দী এলাকার চঞ্চল নামের এক যুবক বাংলানিউজকে বলেন, মহাসড়কের পাশেই ভাঙ্গা ও নিচু থাকার কারণে এসব দুর্ঘটনা ঘটছে। আমরা সচরাচর এসব দুর্ঘটনা দেখছি।

এ যুবক আরও বলেন, অসংখ্যবার ছোট ছোট সড়ক দুর্ঘটনা ঘটলেও কর্তৃপক্ষের তেমন পদক্ষেপ নিতে দেখিনি। তার ফলস্বরূপ এই বড় ধরনের দুর্ঘটনা দেখতে হলো।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপদ বিভাগের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (গোপালগঞ্জ অঞ্চল) মো. সাদিকুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, ওই মহাসড়কের কোথাও কোনো সমস্যা আছে কি-না সেটা না দেখে বলা কঠিন। তবে, বিষয়টি খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া সড়কে কোনো ত্রুটি থাকলে সেটাও অতিশ্রীঘ্রই সমাধান করা হবে।

হাইওয়ে পুলিশের মাদারীপুর রিজিওনের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ শাহিনুর আলম খান (অতিরিক্ত ডিআইজি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত) বাংলানিউজকে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনার প্রধান কারণ অতিমাত্রায় গতি। পুলিশ সবসময় দুর্ঘটনা এড়াতে কাজ করে চলছে। আজকের সড়ক দুর্ঘটনার পরপরই আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ২৩০০ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৬, ২০২৪
এসআইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।