bangla news

কাতারে বাংলাদেশি ইমাম-মুয়াজ্জিন নিয়োগ, পরীক্ষা ২৯ নভেম্বর

ইসলাম ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১১-২০ ১২:৫৮:০২ পিএম
কাতারে বাংলাদেশি ইমাম মুয়াজ্জিন নিয়োগ।

কাতারে বাংলাদেশি ইমাম মুয়াজ্জিন নিয়োগ।

মাথাপিছু আয়ে কাতার বিশ্বের সবচেয়ে ধনী দেশ। কাতার বাংলাদেশের দ্বিতীয় শীর্ষ শ্রমবাজার। সরকারি হিসাব মতে, বর্তমানে বাংলাদেশ থেকে মোট জনশক্তি রপ্তানির ২২ শতাংশের গন্তব্যস্থল কাতার। প্রতি মাসে কাতার থেকে বাংলাদেশে প্রবাসী আয়ে (রেমিট্যান্স) যোগ হচ্ছে ২৫০ কোটি টাকা। 

কাতারের নির্মাণ খাতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের চাহিদার পাশাপাশি বাংলাদেশি ইমাম, মুয়াজ্জিন ও খতিবের রয়েছে বিপুল চাহিদা। প্রায় দুই দশক ধরে রাজধানী দোহাসহ কাতারের বিভিন্ন শহরের মসজিদে সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন বাংলাদেশিরা। বলা চলে, কাতারের মুয়াজ্জিন ও ইমামদের অধিকাংশই বাংলাদেশি।

.

১৯৯০ সালে সর্বপ্রথম সরকারিভাবে ইমাম-মুয়াজ্জিন নেওয়া শুরু করে কাতার। ২০১৭ সালে নিয়োগের পর এবছর আবার কাতারে বাংলাদেশি ইমাম-মুয়াজ্জিন নেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এবার শতাধিক ইমাম-মুয়াজ্জিন নেবে কাতার। কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বাংলাদেশে প্রাথমিক বাছাই কমিটির সদস্য মাওলানা ফখরুল হুদা ইমাম-মুয়াজ্জিন নিয়োগ পরীক্ষার নতুন তারিখ ঘোষণার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিয়োগ আবেদন ও পরীক্ষার সময়
শুক্রবার (২২ নভেম্বর) থেকে রোববার (২৪ নভেম্বর) নিয়োগ পরীক্ষার জন্য আবেদনপত্র গ্রহণ ও সিরিয়াল নম্বর দেওয়া হবে। এর পরের শুক্রবার (২৯ নভেম্বর) থেকে পরের মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) পর্যন্ত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

.

সকাল সাতটা থেকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কবরস্থান মসজিদে প্রাথমিক ইন্টারভিউ শুরু হবে। প্রাথমিক বাছাই চলবে ৯ দিন। দুই সদস্যের এই টিম প্রাথমিক বাছাই সম্পন্ন করবেন। এরপর কাতারের ওয়াকফ ও ইসলামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিশেষ টিম ঢাকায় এসে চূড়ান্ত পরীক্ষা নিয়ে বাছাই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবেন।

আবেদন প্রক্রিয়া ও অন্যান্য
কাতার ওয়াকফ ও ইসলাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তিতে ইমাম-মুয়াজ্জিন নিয়োগ ইন্টারভিউতে অংশগ্রহণে আগ্রহী প্রার্থীদের জন্য বেশ কিছু শর্ত বেঁধে দেওয়া হয়েছে। ওই সব শর্ত ও প্রক্রিয়া-

এক. মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় মসজিদে (সলিমুল্লাহ রোড, কবরস্থান) আগামী ২২ নভেম্বর থেকে থেকে ২৪ নভেম্বর পর্যন্ত আবেদন করার করার সুযোগ থাকবে। ২৯ নভেম্বর থেকে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত ইন্টারভিউ নেওয়া হবে।

.

দুই. আগ্রহী প্রার্থীকে অবশ্যই স্বীকৃত আলেম অথবা ইসলামি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে পাওয়া প্রশংসাপত্র জমা দিতে হবে। সর্বনিম্ন ২০ থেকে সর্বোচ্চ ৪৫ বছর বয়সী হতে হবে। অবশ্যই কোরআনের হাফেজ হতে হবে এবং তাজবিদসহ কোরআন তেলাওয়াতে সক্ষম হতে হবে। পাশাপাশি সুন্দর কণ্ঠ ও ভালো তেলাওয়াতের দক্ষতা থাকতে হবে। যাদের বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের ডিগ্রি রয়েছে, তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

তিন. আবেদনকারীকে অবশ্যই পাসপোর্ট অথবা জন্মসনদের সঙ্গে দুই কপি পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি (মাথায় রুমালসহ) জমা দিতে হবে। পাশাপাশি উত্তীর্ণ প্রার্থীকে তার শিক্ষাগত যোগ্যতার সব সনদ যথাযথ কর্তৃপক্ষ থেকে সত্যায়ন করে জমা দিতে হবে। প্রথমে সবার মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। মৌখিক পরীক্ষা ও সাক্ষাতকারে উত্তীর্ণ হওয়ার পর প্রার্থীকে জীবনবৃত্তান্ত কাগজ ও স্বাস্থ্যসনদ জমা দিতে হবে। জাতীয় বা আন্তর্জাতিক কোনো হেফজ প্রতিযোগিতার ফলাফলের সার্টিফিকেট (জরুরি নয়) আনতে হবে।

আবেদনকারীর প্রস্তুতি ও অন্যান্য
এক. পরীক্ষার বিষয়বস্তু কোরআন তেলাওয়াত (হিফজ) হদর ও আজান-ইকামত। আজান-ইকামতের ক্ষেত্রে মক্কা-মদিনার আজান অনুসরণ করা যেতে পারে।

.

দুই. তাজবিদসহকারে কোরআনে কারিমের উচ্চারণ সুন্দর থেকে সুন্দরতর করার চেষ্টা অব্যাহত রাখা। কোরআন সহিহ-শুদ্ধভাবে তেলাওয়াত করা।

তিন. লাহান ঠিক রেখে পুরো কোরআন ইয়াদ রাখা। মনে রাখতে হবে, যে কোনো জায়গা থেকে কোরআন তেলাওয়াত করা লাগতে পারে।

চার. সুউচ্চ আওয়াজে কোরআন তেলাওয়াত করা। গলা ছেড়ে আওয়াজ উঁচু করে তেলাওয়াত করা। কারও যদি ‘ইয়াদ-তাজবিদ-লাহান’ ভালো হয়, কিন্তু সে মিনমিন করে আস্তে আস্তে কোরআন তেলাওয়াত করে তা হলে চলবে না। তাই এ বিষয়ে সতর্ক থাকা চাই।

পাঁচ. উত্তীর্ণরা প্রাথমিকভাবে এক বছরের ভিসা পাবেন, পরে চুক্তি বাড়ানো হবে। নিয়োগ পাওয়ার ৫ বছর পর পরিবার নিয়ে যাওয়ার সুযোগ পাবেন।

.

বর্তমানে কাতারে কয়েক শ’ মসজিদে বাংলাদেশি ইমাম-মুয়াজ্জিনরা বেশ সুনাম ও সাফল্যের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন। বর্তমানে কাতারে দুই হাজারের বেশি মসজিদ রয়েছে। প্রতিটি মসজিদে একজন ইমাম, একজন মুয়াজ্জিন এবং একজন খতিব রয়েছেন। এর মধ্যে ১ হাজার ৩শ’ বাংলাদেশি ইমাম ও মুয়াজ্জিন কর্মরত। কাতারিদের কাছে মুসলিম রাষ্ট্রের নাগরিক হিসেবে বাংলাদেশি ইমাম-মুয়াজ্জিন বেশ সম্মানিত।

কাতারে কর্মরত ইমামগণ ৪ হাজার ৮শ’ রিয়াল, মুয়াজ্জিনরা ৩ হাজার ৮শ’ রিয়াল বেতনের সরকারিভাবে ফ্রি বাসা, বিনামূল্যে পানি ও বিদ্যুৎ সুবিধা পেয়ে থাকেন। এছাড়া সন্তানদের ফ্রি পড়ালেখার পাশাপাশি আরও অন্যান্য সুযোগ ভোগ করেন তারা। এই ধরনের সুযোগ-সুবিধা অন্য কোনো দেশে বিরল।

ইসলাম বিভাগে আপনিও লিখতে পারেন। বিষয়ভিত্তিক লেখা ও জীবনঘনিষ্ঠ প্রশ্ন পাঠাতে মেইল করুন: bn24.islam@gmail.com

বাংলাদেশ সময়: ১২৫৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ২০, ২০১৯
এমএমইউ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ইসলাম
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-11-20 12:58:02