ঢাকা, সোমবার, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৬ মে ২০২২, ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩

ফিচার

পর্ব ১৬

মুর্শিদকুলি খাঁর জগৎজয়ী কামান

এরশাদুল আলম প্রিন্স, ল’ এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩১৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৩, ২০১৭
মুর্শিদকুলি খাঁর জগৎজয়ী কামান মুর্শিদকুলি খাঁর জগৎজয়ী কামান

মুর্শিদাবাদ ঘুরে: কাটরা মসজিদের কাছে দক্ষিণ-পূর্বদিকে ছিল মুর্শিদকুলি খাঁর আমলে নির্মিত তোপখানা বা অস্ত্রাগার। মুর্শিদকুলি খাঁর পরবর্তী নবাবের আমলেও এখানে অস্ত্রাগার ছিল। সেই অস্ত্রাগারের কোনো নিশানা আজ আর নেই। শুধু লোকমুখেই জানা যায় সেই কথা। তবে ইতিহাস বুঝি পৃথিবীর বুকে তার আপন জায়গাটি ঠিকই করে নেয়। তাই আজো সেই জায়গায় ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে আছে একটি কামান। নাম তার ‘জাহান কোষা’ কামান।

শোনা যায়, মুর্শিদকুলি খাঁ ঢাকা থেকে রাজধানী মুর্শিদাবাদে স্থানান্তর করার সময় এই কামানটি এখানে নিয়ে আসেন। তাই ইতিহাসের সাক্ষী এই কামান।

রাজধানী স্থানান্তরের ইতিহাস বহন করছে এই কামান। মুর্শিদাবাদের বুকে ঢাকার স্মৃতি বহন করে দাঁড়িয়ে আছে ৪শ’ বছর।  জাহান কোষা কামান এ কামানটি তৈরিও করেন ঢাকারই এক বিখ্যাত কর্মকার জনার্দন কর্মকার। কামানটির দৈর্ঘ ৫.৫০ মিটার, প্রস্থ ১.৭০ মিটার ও ওজন আনুমানিক ৭৯০০ কেজি।

কামানের গায়ের লেখা থেকে জানা যায়, ১৬৩৭ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবর মাসে এটি তৈরি করা হয়। দিল্লির মসনদে তখন সম্রাট শাহজাহান। ঢাকার সুবেদার তখন ইসলাম খাঁ। ঢাকার দারোগা শের মহম্মদ ও হরবল্লভ দাসের তত্ত্বাবধানে মিস্ত্রি জনার্দন কর্মকার এ কামানটি নির্মাণ করেন।

এই কামানটি দাগার জন্য ১৭ কেজি বারুদ ব্যবহৃত হতো।

জাহান কোষা কামান

এ কামানটি নিয়ে একটি গল্প আছে, কামানটি কোনো কারণে ক্রুদ্ধ হয়ে নদীপথে চলে যাওয়ার সময় একটি অশ্বত্থ গাছ এটিকে জড়িয়ে ধরেছিল। বহুকালই নাকি কামানটি সে অবস্থায়ই ছিল। তারপর সরকার কামানটিকে ওই অশ্বত্থগাছ থেকে আলিঙ্গনমুক্ত করে এই উঁচু বেদিটির ওপর স্থাপন করে।

বর্তমানে কামানটি যে গ্রামে আছে তার নামও তোপগ্রাম। যদিও নাম গ্রাম, তবে আসলে এটি গ্রাম নয়। মুর্শিদাবাদ শহরের পাশেই এটি। কাটরা মসজিদে যাওয়ার পথেই এই গ্রামের অব্স্থান। কামানটি নবাবী আমলে লোহার একটি চাকার ওপর স্থাপিত ছিল, যা বর্তমানে আর নাই। জাহান কোষা কামানদীর্ঘদিন এটি মাটির নিচেই পড়ে ছিল। কালক্রমে একটি গাছের কাণ্ডে আটকা পড়ে এটি জেগে উঠেছিল। তারপর সরকার ও জনগণ মিলে এটিকে উঁচু বেদির (বর্তমান) ওপর স্থাপন করেছে। কামানটি তৈরিতে অষ্টধাতু ব্যবহার করা হয়েছে। এর মধ্যে আছে সোনা, রূপা, দস্তা, তামা, জিঙ্ক, টিন, লোহা ও পারদ।


বাংলাদেশ সময়: ১৯০৬ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৩, ২০১৭
এইচএ/

আরও পড়ুন
** ১ম পর্ব: এক যে ছিলো মুর্শিদাবাদ

** ২য় পর্ব: কলকাতা থেকে মুর্শিদাবাদ
** ৩য় পর্ব: মানুষ যে হায় ভুলে গেছে চির মধুর ভালোবাসা
** ৪র্থ পর্ব: চার ভাইয়ের বাগান বিলাস ও একটি গুপ্তপথ
** ৫ম পর্ব: জগৎশেঠকে সপরিবারে হত্যা করা হয় যে প্রাসাদে
** ৬ষ্ঠ পর্ব: নুরলদীনের ‘জাগো বাহে’ শোনা যায় নসীপুর প্রাসাদে
** ৭ম পর্ব: কিরীটেশ্বরী মন্দির ও জগদ্বন্ধু সুন্দরের আশ্রম
** ৮ম পর্ব: মুর্শিদকুলি খাঁর কলিজাখেকো মেয়ের সমাধি!
** ৯ম পর্ব: হেস্টিংসের স্ত্রী, মেয়ের সমাধি ও একটি আর্মেনিয়ান চার্চ
** ১০ম পর্ব: মুজিবনগর ও পলাশী: বাংলার ইতিহাসের দুই আম্রকানন 

** ১১তম পর্ব: ৩শ বছরের ডাচ সিমেট্রি ও যোগেন্দ্র নারায়ণের মন্দির
** ১২তম পর্ব: সতীদাহ ঘাটের পাতালেশ্বর মন্দির

** ১৩তম পর্ব : আশি টাকার গাড়ি ও সোনার রথ
** ১৪তম পর্ব : ষড়যন্ত্রের গ্রিনরুম ছিল কাসিম বাজার

** ১৫তম পর্ব: কাসিম বাজার ছোট রাজবাড়ির বড় আয়োজন

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa