ঢাকা, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২২ মে ২০২৪, ১৩ জিলকদ ১৪৪৫

শিক্ষা

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ বাক্যের বিজ্ঞপ্তিতে ১৫ ভুল

ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০০১ ঘণ্টা, এপ্রিল ৪, ২০২৪
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৭ বাক্যের বিজ্ঞপ্তিতে ১৫ ভুল

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এস্টেট অফিসের এক বিজ্ঞপ্তিতে বানান ভুল, সমাসবদ্ধ শব্দের ভুল ব্যবহার, ণ-ত্ব বিধানের ভুল প্রয়োগ, আঞ্চলিক শব্দের ব্যবহার, বাহুল্যদোষ, সাধু-চলিত মিশ্রণ, অব্যয়ের সঠিক ব্যবহার না করাসহ ১৫টি ভুল ধরা পড়েছে।

৭ বাক্যের এই বিজ্ঞপ্তিতে একটি ছাড়া প্রতিটি বাক্যে একাধিক ভুল রয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৪ এপ্রিল) ভারপ্রাপ্ত এস্টেট ম্যানেজার ফাতেমা বিনতে মুস্তাফা স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিটি প্রকাশিত হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ক্যাম্পাসে অবস্থিত সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে’। এখানে ‘ক্যাম্পাসে অবস্থানরত সবার...’ হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে ‘থাকাকালিন সময়’, ‘বৈদ্যুতিক বিভ্রাট’, ‘লক্ষে’, ‘সকল অফিস কক্ষ ও শিক্ষকদের কক্ষ’, ‘সকল বহিরাগতদের’, ‘উপরোল্লিখিত’ লেখা হয়েছে।

আধুনিক বাংলা বানানের নিয়ম অনুযায়ী এগুলোর শুদ্ধরূপ হবে যথাক্রমে ‘থাকাকালীন’ অথবা ‘থাকার সময়ে’, ‘বিদ্যুৎ বিভ্রাট’, ‘লক্ষ্যে’, ‘সব অফিস কক্ষ ও শিক্ষকের কক্ষ’, ‘সব বহিরাগত’ অথবা ‘বহিরাগতদের’, ‘উল্লিখিত বা উপর্যুক্ত’।

এতে দুইবার ‘কোন’ শব্দ লেখা হয়েছে, এটির শুদ্ধ হবে ‘কোনো’। এ ছাড়া লেখা হয়েছে ‘নেয়া’, এটির শুদ্ধ হবে ‘নেওয়া’ (‘নেয়া’ শব্দটি আঞ্চলিক। এমন আরও আঞ্চলিক শব্দ হলো খায়া-খাওয়া, যায়া-যাওয়া ইত্যাদি)।

বিজ্ঞপ্তিতে ণত্ব-বিধানগত তিনটি বানান ভুল হয়েছে। এতে ব্যবহৃত হয়েছে, ‘অগ্নিকান্ড’, ‘কর্মকান্ড’ এবং ‘তাৎক্ষনিকভাবে’—এগুলোর শুদ্ধ হবে যথাক্রমে ‘অগ্নিকাণ্ড’, ‘কর্মকাণ্ড’ এবং ‘তাৎক্ষণিকভাবে’।

এ ছাড়া বিজ্ঞপ্তিতে অব্যয়ের সঠিক ব্যবহার করা হয়নি। এতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল অফিস, হল, বিভাগ, ইনস্টিটিউট ঈদুল ফিতর উপলক্ষে...’ এবং ‘বৈদ্যুতিক ফ্যান, লাইট, কম্পিউটার ইত্যাদির সুইচসমূহ...’ ইত্যাদি।

এখানে শুদ্ধরূপ হবে, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অফিস, হল, বিভাগ এবং ইনস্টিটিউট ঈদুল ফিতর উপলক্ষে...’, ‘বৈদ্যুতিক ফ্যান, লাইট ও কম্পিউটার ইত্যাদির সুইচ...’।

এ বিষয়ে জানতে ভারপ্রাপ্ত এস্টেট ম্যানেজার ফাতেমা বিনতে মুস্তাফাকে কল করা হলে তিনি রিসিভ করেননি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ বাংলানিউজকে বলেন, ‘এস্টেট ম্যানেজারকে ডেকে জিজ্ঞেস করব। বানানের বিষয়ে আমাদের সতর্ক থাকা উচিত। ’

বাংলাদেশ সময়: ২০০১ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৪, ২০২৪
এমজেএফ/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।