ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৯ বৈশাখ ১৪২৮, ১৩ মে ২০২১, ০০ শাওয়াল ১৪৪২

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

চট্টগ্রামে কঙ্কাল জাদুঘর

হাঁ করে আছে সাপ, মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে জিরাফ

সোহেল সরওয়ার, সিনিয়র ফটো করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩২৩ ঘণ্টা, মার্চ ৫, ২০২১
হাঁ করে আছে সাপ, মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে জিরাফ ছবি: বাংলানিউজ

চট্টগ্রাম: এ যেন কঙ্কালপুরি, চারিদিকে বিভিন্ন প্রাণির অস্থি। কোথাও হাঁ করে আছে সাপ, কোথাও কুমির।

মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে জিরাফ ও উট। চোখের পলক ফেলতেই দেখা মেলে হাতির।

দেশের প্রথম কঙ্কাল জাদুঘর (অ্যানাটমি মিউজিয়াম) গড়ে তোলা হয়েছে চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ে (সিভাসু)। ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে শুরু হয় যাত্রা। এখানকার ইউসুফ চৌধুরী ভবনের নিচতলায় ৩ হাজার বর্গফুট জায়গাজুড়ে এই জাদুঘরের অবস্থান।

জানা গেছে, বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের উচ্চশিক্ষা ও মানোন্নয়ন প্রকল্পের  আওতায় জাদুঘরটি স্থাপন করা হয়েছে। সিভাসুর অ্যানাটমি ও হিস্টোলজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মোহাম্মদ লুৎফুর রহমানের ব্যবস্থাপনায় বিভাগের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এখানে বিভিন্ন প্রাণির কঙ্কাল সাজিয়েছেন সুনিপুণভাবে।

 

কঙ্কাল জাদুঘরে বিভিন্ন প্রাণির প্রায় ৬০টি কঙ্কাল, ৩০টি স্ট্যাফ (প্রাণির অস্থি থেকে চামড়া আলাদা করে নতুন অবয়ব সৃষ্টির পর পুনরায় চামড়া দিয়ে মোড়ানো), রাসায়নিক পদ্ধতিতে সংরক্ষিত বিভিন্ন প্রাণির প্রায় ৫০০ অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ও দুই হাজার অস্থি, ৭৫টি বিভিন্ন প্রাণির মডেল ও ৩ হাজার স্লাইড রয়েছে।

স্টাফিং করা প্রাণির মধ্যে আছে- মোরগ, মুরগি, রাজহংসী, কবুতর, কাঠঠোকরা, দোয়েল, পেঁচা, মাছরাঙা, কোয়েল, খরগোশ, গিনিপিগ, কচ্ছপ, অজগর, কোবরা, বাদুড়, হাঁস।
 
কঙ্কাল জাদুঘরে আরও আছে মানবদেহ, মানুষের চোখ, হৃদপিণ্ড, জরায়ু, ফুসফুস, কিডনি, স্তন, কুকুর, বিড়াল, শুকর, গাভি ও মুরগির ডিএনএ, ক্রোমোজোম, ছাগল-শুকর ও খরগোশের ভ্রূণ। ফরমালিন দিয়ে এসব অঙ্গ সংরক্ষণ করা হয়েছে।

সিভাসু উপাচার্য ড. গৌতম বুদ্ধ দাশের সহযোগিতায় এই জাদুঘরের প্রবেশপথে বসানো হয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় চিড়িয়াখানা থেকে সংগ্রহ করা জিরাফের কঙ্কাল। ২০১৯ সালে মারা যাওয়া জিরাফটির অস্থি ছয় মাস পর কবর থেকে তুলে বিশেষ ব্যবস্থায় চট্টগ্রামে এনে বিভিন্ন রাসায়নিক মিশিয়ে অ্যানাটমি বিভাগে সংরক্ষণ করা হয়।  

জানা যায়, প্রতিটি অস্থি প্রায় দেড় বছর ধরে জোড়া দিয়ে জিরাফের অবয়ব ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। কঙ্কাল আনা থেকে সংরক্ষণ ও জোড়া লাগাতে খরচ হয়েছে আড়াই লাখ টাকা। অস্ট্রেলিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া পৃথিবীর আর কোনও দেশে জিরাফের কঙ্কাল নেই। ৩য় কঙ্কালটি স্থাপিত হলো সিভাসুতে।

এছাড়া হাতির কঙ্কাল সংগ্রহ করা হয়েছে কক্সবাজারের চকরিয়ায় অবস্থিত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সাফারি পার্ক থেকে। সুউচ্চ উটের কঙ্কাল এসেছে ঢাকার চিড়িয়াখানা থেকে। বিশাল অজগর সাপটি মৃত অবস্থায় সংগ্রহ করা হয়েছে সীতাকুণ্ড ইকোপার্ক থেকে। বড় কুমিরের কঙ্কাল আনা হয়েছে ময়মনসিংহের ভালুকায় অবস্থিত কুমির প্রজনন কেন্দ্র থেকে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রাণির দেহ স্টাফিং করার ধারণা এসেছে প্রাচীন মিশরের মমি থেকে। যদিও মমি ও স্টাফিং এক বিষয় নয়। মধ্যযুগে জ্যোতিষী, ওষুধ ও চিকিৎসা সামগ্রী প্রস্তুতকারক এবং বিক্রেতারা বিভিন্ন মৃত প্রাণির স্টাফিং করে রাখতো।  

১৭৪৮ সালে ফ্রান্সের রওমার অঞ্চলে প্রাকৃতিক ইতিহাসের অ্যানসাইক্লোপিডিয়ার স্টাফিং পদ্ধতিতে পাখি সংরক্ষণের কথা জানা যায়। ফ্রান্স, জার্মানি, ডেনমার্ক ও ইংল্যাণ্ডে তখন এই পদ্ধতিতে পশু-পাখি ও জলজ প্রাণি এবং উদ্ভিদ সংরক্ষণ করা হতো। ১৮৩৭ সালে ভিক্টোরিয়া যুগ শুরু হলে স্টাফিং জনপ্রিয় শিল্পে রূপ নেয়। তখন পশু-পাখির স্টাফিং দিয়ে ঘর সাজানো হতো। ১৮৫১ সালে লন্ডনের হাইড পার্কের প্রদর্শনীতে বেশ কয়েক প্রকার পাখির স্টাফিংও ছিল।

সিভাসুতে মৃত প্রাণির চামড়া ছাড়িয়ে ট্যানারির মতো বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থ দিয়ে পরিষ্কার করে তুলা, রড ও জিআই তার দিয়ে অবয়ব (স্টাফিং) বহাল রাখা হয়েছে। দেওয়ালে শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন প্রাণির অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ ও তন্ত্রের চিত্র এবং জীববিজ্ঞান ও প্রাণিবিদ্যায় অবদান রাখা বিজ্ঞানীদের পোট্রেট। কঙ্কাল জাদুঘরটি আরও সমৃদ্ধ করতে অ্যানাটমি বিভাগ সংশ্লিষ্টরা কাজ করছেন।

কঙ্কাল জাদুঘর প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য সম্পর্কে তত্ত্বাবধায়ক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ লুৎফুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, এখানে বিভিন্ন গৃহপালিত এবং বন্য প্রাণির অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংরক্ষণ করে রাখার ফলে শিক্ষার্থীরা ব্যবহারিক ক্লাসে হাতে-কলমে শিখতে পারছে। প্রাণিদেহের অঙ্গ ও তন্ত্রের অবস্থান, গঠন, বৈশিষ্ট্য এবং কাজ সম্পর্কে শিক্ষাদান করাই আমাদের মূল উদ্দেশ্য।

চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি ও অ্যানিম্যাল সাইন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিভাসু) উপাচার্য অধ্যাপক ড. গৌতম বুদ্ধ দাশ বাংলানিউজকে বলেন, সিভাসুতে কঙ্কাল জাদুঘর প্রতিষ্ঠার পর ধীরে ধীরে এখানে সংগ্রহ করা হয়েছে অনেক প্রাণির কঙ্কাল। সর্বশেষ জিরাফের কঙ্কাল স্থাপনের মাধ্যমে এই জাদুঘর সমৃদ্ধ হয়েছে। দেশের শিক্ষার্থীদের ভেটেরিনারি শিক্ষার প্রতি আগ্রহ তৈরির পাশাপাশি এই পেশার সম্প্রসারণ ও উন্নয়নে কঙ্কাল জাদুঘর বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৩১৩ ঘণ্টা, মার্চ ০৫, ২০২১
এসএস/এসি/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa