ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

ক্রিকেট

রংপুরের হয়ে একাই লড়ছেন নাসির

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২২৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৮, ২০১৬
রংপুরের হয়ে একাই লড়ছেন নাসির সেঞ্চুরির পর নাসির-ছবি:সংগৃহীত

প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে পঞ্চম শতকের দেখা পেয়েছেন রংপুর বিভাগের ক্রিকেটার নাসির হোসেন। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে জাতীয় লিগের ম্যাচে সিলেট বিভাগের বিপক্ষে দ্বিতীয় দিন শেষে ১০৫ রানে অপরাজিত আছেন এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

ঢাকা: প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে পঞ্চম শতকের দেখা পেয়েছেন রংপুর বিভাগের ক্রিকেটার নাসির হোসেন। চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে জাতীয় লিগের ম্যাচে সিলেট বিভাগের বিপক্ষে দ্বিতীয় দিন শেষে ১০৫ রানে অপরাজিত আছেন এ ডানহাতি ব্যাটসম্যান।

 

সেঞ্চুরির পথে ১৪টি চার ও একটি ছক্কা হাঁকান নাসির। নাসিরের ব্যাটে রাজশাহীর করা প্রথম ইনিংসে ২৭২ রানের জবাবে দিন শেষে ৫ উইকেটে ১৭৫ রান তুলেছে রংপুর। আরিফুল হক অপরাজিত আছেন ১৫ রানে।

খালেদ আহমেদ একাই নিয়েছেন চার উইকেট। অপর উইকেটটি নিয়েছেন আবু জায়েদ রাহি।

১৮ রানে তিন উইকেট হারিয়ে বসলে উইকেটে আসেন নাসির হোসেন। ২৯ রানের মাথায় সাজঘরে ফিরে যান নাসিরের সঙ্গী মাহমুদুল হাসান। ধীমান ঘোষের সঙ্গে জুটি বেধে বিপর্যয় সামাল দেন নাসির। দলের স্কোর শতরান পেরোতেই খালেদ আহমেদের বলে ধীমান সাজঘরে ফেরেন ২৬ রান করে।  

ষষ্ঠ উইকেটে ৬৮ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি লিডের আশা দেখাচ্ছে রংপুরকে। রাজশাহীর চেয়ে ৯৭ রানে পিছিয়ে তারা, হাতে আছে পাঁচ উইকেট।  

আগের দিনের ৬ উইকেটে ২০৩ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের ব্যাটিং শুরু করা সিলেট বিভাগ ২৭২ রানে অলআউট হয়।  ৬৩ রানে অপরাজিত থেকে আজ ব্যাটিংয়ে নামা জাকের আলী ৮৮ রান করে সাজঘরে ফেরেন। রাহাতুল ফেরদৌসের ব্যাট থেকে আসে ৩৬ রান।

সোহরাওয়ার্দী শুভ তিনটি, সাদ্দাম হোসেন দুটি উইকেট নেন। একটি করে উইকেট নিয়েছেন নাসির হোসেন, মাহমুদুল হাসান, সাজেদুল ইসলাম ও আলাউদ্দিন বাবু।

এদিকে দ্বিতীয় স্তরের অপর ম্যাচে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে তাসামুল হকের সেঞ্চুরিতে রাজশাহী বিভাগের বিপক্ষে সবকটি উইকেট হারিয়ে ৩১৫ রান করেছে চট্টগ্রাম বিভাগ। নিজেদের প্রথম ইনিংসে অগের দিনে ৮৯ রানে অপরাজিত থেমে মাঠ ছাড়ার পর দ্বিতীয় দিন সেঞ্চুরির দেখা পান তাসামুল।

জবাবে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে জহুরুল ইসলাম ও জুনায়েদ সিদ্দীকির ব্যাটে ভালোই করছিল রাজশাহী। কিন্তু সেঞ্চুরি থেকে দশ রান দূরে থাকতে আউট হন অধিনায়ক জহুরুল। জুনায়েদ করেন ৬২ রান।  

পরের ব্যাটসম্যানরা অবশ্য সুবিধে করতে না পারায় দিন শেষে আট উইকেট হারিয়ে ২২৩ রানে মাঠ ছাড়ে রাজশাহী। চট্টগ্রামের হয়ে সর্বোচ্চ তিন উইকেট নিয়েছেন কাজী কামরুল ইসলাম। আর দুই উইকেট নিয়েছেন ইফতেখার সাজ্জাদ।

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৫ ঘণ্টা, ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৬
এসকে/এমএমএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।