ঢাকা, বুধবার, ২৫ মাঘ ১৪২৯, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৬ রজব ১৪৪৪

মুক্তমত

শহরের ভেতর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধ করুন

ইমদাদুল হক মিলন | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯৪৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৬, ২০২৩
শহরের ভেতর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধ করুন

এ কথা শত্রুরও স্বীকার করা উচিত যে গত ১৪-১৫ বছরে বাংলাদেশে প্রভূত উন্নয়ন হয়েছে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু বাংলাদেশকে অতি উচ্চতায় নিয়ে গেছে।

কর্ণফুলী টানেল, মেট্রো রেল, দৃশ্যমান হয়ে ওঠা কক্সবাজার রেলস্টেশন, কুড়িল থেকে কাঞ্চন ব্রিজ পর্যন্ত ৩০০ ফুট রাস্তা, মাদানী এভিনিউতে ১০০ ফুট রাস্তা, একটার পর একটা ফ্লাইওভার, দেশের বড় শহরগুলোতে তো বটেই, আনাচকানাচ পর্যন্ত তৈরি হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন রাস্তাঘাট। বাংলাদেশের দিকে তাকালে এখন মনে হয় এ এক নতুন বাংলাদেশ। অর্থনৈতিক উন্নয়ন, প্রবৃদ্ধির হার—এসব ক্ষেত্রেও বাংলাদেশ বিশ্বের রোল মডেল হয়ে উঠেছে। কভিডকালে বিশ্বের বড় দেশগুলো যেখানে ধরাশায়ী হয়ে গিয়েছিল, সেই ভয়াবহ মহামারি অতি চমৎকারভাবে বাংলাদেশ সামাল দিয়েছে। যখন বাংলাদেশে কভিডের টিকাদান শুরু হলো, তখন পর্যন্ত পৃথিবীর অনেক বড় দেশে কভিডের টিকা পৌঁছায়ইনি। বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে অনন্য ইতিহাস তৈরি করেছে। কভিডে দেশে মৃত্যুর হারও ছিল সহনীয় পর্যায়ে। পৃথিবীর বড় দেশগুলো যা পারেনি, বাংলাদেশ তা পেরেছে। এমনকি সেই মহাদুর্যোগের কালে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হারও পড়তে দেয়নি বাংলাদেশ। ব্যবসায় ব্যাপক প্রসার ঘটেছে বাংলাদেশে। ১০০টি ইকোনমিক জোন হয়েছে। মানুষ সচ্ছল হয়েছে আগের তুলনায় শতগুণ বেশি। ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করতে পেরেছেন নির্বিঘ্নে। দেশে কোনো আন্দোলন, জ্বালাওপোড়াও ছিল না। জনজীবন কিছুতেই ব্যাহত হয়নি। সর্বস্তরের মানুষ স্বস্তিকর জীবন যাপন করেছে। এই নতুন বাংলাদেশ নিয়ে আমরা গৌরব করি।

এই স্বস্তিকর বাংলাদেশে কয়েক মাস ধরে অস্বস্তির চূড়ান্ত দেখতে পাচ্ছি আমরা। অকারণ রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড, মিছিল, মিটিং, অবরোধ শুরু করেছে কোনো কোনো রাজনৈতিক দল। তাদের নিবৃত্ত করার জন্য সরকারি দলও পথে নামছে। দেশে শুরু হয়েছে অশান্তি। মানুষ সময়মতো তার কর্মস্থলে পৌঁছতে পারছে না। শিক্ষার্থীরা যেতে পারছে না শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। ব্যবসায়ীরা পড়েছেন চরম ক্ষতির মুখে। যেকোনো মূল্যে এসব কর্মকাণ্ড বন্ধ করতে হবে। যে রাজনীতি মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে, জনজীবন অস্থিরতায় ভরে দেবে, অশান্তিময় পরিস্থিতি বিরাজ করবে সারা দেশে, এই রাজনীতি আমরা চাই না। গণতন্ত্রের নামে সাধারণ মানুষ, ব্যবসায়ী, শিক্ষার্থী কেউ একবিন্দু ক্ষতিগ্রস্ত হোক, এই গণতন্ত্র আমরা চাই না। প্রকৃত রাজনীতির উদ্দেশ্য এটা হতে পারে না। এই অরাজকতা কোনো গণতন্ত্র নয়। গণতন্ত্রের নামে যে তন্ত্র দেশের মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে, সেই তথাকথিত গণতন্ত্র বাঙালি সহ্য করবে না।

কভিড মহামারির পর শুরু হয়েছে এক ভয়াবহ যুদ্ধ। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এই যুদ্ধের প্রভাব পড়েছে সারা পৃথিবীতে। অর্থনৈতিক মন্দায় আক্রান্ত হয়েছে বাংলাদেশসহ অনেক দেশ। ডলারের বাজার লাগামহীন হওয়ার ফলে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ব্যবসায়ীরা। চরম বিপর্যয়কর অবস্থার মধ্যে পড়েছে দেশের শিল্প-বাণিজ্য। কোনো কোনো বড় ব্যবসায়ী ক্ষোভ-অভিমান থেকে শিল্পপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়ার ঘোষণা দিতে চাচ্ছেন। এই অবস্থায় চরম ক্ষতিকারক রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড হতাশায় নিমজ্জিত করছে সমগ্র জাতিকে। এই রাজনীতি আমরা চাই না।

পৃথিবীর সব দেশেই বিরোধীরা আন্দোলন করে। তাদের আন্দোলন মানে দেশকে ক্ষতিগ্রস্ত করা নয়, জ্বালাওপোড়াও নয়, মানুষ হত্যা নয়। যেসব দেশ এই কাণ্ডগুলো করে, তাদের কঠোর হাতে নিবৃত্ত করা হয়, দমন করা হয়। অন্য দেশগুলোতে সমাবেশ করার নির্দিষ্ট জায়গা থাকে শহরের বাইরে। সরকারি দল, বিরোধী দল যারাই সভা সমাবেশ করে, তারা সেই নির্দিষ্ট জায়গাটিতে গিয়ে সভা করে। নগরজীবন ক্ষতিগ্রস্ত করে, সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস তুলে দিয়ে নগর অবরোধ করে সমাবেশ হয় না। এই সরকারের উচিত শহরের বাইরে নির্দিষ্ট একটি জায়গা তৈরি করা। যারা সভা সমাবেশ করতে চায়, তারা সেই জায়গাটি ব্যবহার করবে। নির্দিষ্ট জায়গার বাইরে সভা সমাবেশ করা যাবে না। সরকারি দল ও বিরোধী দল সবাইকে ওই নির্দিষ্ট জায়গাটিতেই করতে হবে। আবারও বলছি, আন্দোলনের নামে শহর অবরোধ করা যাবে না। জনজীবন ক্ষতিগ্রস্ত করা যাবে না। যারা তা করবে, তাদের কঠোর হাতে দমন করা উচিত। এ ক্ষেত্রে সরকার অবশ্যই যতটা কঠোর হওয়ার হবে। আর বিরোধী দল যতটা নমনীয় হওয়ার হবে। দুই পক্ষকেই মনে রাখতে হবে, রাজনীতি গণমানুষের জন্য। কিছুতেই তাদের জীবন দুর্বিষহ করা যাবে না। ব্যবসায়ীদের স্বাধীনভাবে ব্যবসা করার সুযোগ দিতে হবে। ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটানো যাবে না। সাধারণ মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করা যাবে না। দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, তার গতি আরো বৃদ্ধি করার জন্য রাজনৈতিক নেতা, বড় ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সমাজের প্রত্যেক মানুষের, যার যার অবস্থানের প্রতি লক্ষ রেখে দেশটি পরিচালনা করতে হবে। আমরা সেই রাজনীতি চাই। উন্নয়ন কার্যক্রম কিছুতেই ব্যাহত করা যাবে না। শিল্প-বাণিজ্যের প্রসার ঘটানোর জন্য যা যা করণীয় তত্ক্ষণাৎ তা করতে হবে। কোনো ধ্বংসাত্মক কার্যক্রম সহ্য করা হবে না এবং কঠোরভাবে তা নিয়ন্ত্রণ করা হবে। এ ক্ষেত্রে সরকারের যা যা করণীয়, তাই তাই করতে হবে। সোশ্যাল মিডিয়ার নামে নানা ধরনের ক্ষতিকারক বিষয় সমাজের ভেতর ঢুকে যাচ্ছে। সেসব কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। ইউটিউব বা ফেসবুক এ ধরনের মিডিয়াগুলোর অফিস সব দেশেই থাকে। ভারতেও আছে। এই সংস্থাগুলোকে কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করে প্রতিটি বড় দেশ। আমরা চাই বাংলাদেশেও ইউটিউব বা অন্য সোশ্যাল মিডিয়াগুলোর অফিস স্থাপিত হোক এবং সরকার কঠোরভাবে তা নিয়ন্ত্রণ করুক। দেশ নিয়ে কোনো রকমের অপপ্রচার যেন এই মিডিয়াগুলো না করতে পারে। আমরা আশা করি, সরকার অবশ্যই এসব ক্ষেত্রে দৃঢ়তার পরিচয় দেবে এবং বিরোধী দল সহনশীল বা নমনীয় হয়ে জনজীবন বিঘ্নিত না করে একটি নির্দিষ্ট জায়গায় সভা-সমাবেশ করবে। কিছুতেই জানমালের ক্ষতি করবে না। সরকারি দল ও বিরোধী দল দুই পক্ষকেই বলি, আল্লাহর ওয়াস্তে আপনারা শহরের ভেতর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড বন্ধ করুন।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৬, ২০২৩
এমএইচএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa