ঢাকা, সোমবার, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ফুটবল

এমবাপ্পের কর্তৃত্ব কমাতে নেইমারের পক্ষে মেসি!

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৪৯ ঘণ্টা, আগস্ট ১৭, ২০২২
এমবাপ্পের কর্তৃত্ব কমাতে নেইমারের পক্ষে মেসি!

গত কিছুদিন ধরেই ফরাসি শীর্ষ লিগে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় নেইমার-এমবাপ্পে দ্বন্দ্ব। সম্প্রতি এক পেনাল্টি কিক নেওয়া নিয়ে মাঠেই ঝগড়ায় জড়ান দুই পিএসজি তারকা।

এমনকি তাদের সেই ঝগড়া ড্রেসিংরুমে গিয়ে গড়ায় হাতাহাতি পর্যন্ত।  

ধারণা করা হয়, এমবাপ্পে ক্লাবে নিজের ক্ষমতা দেখাতেই অমন আচরণ করেন। ফরাসি ফরোয়ার্ডের এই প্রভাব বিস্তার আবার মেনে নিতে পারছেন না দলের আরেক মহাতারকা লিওনেল মেসি। কারণ নেইমার তার কাছের বন্ধু ও সাবেক বার্সা সতীর্থ। সংবাদমাধ্যম 'এল ন্যাসিওনাল'-এর দাবি, দলে এমবাপ্পের প্রভাব খর্ব করতে নেইমারের সঙ্গে অলিখিত জোট গড়েছেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

এই গ্রীষ্মেই পিএসজি ছাড়ার কথা ছিল কিলিয়ান এমবাপ্পের। কিন্তু বিশাল অঙ্কের চুক্তিতে তাকে আরও তিন বছরের জন্য রেখে দেয় ফরাসি চ্যাম্পিয়নরা। দলের সবচেয়ে বেশি বেতনও এখন তার। বলা হয়, প্যারিসের ক্লাবটির সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করে একচ্ছত্র ক্ষমতার অধিকারী হয়ে উঠেছেন এমবাপ্পে। সেই ক্ষমতার বলেই নাকি তিনি নেইমারকে ক্লাব থেকে তাড়াতে চেয়েছিলেন।  

কিন্তু নতুন কোচ ক্রিস্তফ গালতিয়ের ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ডকে নিয়েই দল সাজান। মাঠে তাকে বাড়তি গুরুত্বও দেওয়া হচ্ছে। বিষয়টা নাকি কিছুতেই মানতে পারছেন না এমবাপ্পে। তার প্রমাণও মিলেছে কিছুদিন আগে। লিগ ওয়ানের এক ম্যাচে এমবাপ্পেকে পাস না দিয়ে মেসিকে দিয়েছিলেন ভিতিনহো। এ নিয়ে মিডফিল্ডারের ওপর ক্ষেপে যান এমবাপ্পে। এমনকি দৌড়ানোও বন্ধ করে দেন। এছাড়া ম্যাচের শুরুতে পেনাল্টি শট নেন তিনি। কিন্তু মিস করেন। ওই পেনাল্টি মিস নিয়ে এক টুইটার থেকে প্রশ্ন তোলা হয়, নেইমার দলে থাকতে পেনাল্টি কেন এমবাপ্পে নিলেন। ব্রাজিলিয়ান তারকা ওই টুইটে লাইক দেন।

দ্বিতীয়ার্ধে লিগ ওয়ান চ্যাম্পিয়নরা আরেকটি পেনাল্টি পায়। এবারও এমবাপ্পে পেনাল্টি নিতে চাইলে তাকে দেননি নেইমার। নিজেই জোর করে পেনাল্টি নেন এবং গোল করেন। স্বভাবতই এমবাপ্পে এই ঘটনায় খুশি হতে পারেননি। ম্যাচে তাকে অনেক সময়ই দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে। বল সামনে না আসলে দৌড়চ্ছিলেন না ফরাসি তারকা।

এরপর ড্রেসিংরুমে এ নিয়ে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে হাতাহাতি লেগে যায় নেইমার-এমবাপ্পের মধ্যে। স্পোর্টস বাইবেলের প্রতিবেদন অনুযায়ী, দুজন চিৎকার করে একে অপরকে গালাগাল করছিলেন এবং মাথায় মাথায় ঠুকোঠুকি লেগে যায়। সতীর্থরা এসে তাদের আলাদা করেন। তবে তখনও ঝগড়া থামেনি। দুজন চিৎকার করতে থাকেন এবং আশেপাশে থাকা কিছু জিনিস ছুড়েও ফেলেন। ড্রেসিংরুমের সেই লড়াই এরপর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়ে।

বিষয়টি নিয়ে জল বেশি ঘোলা হতে দিতে চান না পিএসজির নতুন কোচ ক্রিস্টোফার গালতিয়ের। সেজন্য টিম ডিরেক্টর লুইস কম্পোস ও গালতিয়ের দলের দুই তারকা নেইমার ও এমবাপ্পের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম 'লেকিপে'।  

গুঞ্জন আছে যে, এমবাপ্পের আচরণে এবং একক কর্তৃত্বে খুশি নন মেসিও। নেইমারের সঙ্গে মেসির সম্পর্কও পুরনো। এমনকি নেইমারকে ক্লাব ছাড়তে বাধ্য করার বিপক্ষেও নাকি অবস্থান নেন সাবেক বার্সা তারকা। অন্যদিকে এমবাপ্পে নাকি সমর্থন পাচ্ছেন খোদ ক্লাব প্রেসিডেন্ট নাসের আল-খেলাইফির। কিন্তু সমর্থকরা আবার এমবাপ্পের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেছে। কারণ নেইমার ও মেসির মতো সিনিয়র খেলোয়াড়দের সঙ্গে তার আচরণ মোটেই মেনে নিতে পারছে না তারা।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৭ ঘণ্টা, আগস্ট ১৭, ২০২২
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa