ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬, ২৭ জুন ২০১৯
bangla news

আন্দোলন দমাতে বেতন-ভাতা বন্ধের কৌশল ববি ভিসির!

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৪-১৯ ১০:১৫:১১ এএম
উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনে ববি’র শিক্ষার্থীরা। ফাইল ফটো

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনে ববি’র শিক্ষার্থীরা। ফাইল ফটো

ব‌রিশাল: সোনালী ব্যাংক বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শাখার দু’টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে সব অর্থ দেওয়া স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছেন উপাচার্য ড. এসএম ইমামুল হক। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা উন্নয়ন কাজের অর্থ বরাদ্দ এবং কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষকদের বেতন-ভাতা দেওয়ার প্রক্রিয়া বন্ধ হয়ে গেছে।

বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) বিষয়টি জানার পর থেকেই সংশ্লিষ্ট সবার মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানায়, গত ১০ এপ্রিল উপাচার্যের ছুটির দরখাস্ত সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। সেখানে উপাচার্য ১১ এপ্রিল থেকে ১৫ দিনের ছুটিতে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারারকে উপাচার্যের নিয়মিত দায়িত্ব বুঝে নেওয়ার জন্য বলেছেন। কিন্তু হঠাৎ করেই গত ১৬ এপ্রিল উপাচার্য স্বাক্ষরিত একটি নোটিশে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের দু’টি ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সব লেনদেন স্থগিত করা হয়েছে। যার একটির মাধ্যমে বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয়ের টাকা, আরেকটি থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন দেওয়া হয়ে থাকে। 

উপাচার্য ড. এসএম ইমামুল হক স্বাক্ষরিত ওই নোটিশে সোনালী ব্যাংকের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার দু’টি অ্যাকাউন্ট থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত কোনো ধরনের অর্থ না দেওয়ার জন্য ব্যবস্থাপককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। 

ওই নোটিশে বলা হয়েছে, ‘আপনাকে (ব্যবস্থাপক) জানাচ্ছি যে, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব নম্বর (০৩৩৮১১০০০০০০১) ও (০৩৩৮১১০০০০০০২) থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত যাবতীয় অর্থ প্রদান (ইতোপূর্বে প্রদত্ত সব চেকসমূহ) স্থগিত রাখার নির্দেশ প্রদান করছি’।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা বরুণ কুমার দে জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে, যার মধ্যে এ দু’টি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে বিভিন্ন প্রকল্পের ব্যয় ও স্টাফদের বেতন-ভাতা দেওয়া হয়ে থাকে। যাবতীয় অর্থ দেওয়া বন্ধ মানেই বেতন-ভাতা অঘোষিতভাবে বন্ধ হয়ে গেছে।

এদিকে, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী নেতাদের দাবি, ববি’র শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলন দমাতে শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বেতন-ভাতা বন্ধের এ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর মিয়া বাংলানিউজকে বলেন, উপাচার্যের সিদ্ধান্তটি অমানবিক।  তবে এতে উপাচার্যের পদত্যাগ দাবির আন্দোলন আরো বেগবান হবে।

এ বিষয়ে জানতে ঢাকায় অবস্থানরত বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. এসএম ইমামুল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি।

বাংলাদেশ সময়: ০৯৪০ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৯, ২০১৯
এমএস/একে/এসএইচ
 

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-04-19 10:15:11