ঢাকা, সোমবার, ৫ আশ্বিন ১৪২৮, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ সফর ১৪৪৩

মুক্তমত

শোকের মাস ঘিরে গজিয়ে ওঠে ষড়যন্ত্রের ডালপালা

আগস্ট মাস এলেই মনটা বিষণ্ন হয়ে ওঠে। সপরিবারে বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের কুশীলবদের প্রেতাত্মার বিচরণ থামেনি এখনও। আছে ঘরের শত্রু

আবারও এফএটিএফ-এর গ্রে-লিস্টে পাকিস্তান

ফিনান্সিয়াল অ্যাকশন টাস্ক ফোর্স (এফএটিএফ)-এর জুন ২০২১ সালের অধিবেশনে পাকিস্তানকে তাদের ধূসর তালিকাতেই (গ্রে লিস্ট) রাখার

অভিযানে কেউ বেশ্যা কেউ রাতের বাদশাহ

শোকাবহ আগস্টের বেদনাবিধুর ভাবগাম্ভীর্য আরেকদিকে করোনার বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গোটা জাতি যুদ্ধে অবতীর্ণ।

‘সাম্প্রতীক একটা ঘটনা বলি’

সাম্প্রতীক একটা ঘটনা বলি, ঢাকার একজন মেয়রের মোবাইলে একটা ফোন আসে। অপরিচিত, কাঁপা কাঁপা কণ্ঠস্বর।  মেয়র সাহেব হ্যালো বলে উঠতেই ওই

বঙ্গমাতা: ত্যাগ ও সুন্দরের সাহসী প্রতীক

(২০২০ সালে বঙ্গমাতার বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব-এঁর জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন অনুষ্ঠানে উপস্থাপিত মূল প্রবন্ধ) আগস্ট মাস আমাদের কান্নার

বঙ্গমাতা: বহুমুখী প্রতিভায় অনন্য

বঙ্গবন্ধু, মুক্তিযুদ্ধ ও বাংলাদেশ শব্দ তিনটি একইসূত্রে গাঁথা। বঙ্গবন্ধু  ১৯৪৭ সালে দেশ বিভাগের পর থেকেই স্বাধীনতার লক্ষ্যে

বঙ্গমাতা স্মরণে

বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব-এঁর ৯১তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে আমি এ মহিয়সী নারীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই। বাঙ্গালী জাতির

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা: সর্বংসহা সংগ্রামী নারী

মানব ইতিহাসের বিভিন্ন পর্যায়ে সমাজবদল বা পরিবর্তনের কুশীলব হিসাবে নারীরা তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন। রাজনীতি, যুদ্ধ-বিগ্রহ,

শেখ ফজিলাতুন নেছা, আমার মা

আগস্ট মাস। এই আগস্ট মাসে আমার মায়ের যেমন জন্ম হয়েছে; আবার কামাল, আমার ভাই, আমার থেকে মাত্র দুই বছরের ছোট, ওরও জন্ম এই আগস্ট মাসে। ৫

বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা সমীপে এক অম্লান অভিজ্ঞতা

১৯৬৯ সালে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা বাতিল হয়ে যাওয়ার পর ঘটনাটি ঘটেছিল। বঙ্গবন্ধু মুক্তি পেয়েছিলেন ১৯৬৯ সালের ২২ শে ফেব্রুয়ারি। তারপর

মধুমতির ফিরে আসা

পাকিস্তানের কারাগার থেকে ফিরে আসার দিনটি মুজিবের জীবনের সম্ভারে সুগভীর সঞ্চয়। কত বিচিত্র অভিজ্ঞতায় জীবনের দিন কেটেছে, তার কোনো

বঙ্গমাতাকে যেমন দেখেছি

মহীয়সী নারী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবকে খুব কাছ থেকে দেখার সৌভাগ্য হয়েছে আমার। অনিন্দ্য সুন্দর, সৌম্য, শান্ত, ধীরস্থির একজন

অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র পাতা থেকে নেয়া

এক মহীয়সী নারী বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব, আমাদের বঙ্গমাতা। তিনি শুধু বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণীই ছিলেন না, তিনি ছিলেন তাঁর রাজনৈতিক

মৃত্যুমাঝে ঢাকা আছে যে অন্তহীন প্রাণ

“বিশ্বে যা-কিছু মহান সৃষ্টি, চির-কল্যাণকর, অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।”                             - জাতীয়

বঙ্গবন্ধুর রেণু, আমাদের বঙ্গমাতা

বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় আনন্দমঠ-এর প্রথম সংস্করণের ভূমিকায় লিখেছিলেন, “বাঙ্গালীর স্ত্রী অনেক অবস্থাতেই বাঙ্গালীর প্রধান

নারী সমাজের প্রেরণার উৎস বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা

বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা যেমন বাঙালির অহংকার তেমনি বাংলাদেশের নারী সমাজের প্রেরণার উৎস। আমরা বিশিষ্ট ব্যক্তিদের লেখা ও স্মৃতিচারণ

শুদ্ধতম বাঙালি নারীর প্রতীক

আজ এমন একজন বিদুষী, আলোকিত নারীকে নিয়ে আমি কিছু লিখতে বসেছি- যাঁর কথা মনে হতেই চোখের সামনে ভেসে উঠছে অপরূপ, স্লিগ্ধ, মায়াভরা একটি মুখ

স্বাধীনতার উজ্জ্বল নক্ষত্র: বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব

বাংলা ও বাঙালির প্রিয় স্বাধীনতা অর্জনের পেছনে যে মহীয়সী নারী কখনও পর্দার অন্তরালে, কখনও বাড়ির আঙ্গিনায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও

চোখ ভেসে যায়

আমাদের চোখ ভেসে যায়, অশ্রু এসে আমাদের দুচোখ প্লাবিত করে দেয়, যখন বঙ্গমাতার কথা ভাবি। এই মহীয়সী নারীর অবদানের কথা লিখতে গেলে লেখা আর

জননীর মুখ

কিছু কিছু মুখ আছে দেখলেই মা মা মনে হয়। সেইসব মুখ পুরোটাই মমতায় মোড়া। নরম মিষ্টি হাসি ছড়িয়ে যখন মায়াময় বাক্য নিঃসৃত হয় ওই কণ্ঠ থেকে

এই বিভাগের সর্বাধিক জনপ্রিয়

Alexa