ঢাকা, রবিবার, ১২ আষাঢ় ১৪২৯, ২৬ জুন ২০২২, ২৬ জিলকদ ১৪৪৩

কৃষি

পেঁপে বাগানের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা 

শামসুল ইসলাম সনেট, কেরানীগঞ্জ করেসপন্ডেন্ট   | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৪০ ঘণ্টা, মার্চ ৯, ২০২২
পেঁপে বাগানের সঙ্গে এ কেমন শত্রুতা 

কেরানীগঞ্জ (ঢাকা): ভালো ফলনের আশায় পুরোনো গাছ কেটে নতুন করে আড়াই বিঘা জমিতে দুই ভাই মিলে রোপণ করেছিলেন প্রায় ১ হাজার চারা। চারা লাগানো, ওষুধ, সার বাবদ খরচ করেছেন প্রায় ৩ লাখ টাকা।

নতুন চারায় এসেছিল থোকায় থোকায় সাজও। মাস খানেকের মধ্যেই গাছগুলোতে পেঁপে আসা শুরু হতো। পেঁপে বিক্রি করে আয় হতো প্রায় ৭-৮ লাখ টাকা। কিন্তু দুই ভাইয়ের এই স্বপ্ন অধরাই রয়ে গেল। গত ৭ মার্চ দিনগত রাতে ২ বিঘা জমির ওই পেঁপে বাগান কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা।

গত সোমবার (৭ মার্চ) মানিকগঞ্জের সিংগাইর পৌরসভার আজিমপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মঙ্গলবার (৯ মার্চ) দুপুরে এ বিষয়ে সিঙ্গাইর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক মো. জামাল হোসেন।

অভিযোগ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার জয়মন্টপ ইউনিয়নের চর নয়াডিঙ্গি এলাকার মো. জামাল হোসেন  ও বাদল হোসেন দুই ভাই পার্শ্ববর্তী আজিমপুর এলাকায় আড়াই বিঘা জমি ভাড়া নিয়ে পেঁপে বাগান করেন। বাগানে গত বছরের পুরাতন গাছে পেঁপে কম ধরায় ওই জমিতে নতুন চারা গাছ রোপণ করেছেন তারা। প্রতিটি চারা গাছেই ফুল ধরেছে। হয়তো মাস খানেকের মধ্যেই প্রতিটি গাছে পরিপক্ব পেঁপে আসবে। ওই বাগানের ২ বিঘা জমির প্রায় ৭০০টি পেঁপে চারা গত ৭ মার্চ দিনগত রাতে কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা।

এ বিষয়ে পেঁপে চাষি জামাল বাদী হয়ে শাহিনুর রহমান, মাফুজ,হাসান ও হোসাইন নামে চার প্রতিবেশীর নামে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

পেঁপে চাষি জামাল হোসেন বলেন, আড়াই বিঘা জমিতে আড়াই লক্ষ টাকা খরচ করে বাগান করেছি, ২ বিঘা জমির ৭০০টি পেঁপের চারা রাতের আঁধারে কেটে ফেলছে। বাগান থেকে এ বছর প্রায় ৮ লাখ টাকার পেঁপে বিক্রি করা সম্ভব ছিল। এমন সময় চারাগুলো কেটেছে যে, নতুন করে আবার চারা রোপণ করাও সম্ভব নয়।

তিনি আরও বলেন, প্রতিবেশী শাহিনুর রহমান, মাফুজ, হাসান ও হোসাইনসহ কয়েকজন যুবক সপ্তাহ খানেক আগে বাগানের পুরাতন গাছের পাকা পেঁপে চুরি করে বিক্রি করেন। পরে বিষয়টি প্রমাণিত হলে এলাকার গণ্যমাণ্যরা বিষয়টি মিমাংসা করে দেন। তবে আমার ধারণা ওই চার যুবকই ক্ষিপ্ত হয়ে পেঁপে বাগানের চারাগুলো কেটেছে।

অভিযুক্ত শাহিনুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, সপ্তাহ খানেক আগে আমরা ৪-৫ জন পাকা পেঁপে চুরি করি। পরে এলাকার লোকজন বিষয়টি মিমাংসা করে দেন। কিন্তু পেঁপে গাছ কাটার বিষয়ে আমরা কিছুই জানি না। হয়তো বা অন্য কেউ পেঁপে গাছ কেটে আমাদের ফাঁসানো চেষ্টা করছে।

জয়মন্টপ ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ইঞ্জিয়ার শাহাদাৎ হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, ফলদগাছ কাটা, মানুষ হত্যার সমান। এই ন্যাক্কারজনক ঘটনা যারা ঘটিয়েছে প্রশাসনের কাছে দাবি জানাই তদন্তের মাধ্যমে তাদের আইনের আওতায় আনা হোক।

উপজেলা কৃষি অফিসার টিপু সুলতান স্বপন বলেন, পূর্ব শত্রুতার জেরে পেঁপে গাছ কাটা খুবই দুঃখজনক। মাঝে মধ্যেই কৃষকদের সঙ্গে এমন ঘটনা ঘটে থাকে। দোষীদের আইনের আওতায় আনা জরুরি।

এ ব্যাপারে সিঙ্গাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা বাংলানিউজকে  বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪০ ঘণ্টা, মার্চ ০৯, ২০২২
এসআরএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa