ঢাকা, শনিবার, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাতীয়

লিজ ট্রাস প্রশাসন: বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সম্ভাবনা

ডিপ্লোম্যাটিক করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৩৩ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
লিজ ট্রাস প্রশাসন: বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সম্ভাবনা যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী লিজ ট্রাস

ঢাকা: যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন লিজ ট্রাস। নতুন সরকারের সঙ্গে বাংলাদেশের নানা ক্ষেত্রে সহযোগিতার সুযোগ রয়েছে।

দুই দেশের সম্পর্ক বিস্তৃত করার অপার সম্ভাবনাও রয়েছে। এ বিষয়ে যুক্তরাজ্যের ইউরেশিয়া রিভিউ.কম একটি উপ-সম্পাদকীয় প্রকাশ করেছে।

এতে বলা হয়েছে, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রাস বরিস জনসনের স্থলাভিষিক্ত হয়ে যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। রাজনৈতিক কর্মজীবনজুড়ে ট্রাসকে আয়রন লেডি মার্গারেট থ্যাচারের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছে, যাকে রক্ষণশীল নেতাদের মানদণ্ড হিসাবে বিবেচনা করা হয়। নতুন প্রধানমন্ত্রী এমন এক সময়ে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন যখন তার দেশ এবং সমগ্র বিশ্ব অর্থনৈতিক অনিশ্চয়তার সঙ্গে গুরুতর চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি।

যেহেতু নতুন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নিয়েছেন, সেজন্য যুক্তরাজ্যের সারা বিশ্বের অংশীদাররা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের জন্য নতুন সুযোগ উন্মোচন করতে পারে। সে কারণে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে ঐতিহাসিক সম্পর্ক থাকায় বাংলাদেশও আশা করছে এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে বাণিজ্য ও বিনিয়োগসহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক জোরদার করবে।

ঐতিহাসিক পটভূমি
১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের পর থেকে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে বাংলাদেশের বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে। বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য সম্পর্কের ইতিহাস অংশীদারত্ব, ভ্রাতৃত্ব এবং গভীর বোঝাপড়ার সাক্ষ্য দেয়। ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি লন্ডন হয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে প্রত্যাবর্তন বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য সম্পর্কের  ঐতিহাসিক মুহূর্তের সূচনা করে। ১০ ডাউনিং স্ট্রিটে বঙ্গবন্ধুকে অভ্যর্থনা করার সময় প্রাক্তন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথের আন্তরিক অভ্যর্থনা এবং আন্তরিক আতিথেয়তার কথা কোটি কোটি বাঙালি কখনও ভুলবে না।

আরেকটি অবিস্মরণীয় অঙ্গভঙ্গি ছিল যে, ব্রিটিশ রয়্যাল এয়ার ফোর্সের জেট বিমান ১০ জানুয়ারি দিল্লি হয়ে বঙ্গবন্ধুকে নিজ দেশে নিয়ে যায়, যেখানে তাঁর লোকেরা তাঁর প্রত্যাবর্তনের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিল। যুক্তরাজ্য প্রথম ইউরোপীয় দেশগুলির মধ্যে একটি ছিল যারা ৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৭২ সালে বাংলাদেশকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে স্বীকৃতি দেয়, যা অন্যান্য কমনওয়েলথ এবং ইউরোপীয় দেশগুলিকে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়ার ক্ষেত্রে প্রভাবিত করেছিল। তারপর থেকে দুই দেশ উষ্ণ সম্পর্ক উপভোগ করেছে। অর্থনৈতিক থেকে নিরাপত্তা ইস্যুতে বহুমাত্রিক সহযোগিতাকে গভীরতর করছে।

রাজনৈতিক বন্ধন
ঔপনিবেশিক সংযোগের ভিত্তিতে যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের একটি সমৃদ্ধ প্রবাসী সম্প্রদায় রয়েছে। এটি অনুমান করা হয় যে, প্রায় ০.৭ মিলিয়ন বাংলাদেশি প্রবাসী যুক্তরাজ্যে ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক এবং সামাজিক সম্পর্কের একটি গুরুত্বপূর্ণ সংযোগকারী হিসাবে বসবাস করছে। ব্রিটিশ রাজনীতিতে বাংলাদেশের প্রবাসীদের প্রতিনিধিত্বের বিষয়ে বাংলাদেশের মানুষ ব্যাপক উৎসাহ দেখায়।

বর্তমানে যুক্তরাজ্যে প্রায় ১০০ জন ব্রিটিশ বাংলাদেশি কাউন্সিলর এবং ৪ জন সংসদ সদস্য রয়েছেন। ১০ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি রেস্তোরাঁ পরিচালনা করে, যার বার্ষিক টার্নওভার ৪.৫ বিলিয়ন পাউন্ড। প্রবাসীদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যার সাথে, যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের জন্য রেমিট্যান্সের অন্যতম প্রধান উৎস। ২০২১ সালে যুক্তরাজ্য বাংলাদেশের রেমিট্যান্সের ৪র্থ বৃহত্তম উৎস ছিল। গণহত্যার মুখে ১.২ মিলিয়নেরও বেশি রোহিঙ্গাকে মিয়ানমার থেকে পালাতে বাধ্য হওয়ায় যুক্তরাজ্য সরকার বাংলাদেশের চ্যালেঞ্জের পাশে দাঁড়িয়েছে। এই সংকটের টেকসই সমাধান হিসেবে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনের বিষয়ে অত্যন্ত সক্রিয়ও রয়েছে।

গত এক দশকে একটি শক্তিশালী ভিত্তি এবং দ্বিপাক্ষিক অংশীদারত্বের ক্রমবর্ধমান সম্প্রসারণের ফলে বাংলাদেশ-যুক্তরাজ্য বাণিজ্য ও বিনিয়োগের জন্য অপার সম্ভাবনা তৈরি করেছে। ২০০টিরও বেশি ব্রিটিশ কোম্পানির উপস্থিতিসহ যুক্তরাজ্য বাংলাদেশে দ্বিতীয় বৃহত্তম বিনিয়োগকারী। যুক্তরাজ্যের মোট ক্রমবর্ধমান বিনিয়োগ ২.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এছাড়াও যুক্তরাজ্য যুক্তরাষ্ট্র এবং জার্মানির পরে বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম বাজার গন্তব্য। বর্তমানে দ্বিমুখী বাণিজ্য ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়েছে। যুক্তরাজ্যও কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশের একটি বড় দাতা। যুক্তরাজ্যের ক্রমবর্ধমান উন্নয়ন সহায়তার পরিমাণ ৩ বিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ডের বেশি। সাম্প্রতিককালে যুক্তরাজ্য ২০২৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের বাজারে শুল্কমুক্ত, কোটামুক্ত প্রবেশাধিকার প্রদানের মাধ্যমে বাংলাদেশকে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

ইউকে-বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট ডায়ালগ প্রথমবারের মতো ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংলাপের সময় উভয় দেশ জিএসপি, এলডিসি গ্র্যাজুয়েশন, বিনিয়োগ সহযোগিতা, যুক্তরাজ্যের পরিষেবা খাতে বাংলাদেশি পেশাদারদের প্রবেশাধিকার, বাণিজ্যের মতো বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেছে। ব্যবসা  সহজীকরণ, আর্থিক খাতের উন্নয়ন, উচ্চশিক্ষার বিধান, কর সংক্রান্ত সমস্যা আলোচনা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান সেবা শিল্প, স্বাস্থ্য ও স্বাস্থ্য প্রযুক্তি, শিক্ষা এবং এডটেক, ফিনটেক ইত্যাদি প্রতিশ্রুতিশীল খাতগুলো অন্বেষণ করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র যেখানে ব্রিটিশ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো বিনিয়োগ করতে আগ্রহী।

যুক্তরাজ্য সরকার ইউকে ডেভেলপিং কান্ট্রিজ ট্রেডিং স্কিম (ডিসিটিএস) নামে একটি নতুন স্কিম চালু করেছে, যা বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলোর সাথে অবাধ ও ন্যায্য বাণিজ্য বৃদ্ধির একটি বড় সুযোগ প্রদান করে। যুক্তরাজ্যের এই নতুন স্কিমটি উন্নয়নশীল দেশগুলোর জন্য আরও সুযোগ ও আমদানির উপর শুল্ক হ্রাস করবে। ব্রেক্সিট-পরবর্তী যুক্তরাজ্য আরও উদার, বাণিজ্যপন্থী দৃষ্টিভঙ্গি গ্রহণ করে তার বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্পর্ককে ভিন্নভাবে গঠন করছে, যা অনেক সুযোগের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। অনেক বিশেষজ্ঞ পরামর্শ দেন যে, দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য জোরদার করতে উভয় দেশের একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি (এফটিএ) স্বাক্ষর করা উচিত। তাদের মতে, সময় এসেছে যুক্তরাজ্যের সাথে একটি এফটিএ স্বাক্ষর করার যাতে ২০২২ সালের শেষের দিকে ব্রিটেন যখন ইইউ বাণিজ্য ব্লক থেকে বেরিয়ে যাবে তখন বাংলাদেশ যেকোনো সম্ভাব্য ব্যবসায়িক চুক্তির পূর্ণ সুবিধা নিতে পারে।

প্রতিরক্ষা বন্ধন
প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্য উভয়েই কৌশলগত সংলাপের যুগান্তকারী উদ্যোগের তালিকা করেছে। ২০১৭ সাল থেকে শুরু করে দুই দেশ ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১ যুক্তরাজ্যের লন্ডনে চতুর্থ কৌশলগত সংলাপ করেছে, যা বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সম্পূর্ণ অংশকে স্পর্শ করে। রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক, বৈশ্বিক ও আঞ্চলিক সমস্যা, অর্থনৈতিক ও উন্নয়ন অংশীদারত্ব এবং নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষা। ৫০ বছর আগে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সময় প্রতিষ্ঠিত ক্রমবর্ধমান দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা সম্পর্কের প্রতিফলন ঘটানোর জন্য আরেকটি মহৎ ফোরাম হিসাবে ২০২২ সালের মার্চ মাসে প্রথম যুক্তরাজ্য-বাংলাদেশ প্রতিরক্ষা সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই ফোরাম পরবর্তী ৫০ বছরের দ্বিপাক্ষিকতার প্রস্তুতির জন্য তৈরি করা উচিত।  ২০২১ সালে লন্ডন সফরের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফোর্সেস গোল ২০৩০ বাস্তবায়নের সাথে সামঞ্জস্য রেখে প্রতিরক্ষা ক্রয়ের জন্য বাংলাদেশের বর্ধিত চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে প্রতিরক্ষা সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করেছিলেন।

যেহেতু নতুন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তাঁর দেশের মুক্ত অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে প্রস্তুত। তিনি বিশ্বজুড়ে নতুন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক এবং মুক্ত-বাণিজ্য চুক্তির সন্ধান করতে পারেন, কারণ তিনি একজন মুক্ত বাণিজ্য মতাদর্শে বিশ্বাসী। এই পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার একটি বাঘ হিসেবে নতুন ব্রিটিশ সরকারের জন্য তার অর্থনৈতিক ও প্রতিরক্ষা সম্পর্ক জোরদারে প্রতিশ্রুতিশীল সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে। যেখানে বাংলাদেশের অব্যাহত উচ্চ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, সামাজিক খাতের ক্ষমতায়ন, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা, উদ্ভাবনী এবং উদ্যোগী যুবকদের সাথে দেশটিকে টেকসই আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের দিকে নিয়ে যাচ্ছে, সেখানে যুক্তরাজ্য একটি শক্তিশালী অংশীদারত্বের প্রস্তাব দিতে পারে। এ ধরনের অংশীদারত্ব দেশকে একটি উন্নত রাষ্ট্র অর্থাৎ সোনার বাংলায় রূপান্তরের ‘রূপকল্প ২০৪১’ পূরণে বাংলাদেশের জন্যও উপকারী হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২২
টিআর/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa