ঢাকা, শুক্রবার, ১০ আশ্বিন ১৪২৭, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬ সফর ১৪৪২

রাজনীতি

১২ ডিসেম্বরের পর কী হবে বলতে পারবো না: বুলবুল

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৭, ২০১৯
১২ ডিসেম্বরের পর কী হবে বলতে পারবো না: বুলবুল

রাজশাহী: কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে মুক্তি না দিলে আগামী বৃহস্পতিবারের (১২ ডিসেম্বর) পর কী হবে তা বলতে পারছেন না বলে মন্তব্য করেছেন রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন ‍বুলবুল। 

শনিবার (৭ ডিসেম্বর) এক বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বিএনপি নেতা বুলবুল সরকারের প্রতি এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।  

একইসময় কারাগারে সাজাভোগরত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি জানান রাজশাহীর যুবদল নেতারা।

 

দলীয় নেত্রীর মুক্তির দাবিতে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছেন তারা। মহানগর যুবদলের উদ্যোগে বেলা ১১টার দিকে মালোপাড়ায় থাকা মহানগর বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ শেষে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে বুলবুল বলেন, সরকার অন্যায়ভাবে খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রেখেছে। এর পরও আইনি প্রক্রিয়ায় তাকে কারাগার থেকে মুক্ত হতে দিচ্ছে না।  

তিনি আরও বলেন, ‘সরকার একের পর এক  ছল-চাতুরী করে অনৈতিকভাবে অত্যাচার করে যাচ্ছে। আজ সাধারণ মানুষের মত প্রকাশের অধিকারও নেই। দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার ক্রমেই অবনতি ঘটছে। অথচ তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নিয়ে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। তাই দলীয় প্রধানকে কারাগারে রেখে নেতাকর্মীরা আর বসে থাকতে পারে না। ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে তাকে মুক্তি না দেওয়া হলে তারপর কী হবে আমরা বলতে পারবো না। ’

রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি বলেন, সরকারের অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। দেশে এখন কোনো গণতন্ত্র নেই। আর গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য আন্দোলনের কোনো বিকল্প নেই। এ সরকার দেশকে বিক্রি করার জন্য পাঁয়তারা করছে। দেশকে বাঁচাতে ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে তাই খালেদা জিয়ার বিকল্প নেই।

এর আগে সকালে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করার চেষ্টা করেন যুবদল নেতারা। কিন্তু পুলিশি বাধায় মিছিলটি পণ্ড হয়ে যায়। পরে দলীয় কার্যালয়ের সামনেই বসে পড়েন নেতাকর্মীরা। সেখানে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

রাজশাহী মহানগর যুবদলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইটের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান রিটনের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন- রাজশাহী মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন, জেলা যুবদল সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন, সম্পাদক শফিকুল আলম, মহানগর যুবদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম জনি, জেলা বিএনপির সদস্য গোলাম মোস্তফা।  

এছাড়াও কর্মসূচিতে জেলা ও মহানগর যুবদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৭, ২০১৯
এসএস/আরবি/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa