ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৪ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৮ জিলহজ ১৪৪২

রাজনীতি

এবার সাবেক এমপি সাত্তারের মুক্তিযোদ্ধা সনদ নিয়ে বিতর্ক!

এম. আব্দুল্লাহ আল মামুন খান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৩৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ৭, ২০১৪
এবার সাবেক এমপি সাত্তারের মুক্তিযোদ্ধা সনদ নিয়ে বিতর্ক! আব্দুস সাত্তার

ময়মনসিংহ: এবার ময়মনসিংহ-৮ (ঈশ্বরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাবেক সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বর্তমান শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সাত্তারের মুক্তিযোদ্ধা সনদ নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। সরকারি গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা (গেজেট নং-২৪৫১) আবুল কাশেম সাবেক এমপি সাত্তারের মুক্তিযোদ্ধা সনদ নিয়ে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন।



তিনি ওই সাবেক এমপি’র মুক্তিযোদ্ধা সনদ ভূয়া দাবি করে তা বাতিলের দাবি তুলে প্রধানমন্ত্রী, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের মহাপরিচালক ও দুর্নীতি দমন কমিশনের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উছাখিলা ইউনিয়নের সরকারি গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা (গেজেট নং-২৪৫১) আবুল কাশেম লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, আব্দুস সাত্তার (গেজেট নম্বর-৫২৬৭) ২০১৩ সালে সংসদ সদস্য থাকার সুবাদে ক্ষমতা অপব্যবহার করে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলে ভূয়া তথ্য দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার নাম অন্তর্ভুক্ত করার আবেদন করেন।

পরে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল কোন প্রকার যাচাই না করেই তার নাম গেজেটে অন্তর্ভুক্ত করেন। প্রকৃতপক্ষে তিনি স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেননি।

অভিযোগে এ মুক্তিযোদ্ধা আরো বলেন, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সাবেক এমপি সাত্তার দেশের বাড়িতে অবস্থান করছিলেন। যার প্রমাণ তার প্রতিবেশী লোকজন দিতে পারবেন। বিভিন্ন সরকারের সময়ে মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা প্রণয়ন করার সময়েও তার নাম ছিল না।

বর্তমান সরকার ১৯৯৬ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর যাচাই করে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের নামের তালিকা প্রণয়ন করে। ওই সময় তিনি নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা দাবি করেননি এবং তার নামও তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়নি।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম বলেন, বর্তমান সরকার ভূয়া মুক্তিযোদ্ধাদের নাম বাতিল করার পদক্ষেপ নিয়েছে। এতে আমরা প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধারা আশান্বিত হয়েছি। অধিকতর তদন্ত করে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তারের নাম মুক্তিযোদ্ধার গেজেট থেকে বাতিলের দাবি’র পাশাপাশি  মিথ্যাচার ও প্রতারণার অভিযোগে ব্যবস্থা গ্রহণেরও দাবি জানান তিনি।

এ বিষয়ে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এম.এ সাত্তার বলেন, সাবেক এমপি সাত্তার আমার জানামতে মুক্তিযোদ্ধা না। তবে এখন শুনছি তিনি নাকি মুক্তিযোদ্ধা।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুস সাত্তার বাংলানিউজকে বলেন, আমি কী এটা আমি তো জানি। আমি মিথ্যা বলি না। কাশেম মিথ্যাচার করছেন। তিনি নিজেই মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। তদন্তের মাধ্যমে আমার বিষয়টি প্রমাণিত হবে।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৩৩ ঘণ্টা, নভেম্বর ০৭, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa