ঢাকা, শনিবার, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ২৮ নভেম্বর ২০২০, ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

জাতীয়

এক নজরে বোমাং রাজা ক্য সাইন প্রু চৌধুরী

এস বাসু দাশ, জেলা প্রতিনিধি | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯১৩ ঘণ্টা, জানুয়ারী ২, ২০১৩
এক নজরে বোমাং রাজা ক্য সাইন প্রু চৌধুরী

বান্দরবান: ১৯৩৩ সালের ১৩ ডিসেম্বর উঃ ক্য জ সাইন চৌধুরী এবং হাং সাওয়াং প্রু-এর ঘরে বান্দরবানের বোমাং রাজবাড়িতে জন্ম নেন ক্য সাইন প্রু চৌধুরী (কে.এস.প্রু)।

তিনি প্রাথমিক শিক্ষা শেষে ১৯৫৬ সালে চট্টগ্রাম সেন্ট প্লাসিড হাইস্কুল থেকে এসএসসি এবং ১৯৫৮ সালে দেশের অন্যতম সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঢাকা নটরডেম কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন।


 
ছাত্রজীবনে সঙ্গীত, সাহিত্য, সম্পাদনা, বিতর্ক প্রতিযোগিতা, ছাত্র সংঘ ইত্যাদি শাখায় তাঁর ছিল অবাধ বিচরণ। এসব ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে মিলেছে ‘আউটস্ট্যান্ডিং নটরডেম স্পিরিট এ্যাওয়ার্ড’ ও ‘নটরডেমের হেমন্ত’ উপাধি।

এছাড়া তিনি নটরডেম কলেজের মাসিক সাময়িক পত্রিকা ‘চটচ্যাট’সহ স্টুডেন্ট জার্নাল অব ইয়াং পাকিস্তান সম্পাদনা বোর্ডের অন্যতম সদস্য ছিলেন।

১৯৫৯ সালের ৮ মার্চ ১৩তম বোমাং রাজা মৃত উঃ ক্য জ সাইন চৌধুরীর মৃত্যুর পর পড়াশোনা ছেড়ে পারিবারিক কৃষিকাজের সঙ্গে তিন বছর জড়িত ছিলেন। এরপর তিনি ১৯৬৩ সাল থেকে ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত সুইডিশ কনস্ট্রাকশন ফার্ম কাপ্তাইয়ে লেবার অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৫ সাল থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত ইস্ট পাকিস্তান ওয়াপদা লেবার ওয়েলফেয়ার অফিসার হিসেবে কাজ করেন। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পর তিনি আর কোনো চাকরিতে যোগদান করেননি।

এসময়ের মধ্যে রাজনীতিতেও ছিল তাঁর সক্রিয় অংশগ্রহণ। রাজনৈতিক জীবনে তিনি ১৯৭৩ ও ১৯৭৭ সালে অনুষ্ঠিত ১ নম্বর বান্দরবান সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দুইবার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ (বাকশাল) বান্দরবান ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।

১৯৭৯ সালে বিএনপি বান্দরবান ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।
 
১৯৯৬ সালের ৩ জুন বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব নেন।
 
এদিকে, ১৯৭৯ থেকে ১৯৯৭ পর্যন্ত তৎকালীন পার্বত্য চট্টগ্রাম ট্রাইবাল কনভেনশনের বান্দরবান ইউনিটের ডেপুটি কনভেনর হিসেবে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের শান্তি ও মৈত্রী রক্ষার দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ১৯৭৮ থেকে ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত পার্বত্য শান্তি চুক্তির বিষয়ে সংলাপের জন্য গঠিত যোগাযোগ কমিটির সদস্য হিসেবে কাজ করেন।

তিনি উপজেলা, জেলা পরিষদ ও জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নেন। বান্দরবানের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানের তৎকালীন কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদেও অধিষ্ঠিত হন। বর্তমানে তিনি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে কর্মরত থেকে সমাজসেবামূলক কাজ করছেন।

বিভিন্ন সময়ে তিনি অনেক দেশ সফর করেছেন।
 
২০১২ সালের ২০ সেপ্টেম্বর থেকে তিনি বোমাং সার্কেলের ১৬তম রাজা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন, ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ২ ছেলে ও ৫ মেয়ের জনক।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০২, ২০১৩
    
সম্পাদনা: শিমুল সুলতানা, নিউজরুম এডিটর [email protected]

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa