ঢাকা, শনিবার, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩ শাবান ১৪৪৫

আইন ও আদালত

ভদ্রা-হরি নদীর জায়গায় ১৪ ইটভাটা উচ্ছেদের নির্দেশ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮১৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৪, ২০২১
ভদ্রা-হরি নদীর জায়গায় ১৪ ইটভাটা উচ্ছেদের নির্দেশ

ঢাকা: খুলনা জেলার ডুমুরিয়া উপজেলার ভদ্রা ও হরি নদীর জায়গায় থাকা ১৪টি ইটভাটা উচ্ছেদের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

এ বিষয়ে জরিপ রিপোর্ট আসার পর মঙ্গলবার (১৩ ডিসেম্বর) বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ।

১২ ফেব্রুয়ারি একটি ইংরেজি দৈনিকে ‘ইউনাইটেড দে কিল রিভার্স’ শীর্ষক শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদন যুক্ত করে এ রিট করা হয়।

জনস্বার্থে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে গত ২২ ফেব্রুয়ারি এ রিট করা হয়। এরপর ২৫ ফেব্রুয়ারি আদালত রুলসহ আদেশ দেন।

মনজিল মোরসেদ জানান, খুলনার জেলা প্রশাসক ও ডুমুরিয়ার এসি ল্যান্ডকে সিএস/আরএস অনুসারে জরিপ করে ভদ্রা ও হরি নদীর সীমানা নির্ধারণ করে ৯০ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। সে অনুসারে জেলা প্রশাসন জরিপ করে ১৪টি ইটভাটার তালিকা আদালতে দাখিল করেন। এরপর ইটভাটা উচ্ছেদের নির্দেশনা চেয়ে আবেদন করা হয়। আদালত আজ ৬০ দিনের মধ্যে ১৪টি স্থাপনা অপসারণ করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। এছাড়া পরবর্তী আদেশের জন্য ২২ ফেব্রুয়ারি দিন রেখেছেন।

পত্রিকায় প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার এক সময়ের প্রবাহমান নদী ভদ্রা এখন একটি সরু খালে পরিণত হয়েছে। এর জন্য দায়ী নদীর জমি দখলকারী ইটভাটাগুলো, যেগুলো চালাচ্ছেন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিসহ স্থানীয় প্রভাবশালীরা।

গত ডিসেম্বরে (২০২০) প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে নয়টি ইটভাটা চিহ্নিত করেছে খুলনার বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (বিডব্লিউডিবি)। এর মধ্যে খারনিয়া ইউনিয়নের ভদ্রা নদীর তীরের চার কিলোমিটার দীর্ঘ জায়গা দখল করে রাখা ইটভাটাগুলোও রয়েছে। যে ইটভাটাগুলোর মালিকদের মধ্যে একজন সংসদ সদস্য (এমপি), উপজেলার ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানও রয়েছেন।

ইংরেজি দৈনিকটি সরেজমিনে গিয়ে দেখেছে, ইটভাটার মাধ্যমে এসব দখলের কারণে ভদ্রার শাখা নদী সালতাসহ সংযুক্ত অন্তত তিনটি খালের স্রোতের প্রবাহ পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। গত সপ্তাহে খারনিয়া ব্রিজের ওপর দাঁড়িয়ে আমাদের সংবাদদাতা দেখেছেন, এক সময় ৫০০ মিটার প্রশস্ত ভদ্রা নদী বর্তমানে সংকুচিত হয়ে ১৬-৩০ মিটার হয়ে গেছে। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, শীতে নদীর প্রবাহ কমে যাওয়ায় এর দুই পাড় থেকে দখলদাররা খননকারী যন্ত্র দিয়ে মাটি তুলছেন। তারা সেই মাটি ইট বানাতে ব্যবহার করেন।

যদিও নদীর জমি দখল করা অপরাধমূলক কাজ, তা সত্ত্বেও দখলদাররা গত ১২ বছর ধরে এসব ইটভাটা চালিয়ে আসছে। ইটভাটা মালিকদের কাছে নোটিশ পাঠানো ছাড়া কার্যত আর তেমন কোনো ব্যবস্থাই এখনো পর্যন্ত নেয়নি স্থানীয় প্রশাসন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৪, ২০২১
ইএস/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।