ঢাকা, শনিবার, ৫ ভাদ্র ১৪২৯, ২০ আগস্ট ২০২২, ২১ মহররম ১৪৪৪

রাজনীতি

সরকারের অব্যবস্থাপনার কারণে লোডশেডিং: মোশাররফ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৪৫ ঘণ্টা, জুলাই ৬, ২০২২
সরকারের অব্যবস্থাপনার কারণে লোডশেডিং: মোশাররফ

ঢাকা: বিদ্যুতে লোডশেডিং সরকারের অব্যবস্থাপনার কারণেই বলে অভিযোগ করেছেন খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

বুধবার (৬ জুলাই) দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য এমন অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, গত ১৫ দিন আগেও বাংলাদেশে মানুষ ও এই সরকারও জানে না যে, এদেশে সাড়ে ৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ লোডশেডিং হয়। যদি জানতো তাহলে হঠাৎ করে লোডশেডিং কেনো হচ্ছে? এজন্য যে, আমাদের যে গ্যাস, গ্যাস থেকে যে বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়, সেই গ্যাসের যে উত্তোলন, বিতরণ—এ ব্যাপারে গত ১৪ বছর যাবত সরকার কোনো রকমের পদক্ষেপ নেয়নি।

তারপরে গ্যাস উৎপাদনের ব্যবস্থা করে নাই। বিদেশ থেকে আমদানিকৃত গ্যাসের ওপর নির্ভর করেছে। এই অব্যবস্থার কারণে আজকে বিদ্যুৎ উৎপাদন কমে গেছে, বার বার লোডশেডিং হচ্ছে, যোগ করেন মোশাররফ হোসেন।

শতভাগ বিদ্যুত উৎপাদনে দেশের স্বয়ংসম্পূর্ণতা নিয়ে সরকারপ্রধানের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, আজকের প্রধানমন্ত্রী ফলাও করে অনুষ্ঠান করে ঘোষণা করেছিলেন যে, এই লোডশেডিংকে আমরা মিউজিয়ামে পাঠিয়ে দিয়েছি, আর জনগণ লোডশেডিং দেখবে না। কোথায় আপনার সেদিনের আস্ফালন? প্রধানমন্ত্রী আপনাকে জিজ্ঞাসা করতে চাই—যেই লোডশেডিংকে আপনি মিউজিয়ামে পাঠিয়ে দিয়েছিলেন, আজকে এই লোডশেডিং এদেশের জনগণ প্রতিনিয়ত অনুভব করছে। আমি গতকাল ডেমরাতে একটা অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। এক ঘণ্টা দেরি হয়েছে, অনুষ্ঠান শুরু করতে পারেননি আয়োজকরা। ঢাকা শহরে লোডশেডিং, গ্রামে-গঞ্জে প্রতিদিন ৬ ঘণ্টা লোডশেডিং হচ্ছে। আর সরকারপ্রধান বলছেন—লোডশেডিংকে মিউজিয়ামে পাঠিয়ে দিয়েছেন!

রেন্টাল বিদ্যুৎ প্রকল্পের সমালোচনা করে খন্দকার মোশাররফ বলেন, সরকার শুধু একটি সিন্ডিকটকে খুশি করার জন্য রেন্টাল বিদ্যুৎ নিয়ে এসেছে, যেগুলো স্বল্পকালের জন্য নিয়ে আসা হয়ে থাকে… যার জন্য আমাদের শাসনামলে যে বিদ্যুতের দাম ছিল ২ টাকার নিচে, সেটা এখন ১০ টাকার ওপরে। কেন? ওই সিন্ডিকেটকে লাভবান করার জন্য তারা এসব করেছে।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে জাতীয়তাবাদী নবীন দলের উদ্যোগে ২০১১ সালের ৬ জুলাই সংসদ ভবনের সামনে তৎকালীন বিরোধী দলীয় প্রধান হুইপ জয়নুল আবদিনসহ বিএনপি দলীয় এমপিদের ওপর পুলিশি হামলা দিবসটির স্মরণে প্রতিবাদী এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বিরোধী দলীয় সাবেক প্রধান হুইপ বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুক উপস্থিত ছিলেন।

২০১১ সালে সংসদে বিরোধী দলীয় প্রধান হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুকের ওপর পুলিশ হামলা ‘গণতন্ত্রের ওপর আক্রমণ’ হিসেবে অভিহিত করেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ এই নেতা।

সংগঠনের সভাপতি হুমায়ুন আহমেদ তালুকদারের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল রানার সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির সাবেক এমপি  এবিএম আশরাফ উদ্দিন নিজান, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইসাহাক সরকার প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪২ ঘণ্টা, জুলাই ০৬, ২০২২
এমএইচ/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa