ঢাকা, মঙ্গলবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২১ মে ২০২৪, ১২ জিলকদ ১৪৪৫

জাতীয়

দুর্ঘটনা এড়াতে বান্দরবানে লাগানো হচ্ছে সাইনবোর্ড

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২৩২৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০২১
দুর্ঘটনা এড়াতে বান্দরবানে লাগানো হচ্ছে সাইনবোর্ড

বান্দরবান: অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি পার্বত্য জেলা বান্দরবান। পাহাড় ,নদী ,ঝর্ণা আর প্রাকৃতিক পরিবেশ উপভোগে প্রতিদিনই বান্দরবানে ভ্রমণে যায় অসংখ্য দেশি বিদেশি পর্যটক।

তবে ভ্রমণ পিপাসুদের অতি উৎসাহ ও বিপদজনক জায়গা সম্পর্কে ধারণা না থাকায় ঘটে অনেক সময় অনাকাঙ্কিত দুর্ঘটনা, অনেক সময় ঘটে প্রাণহানি।

সম্প্রতি ২২ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থেকে ১০জনের একটি পর্যটক দল বান্দরবান ভ্রমণে আসে তবে অসাবধনাতবসত ঝর্ণার পানিতে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে মারা যায় ৩জন, আর এই ঘটনার পর নড়েছড়ে বসে বান্দরবানের জেলা প্রশাসন।

দুর্ঘটনা এড়াতে এবার তাই বান্দরবান জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে পর্যটকদের ভ্রমণের বিভিন্ন বিপদজনক সড়কে বসানো হচ্ছে নিরাপত্তা সাইনবোর্ড।

সূত্রে জানা যায়,পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য জেলা সদরের থানারকুম,শৈলপ্রপাত,উজানীপাড়াকুম, মধ্যমপাড়াকুম,দেবতাকুমসহ পৌর এলাকার বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ জায়গায় নিরাপত্তা সাইনবোর্ড বসানো হচ্ছে। একইভাবে বান্দরবানের রোয়াংছড়ি, থানচি, রুমা, আলীকদম উপজেলার ঝুঁকিপূর্ণ জায়গাগুলোতেও এই ধরনের নিরাপত্তা সাইনবোর্ড বসানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বান্দরবান জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.কায়েসুর রহমান জানান, বান্দরবানে ভ্রমণে আসা পর্যটকদের নিরাপত্তার জন্য প্রশাসন সদা সর্তক থাকে। পর্যটকদের নিরাপত্তার বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দিয়ে বান্দরবানের দুটি জনপ্রিয় পর্যটনস্পট নীলাচল ও মেঘলার প্রবেশমুখ এবং অভ্যন্তরে দায়িত্ব পালনকারী স্টাফদের সুনির্দিষ্ট পোশাক দেওয়া হয়েছে, যাতে পর্যটকরা কোনো সমস্যার সম্মুখীন হলে বিশেষ পোশাক পরিহিত এসব সিকিউরিটি গার্ডদের কাছে সহজেই সাহায্য চাইতে পারে। তিনি আরও বলেন, নীলাচল ও মেঘলা পর্যটন কেন্দ্রকে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার আওতাভুক্ত করা হয়েছে বাকি গুরুত্বপূর্ণ এলাকাগুলোকে সিসিটিভি ক্যামেরার আওতাভুক্ত করা হবে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো.কায়েসুর রহমান আরও জানান,বান্দরবানে ভ্রমণে এসে যাতে কোন পর্যটকের কোন বিপদের সম্মুখীন হতে না হয় সেজন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন বিপদজনক জায়গায় বসানো হচ্ছে নিরাপত্তা সাইনবোর্ড,আর এতে পর্যটকরা সহজেই বুঝতে পারবে কোন এলাকায় চলাচল করা সহজ এবং কোথায় বিপদজনক।

তিনি আরও বলেন, ভ্রমণে আসা পর্যটকদের আরও সচেতন হতে হবে বিশেষ করে ভ্রমণ এলাকা সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে ভ্রমণ করতে হবে এবং নদী ও ঝর্ণা পথে অবশ্যই লাইফ জ্যাকেট ব্যবহার এবং নিরাপত্তা নিশ্চিত করে ভ্রমণ করতে হবে।

বাংলাদেশ সময়:২৩২৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০২১
এনএইচআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।