bangla news

কিশোরগঞ্জে কিশোরীকে ধর্ষণ-হত্যার দায়ে ভগ্নিপতির মৃত্যুদণ্ড

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-০১ ৪:২৯:৫৭ পিএম
মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি শাহিনকে আদালত থেকে কারাগারে নেওয়া হচ্ছে। ছবি: বাংলানিউজ

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি শাহিনকে আদালত থেকে কারাগারে নেওয়া হচ্ছে। ছবি: বাংলানিউজ

কিশোরগঞ্জ: কিশোরগঞ্জে রোকসানা নামে এক কিশোরিকে ধর্ষণের পর হত্যার দায়ে ধর্ষক ভগ্নিপতি শাহিনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। একইসঙ্গে আসামিকে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

রোববার (০১ ডিসেম্বর) দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক কিরণ শংকর হালদার এ রায় দেন।

এ সময় মামলার আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন। অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় মামলার অপর দুই আসামিকে বেকসুর খালাস দেন আদালত। খালাসপ্রাপ্তরা হলেন-রুবেল ও কাজল।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত শাহিন নিকলী উপজেলার ভাটি বরাটিয়া গ্রামের মানিক মিয়ার ছেলে।

মামলার বিবরণে জানা যায়, কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলার দামপাড়া ইউনিয়নের শেখ নবীনপুর গ্রামের শ্বশুরবাড়িতে ঘরজামাই হিসেবে বসবাস করতেন ফাইজুল ইসলামের মেয়ে সুজেনার স্বামী শাহিন। একই ঘরের অপর কক্ষে থাকতো সুজনার ছোট বোন পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া মাদ্রাসাছাত্রী রোকসানা। ২০১৭ সালের ১১ মে গভীর রাতে শাহিন তার শালিকা রোকসানাকে ঘরের বাইরে নিয়ে ধর্ষণের পর হত্যা করে পালিয়ে যায়। পরে রাতেই বসতঘরের পাশের একটি পাটক্ষেত থেকে রোকসানার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে নিহতের বাবা ফাইজুল ইসলাম বাদী হয়ে ১২ মে শাহিনকে আসামি করে নিকলী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ ২০১৮ সালের ২২ জানুয়ারি তিনজনের নামে আদালতে চার্জশিট (অভিযোগপত্র) দাখিল করেন। শুনানি ও সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে অপরাধ প্রমাণিত হওয়ায় রোববার দুপুরে এ রায় দেন বিচারক। 

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন সরকারি কৌঁসুলি (স্পেশাল পিপি) অ্যাডভোকেট এম এ আফজল ও আসামিপক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক মাখন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০১, ২০১৯
এএটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ধর্ষণ কিশোরগঞ্জ মৃত্যুদণ্ড
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-01 16:29:57