ঢাকা, রবিবার, ১২ আশ্বিন ১৪২৭, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮ সফর ১৪৪২

ইচ্ছেঘুড়ি

পাখি পরিচিতি-১২

নিরীহ পাখি ছাতারে 

ইচ্ছেঘুড়ি ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮১৭ ঘণ্টা, জুলাই ২৪, ২০২০
নিরীহ পাখি ছাতারে  ছাতারে

ছাতারে বাংলাদেশের সব গ্রামেই রয়েছে। খাবারের অভাব নেই, নেই বাসা বাঁধার জায়গার অভাব।

নিরীহ পাখি ও বন্যপ্রাণীদের বন্ধু এই পাখিটি। ইংরেজরা একে বলে সেভেন সিস্টার বা সাতবোন পাখি। এই নামের পেছনে তাদের যুক্তিও রয়েছে। এরা ছোট ছোট দলে থাকে। প্রায় সময়ই চেঁচায়। মনে হয় নিজেদের মধ্যে ঝগড়া করছে।

মাটিতে নেমে এরা ঝোপ-জঙ্গলে ঢুকে শুকনো পাতা উল্টে খাবার সংগ্রহ করে। এতে বন-বাগানের মাটির যেমন উপকার হয়, তেমনি গাছপালার স্বাস্থ্যও ভালো থাকে। ক্ষতিকর পোকামাকড় ও কীটপতঙ্গ খেয়ে পরিবেশ ভালো রাখে। তাই এরা পরিবেশের বন্ধু উপকারী পাখি।

সারা দুনিয়ায় ছাতারে রয়েছে ৩০ রকমের। বাংলাদেশে রয়েছে ৭ প্রজাতির। ছাতারে লম্বায় হয় ২৯ সেন্টিমিটার। চওড়া ধরনের লম্বাটে লেজ। চওড়া পাখা। তবু এরা এক নাগাড়ে বেশিক্ষণ উড়তে পারে না। বেশি উঁচুতেও ওঠে না। মেয়ে ও ছেলে পাখি দেখতে একইরকম।  

শরীরের রং মেটে বাদামি। চোখের মণি লাল। পা, ঠোঁট ও হালকা হলুদাভ। গলার স্বর কর্কশ। কলা, আম বা পেঁপে পাকলে সে আগেভাগেই খবর পায়। সুযোগ পেলে মাছও খায়। ধান ও ভাত খেতে সে উঠোনেও চলে আসে অনেক সময়।

এরা বাসা করে ঝোপঝাড়, পানের বরজ ও গাছের ডালে। ডিম পাড়ে ২-৪টি। ডিমের রং নীল। কোকিল, পাপিয়া, বউ কথা কও পাখির ডিমের সঙ্গে মিল রয়েছে। এসব পাখি সুযোগ পেলে ছাতারের বাসায় তাই ডিম পাড়ে। ১৩-১৫ দিনে বাচ্চা ফোটে। উড়তে শেখে ১৭-১৮ দিনে। দলের সব বড়রাই ছোটদের খাওয়ায়।

তথ্যসূত্র: শরীফ খান, বাংলাদেশের পাখি

বাংলাদেশ সময়: ১৮১৫ ঘণ্টা, জুলাই ২৪, ২০২০
এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa