ঢাকা, বুধবার, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

আন্তর্জাতিক

হাইতিতে ১৭ মিশনারি অপহরণ

মাথাপিছু ১ মিলিয়ন ডলার দিলে তবেই মিলবে মুক্তি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮১৯ ঘণ্টা, অক্টোবর ২০, ২০২১
মাথাপিছু ১ মিলিয়ন ডলার দিলে তবেই মিলবে মুক্তি ছবি: সংগৃহীত

গত সপ্তাহে অপহৃত ১৭ জন মার্কিন ও কানাডিয়ান মিশনারির মুক্তিপণ হিসেবে ১৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার দাবি করেছে অপহরণকারী সন্ত্রাসী গ্রুপটি। এ সংবাদ জানাচ্ছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল।

লিজট কুইটেল, হাইতির বিচারমন্ত্রী এই বিষয়ে পত্রিকাটিকে নিশ্চিত করে বলেন, কুখ্যাত ৪০০ মাওজো গ্যাং জিম্মিপ্রতি ১ মিলিয়ন ডলার চাচ্ছে। তবে কুইটেলের কার্যালয় এনবিসি নিউজের আর্টিকেলে মন্তব্যের অনুরোধের জস্য সঙ্গে সঙ্গে সাড়া দেয়নি।

হইতির রাজধানী পোর্ট-অব-প্রিন্সের পূর্ব শহরতলিতে গ্যান্থিয়ার কমিউন নিয়ন্ত্রণ করে মাওজো গ্যাং, যেখানে ১৬ মার্কিন নাগরিক এবং একজন কানাডিয়ানকে শনিবার একটি অনাথ আশ্রম পরিদর্শনের সময় অপহরণ করা হয়। এদের মধ্যে আছে পাঁচটি শিশু। আর সবচেয়ে কম বয়সী শিশুটি মাত্র ৮ মাসের, জানান কুইটেল।

সোমবার সকালে হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি জেন পিসাকি বলেন, এফবিআই মার্কিনিদের নিরাপত্তার জন্য একটি সমন্বিত প্রচেষ্টায় জড়িত। বাইডেন প্রশাসনের ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র এনবিসি নিউজকে জানিয়েছে, মিশনারিদের মুক্তি নিশ্চিত করতে পররাষ্ট্র দপ্তরকে সহায়তা করার জন্য এজেন্টরা আগের দিন হাইতি এসেছিল।

হাইতির একটি অলাভজনক গোষ্ঠী 'মানবাধিকার বিশ্লেষণ ও গবেষণা কেন্দ্র' বলছে, জানুয়ারির পর থেকে কমপক্ষে ৬২৮টি অপহরণের ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছে, যার মধ্যে ২৯ জন ছিলেন বিদেশি নাগরিক। প্রতিষ্ঠানটি জানায়, জুলাইয়ের তুলনায় সেপ্টেম্বরে ঘটনার সংখ্যা ৩০০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

সোমবার অপহৃত মিশনারিদের খোঁজ যখন তীব্র হয়েছে, হাইতির নাগরিকরা তখন ব্যাপক হিংসা এবং দেশের ধ্বংসপ্রাপ্ত অর্থনীতির প্রতিবাদে পোর্ট-অব-প্রিন্সে একটি সাধারণ ধর্মঘট করে। জুলাই মাসে প্রেসিডেন্ট জোভেনেল মোসকে হত্যার পর  আগস্টে ৭ দশমিক ২ মাত্রার ভূমিকম্পে ২২০০ জন নিহত হয়। দুর্বল অবকাঠামো আরো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর থেকে বিপুল জনগোষ্ঠীর অবস্থা আরো খারাপ হয়েছে।

সশস্ত্র গ্যাংগুলো এখন চিকিৎসা সহায়তা অ্যাক্সেসেরও নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। একজন চিকিৎসক এনবিসি নিউজকে এ কথা বলেন। পোর্ট-অব-প্রিন্সের সেন্ট লুকস হাসপাতালে কভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় তরল অক্সিজেনের প্রবেশ নিশ্চিত করতে ডা. রিচার্ড ফ্রেচেটকে গ্যাংগুলোর সাথে আলোচনা করতে হয়। তিনি বলেন, এটি খুব স্পর্শকাতর একটি বিষয়। কারণ আপনি যদি সফল না হন তবে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে আপনার হাসপাতালে ৪০ জন লোক মারা যাবে। এটা খুবই জটিল একটি বিষয় যখন অক্সিজেন পেতে আপনাকে একটি সশস্ত্র গ্যাং-এর সঙ্গে আপস করতে হয়। পোর্ট-অব-প্রিন্স থেকে ফোনে বলেন তিনি।

হাইতিতে অপহৃত মিশনারিদের স্পন্সর সংগঠন ক্রিশ্চিয়ান এইড মিনিস্ট্রি ওই ১৭ জনের জন্য সবাইকে প্রার্থনা করার অনুরোধ জানায়।
সূত্র : এনবিসি নিউজ

বাংলােদশ সময়: ০৮১৬ ঘণ্টা, অক্টোবর ২০, ২০২১
আরএ 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa