ঢাকা, সোমবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২০ মে ২০২৪, ১১ জিলকদ ১৪৪৫

বিনোদন

মঞ্চে আসছে সাধনার ‘কালচৌতিশা’

বিনোদন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৫৩৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৬
মঞ্চে আসছে সাধনার ‘কালচৌতিশা’ দৃশ্য: ‘কালচৌতিশা’

উপমহাদেশীয় সংস্কৃতি প্রসার কেন্দ্র সাধনার প্রযোজনায় তৈরি হলো এই সময়ের ছন্দভাষার নাটক ‘কালচৌতিশা’। মঙ্গলবার (২০ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাতটায় ঢাকার সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় এর উদ্বোধনী মঞ্চায়ন হবে।

উপমহাদেশীয় সংস্কৃতি প্রসার কেন্দ্র সাধনার প্রযোজনায় তৈরি হলো এই সময়ের ছন্দভাষার নাটক ‘কালচৌতিশা’। মঙ্গলবার (২০ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা সাতটায় ঢাকার সেগুনবাগিচায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় এর উদ্বোধনী মঞ্চায়ন হবে।

নৃত্যশিল্পী লুবনা মারিয়ামের শিল্প নির্দেশনায় সাতটি দৃশ্যে বিভক্ত এ নাটকের প্রধান দুই চরিত্র আবাবিল ও চর্যার ভ‚মিকায় অভিনয় করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক আশিক রহমান লিয়ন ও প্রভাষক কাজী তামান্না হক সিগমা।

নাটকটি লিখেছেন একই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক শাহমান মৈশান। তিনি বলেন, “বর্তমান সময়ের করাল থাবায় বিদীর্ণ ব্যক্তির বিচ্ছেদ আর পলায়নপরতার পরও আমাদের অন্য এক জীবনের স্বপ্ন থাকে। সেই স্বপ্নের বয়ান ‘কালচৌতিশা’। ফলে বর্তমান সময়, ব্যক্তি ও পৃথিবীর তদন্তযোগ্য জীবনের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে আমাদের ব্যর্থ সময়ের হৃদয় থেকে আশা ও স্বপ্নকল্প উত্তোলন করে এই নাটক। ”

‘কালচৌতিশা’ নির্দেশনা দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটার অ্যান্ড পারফরম্যান্স স্টাডিজ বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী রিয়াজ মাহমুদ। তার ভাষ্য, ‘এটি হলো সন্ত্রস্ত সময়ের ব্যাকরণ। এ সময়ের থাবা ব্যক্তির একান্ত ভুবনে কী অভিঘাত সৃষ্টি করে সেটি উপলব্ধির সুযোগ ঘটিয়ে দেবে নাটকটি। পুঁজিবাদী বিশ্বব্যবস্থায় নারী ও পুরুষের লিগ্যাল ও স্পিরিচুয়াল সম্পর্কের মানচিত্র এবং ধনবাদী রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক ব্যবস্থা দিয়ে তাড়িত ব্যক্তি ও একগুচ্ছ ব্যক্তির তোলপাড় করা মনোজগতের দীর্ণ চিত্রও  তুলে ধরা হয়েছে এতে। ’

দৃশ্য: ‘কালচৌতিশা’বিভিন্ন চরিত্রে আরও অভিনয় করবেন কামরুল ইসলাম মারুফ, নাজমুল হুদা শাকির, তানভীর নাহিদ খান, শাহারুল ইসলাম কাজল, হাফিজুল ইসলাম উজ্জ্বল, আফজাল কবীর, শাকিলা সিমকি, অমিত চৌধুরী, শাম্মি আক্তার প্রমুখ। এ নাটকে ড্রামাতুর্গ হিসেবে কাজ করেছেন শান্তনু হালদার, কোরিওগ্রাফিতে অমিত চৌধুরী, সংগীত পরিকল্পনা ও প্রয়োগে নির্ঝর চৌধুরী, রোকন ইমন ও মাহমুদুল হাসান প্রধান এবং মারুফ রায়হান।

বাংলাদেশ সময়: ১১৩১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৬
জেএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।