ঢাকা, শনিবার, ১ কার্তিক ১৪২৮, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

১০ লাখ টাকাসহ ক্লিফটন গ্রুপের পিয়ন ও তার সহযোগী আটক

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১
১০ লাখ টাকাসহ ক্লিফটন গ্রুপের পিয়ন ও তার সহযোগী আটক উদ্ধার করা টাকাসহ আসামিরা।

চট্টগ্রাম: ক্লিফটন গ্রুপের আত্মসাৎ হওয়া ১০ লাখ টাকাসহ পিয়ন রিপন ও তার বন্ধু রেল কর্মচারী সেলিমকে গ্রেফতার করেছে কোতোয়ালী থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) রাতে বাংলানিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন।

 

চার দিন আগে ক্লিফটন গ্রুপের ওই কর্মচারীকে গ্রেফতারের পর গত বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাতে অভিযান চালিয়ে তার বন্ধুকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার দুইজন হলেন- আব্দুর রহিম রিপন (৩১) এবং মো. সেলিম (৩৫)। এদের মধ্যে রিপন নগরের জুবিলি রোডে ক্লিফটন গ্রুপের প্রধান কার্যালয়ে অফিস সহকারী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার বাড়ি সিলেটে। বাসা চট্টগ্রাম নগরের ডবলমুরিং থানার মতিয়ার পুল এলাকায়। সেলিমের বাসা নগরের টাইগার পাস রেলওয়ে কলোনিতে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) ইকবাল হোসেন ভূঁইয়া বাংলানিউজকে বলেন, পিয়ন আব্দুল রহিম ওরফে রিপন গত ১২ ও ১৩ সেপ্টেম্বর আত্মগোপনে চলে যায়। একপর্যায়ে রিপন নিজেই তার বাসায় গিয়ে পরিবারের লোকজনের সঙ্গে দেখা করে এবং শারীরিকভাবে অসুস্থ ও মাথায় আঘাত পাওয়ার অভিনয় করেন। তার এ অবস্থা দেখে পরিবারের লোকজন রিপনকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। চমেক হাসপাতালে পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে ভর্তি করাতে বলা হলে রিপনের পরিবারের লোকজন উন্নত চিকিৎসার জন্য ন্যাশনাল হাসপাতালে নিয়ে যায়।  পুলিশ চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে জানতে পারেন রিপনের শারীরিক অবস্থা ভালো। পরে হাসপাতাল থেকে তাকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে। জিজ্ঞাসাবাদে রিপন জানায়, ১২ সেপ্টেম্বর ১০ লাখ টাকা উত্তোলনের পর তা জমা দিতে তিনি নূপুর মার্কেটস্থ স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকে যান। নূপুর মার্কেটের সামনে ডিবি পরিচয়ধারী ২ জন ব্যক্তি তার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট আছে বলে জোরপূর্বক একটি সিএনজিতে তুলে নেয়।

ব্যাংক থেকে তোলা নগদ ১০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করার কথা স্বীকার করে নেয়। পরদিন তাকে আদালতের মাধ্যমে রিমান্ডে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করলে টাইগারপাস রেলওয়ে কলোনি এলাকায় তার বন্ধু মো. সেলিমের যোগসাজশে এ ঘটনা ঘটানোর কথা জানায়। তার কাছেই আত্মসাৎ করা ১০ লাখ টাকা, মানিব্যাগ ও মোবাইল ভর্তি একটি ব্যাগ রাখে রিপন। পরে ১৬ সেপ্টেম্বর রেলওয়ে কলোনি থেকে টাকা, মানি ব্যাগ ও মোবাইল জব্দের পাশাপাশি সহযোগী সেলিমকেও গ্রেফতার করে পুলিশ।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন বাংলানিউজকে বলেন, ক্লিপটন গ্রুপের পিয়ন রিপন দীর্ঘদিনের কাজের বিশ্বস্ততার সুযোগকে কাজে লাগাতে এই টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটিয়েছে। মূলত পিয়নের চাকরির পাশাপাশি রাজীব নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে দীর্ঘদিন আগে অংশীদারে গ্লাসের ব্যবসায় ১০ লাখ টাকার ক্ষতি পুষিয়ে নিতেই কাল্পনিক ছিনতাইয়ের কাহিনি তৈরি করে।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৯ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১
এমআই/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa