ঢাকা, মঙ্গলবার, ২ বৈশাখ ১৪৩১, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫

বছরজুড়ে দেশ ঘুরে

রবির ছোঁয়ায় মন ভরে যায় কুঠিবাড়িতে

রবি ঠাকুরের স্মৃতিধন্য কুঠিবাড়ি, কাছারি বাড়ি, বকুলগাছ, ষোল বেহারার পালকি, ‍হাত পালকি, অর্ধচন্দ্রাকৃতির বসার বেঞ্চি, শান্ত দীঘিতে

কিংবদন্তি কাঙাল হরিনাথের ভিটি হতে পারে তীর্থভূমি

‘গ্রামবার্ত্তা প্রকাশিকা’ বাংলায় সাংবাদিকতাচর্চার অন্যতম ভিত্তি। যার স্লোগান ছিল ‘গুণালোকপ্রদা দোষ

কক্সবাজার সৈকতে এক্সাইটিং প্যারাসেইলিং

মিনিট পাঁচেকে সাগরের দুই কিলোমিটার এলাকাজুড়ে উড়লেন পাখির মতো। নেমেও এলেন শুরুর ধাক্কা সামলে দারুণভাবে। নেমে শুধু একটু হাফ ছেড়ে

মারমেইডের সফলতার পেছনের গল্প

পর্যটন বিষয়ক প্রভাবশালী ওয়েবসাইট ‘ট্রিপ অ্যাডভাইজর’ দিয়েছে ‘এক্সেলেন্স’ সনদ। ‘লোনলি প্লানেটে’ও সেরাদের তালিকায় স্থান

অতিথি আপ্যায়নের মারমেইড স্টাইল

চারপাশ আলোকিত করছে, কিন্তু কোনোভাবেই চোখের জন্য সে আলো বিড়ম্বনার নয়। বরং ভিন্ন রকম ভালোলাগার আবেশে জুড়িয়ে যায় প্রাণ। রিসোর্টে

বাঁশের ভেতর চুঙ্গাপিঠা

শ্রীমঙ্গল (মৌলভীবাজার) ঘুরে: ঢলু বাঁশের লম্বা সরু চোঙ্গায় বিন্নি চাল। সঙ্গে দুধ, চিনি, নারকেল, চালের গুঁড়া। নাড়ার আগুনে বাঁশের ভেতর

পৌষের রোদে ডালের বড়ি

পেছনে সরষে ক্ষেতের অবারিত হলুদে জমে থাকা শিশির কণায় নরম রোদের ঝিলিক। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ওই নরম রোদের তেজ যতো বাড়বে, ততো তাড়াতাড়ি

গাজী পীরের চম্পাবতী!

ভৌগলিক অবস্থান, পুঁথি সাহিত্য আর ইতিহাসের খোলা পাতা অনুযায়ী, বেতনা নদীর দক্ষিণ তীরে এই স্থানটার নাম লাবসা। এখানেই বসবাস করতেন গাজী

এ বসন্তেও ফুল ফুটবে ৫৫০ বছরের মাধবীলতায়

মাধবীলতা আর তমালে কিসের আকর্ষণ আর কেনই বা তা ‘সিদ্ধ’ সে গল্পে (আসলে গল্প নয়, সত্যি) যাওয়ার আগে ঠাকুর হরিদাস সম্পর্কে অন্তত কিছু কথা

মানিক পীরের প্রাচীন দরগায়  

কিন্তু এইখানে দু’টি পড়ো পড়ো ইমারতকেও বলা হচ্ছে সেই মানিক পীরেরই দরগা। এখান থেকে মাত্র ১ কিলোমিটার দূরে এই দেবহাটায়ই বনবিবির

যমুনার মতো হারিয়ে গেছে গোপালপুর গোবিন্দ মন্দিরের জৌলুস

মন্দির থেকে পূব দিকে নেমে যাওয়া কয়েক সিঁড়ি এখনও মিলিয়ে যায়নি। সিঁড়িতে দাঁড়িয়ে আঙুল বর‍াবর খুব বেশি দূর চোখ এগুলো না- বাড়িতে আটকে

তিন লক্ষবার হরিনাম জপ না করে খেতেন না হরিদাস

আশ্রমের একটি জায়গায় বসে তিনি তিনলক্ষ বার হরিনাম জপ করতেন। সে কারণেই মর্ত্যলোকে তিনি হরিদাস নাম ধারণ করলেন। ভক্তরা বলেন- ঠাকুর

বিশ্বাসের বটে বনবিবির বাস

ডালে ডালে যার আগাছা-পরগাছার বসবাস। একখানে তো রীতিমতো একটা খেজুর গাছই দঁড়িয়ে গেছে ঝুলের ওপর। আর গুঁড়ির কোটর থেকে অনবরত নিজেদের

লাল টেরাকোটার মসজিদে মেলে বাসনার ধন

এভাবে বলছিলেন, শেখ জাফর উল্লাহ। এক যুগের বেশি সময় তিনি পাউখালী প্রবাজপুর শাহী জামে মসজিদে ক্যাশিয়ারের দায়িত্ব পালন করছেন।

মানুষ দেবী মানুষ দেবতা

হোক হিন্দু, হোক মুসলিম, অথবা হোক খ্রিস্টান বা অন্য কোনো ধর্মমতের মানুষ, সুন্দরবনের সীমানা ছোঁয়ার সঙ্গে সঙ্গে বনজীবীরা নিজেদের তুলে

সেকেন্দার ডাক্তারের বাড়িই একখণ্ড সুন্দরবন

অনেকটা আবিষ্কারের নেশায় সুন্দরবনে য‍াওয়া শুরু করেন পল্লী চিকিৎসক ডা. জি এম সেকেন্দার হোসেন। বৈঠা টেনে বুড়ি গোয়ালিনী থেকে শরণখোলা

প্রতাপশালী নৌ দুর্গের চাই সংস্কার-সংরক্ষণ

স্থানীয় মানুষ এ দুর্গ সম্পর্কে জানা তো দূরে থাক, বাংলানিউজের ‘বছরজুড়ে দেশ ঘুরে- পর্যটনে সুন্দরবন’ টিমকে জায়গামতো চিনে যেতেই

আহা, লাল-সাদা-গোলাপি-বেগুনি গ্লাডিওলাস!

সূর্য তখনও দিগন্তে হারিয়ে যায়নি। দিগন্তের খেজুর গাছের মাথা ছুঁই ছুঁই করছে। তড়িঘড়ি করে মো. আবু হানিফ তখন ক্ষেতের আইল একটু ভেঙে পানি

হাওয়া হয়ে গেছে যিশু আর চণ্ড

অথচ এ নদীরই উজানে ধুমঘাটে রাজধানী গড়েছিলেন যশোরের মহারাজা প্রতাপাদিত্য। এর পশ্চিম তীর ঘেঁষে গড়ে উঠেছিলো ঐতিহাসিক জনপদ ঈশ্বরীপুর।

ডিসেম্বর অন যশোর রোড

যশোর থেকে বেনাপোল। সবুজের বুক চিরে এগিয়ে চলেছে একটি সড়ক। দু’পাশে ইতিহাসের সাক্ষী হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছে শতাব্দী প্রাচীন গাছগুলো।

পুরোনো সংবাদ গুলো দেখতে এখানে ক্লিক করুন

এই বিভাগের সর্বাধিক জনপ্রিয়