ঢাকা, রবিবার, ৯ মাঘ ১৪২৮, ২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ফিচার

ময়মনসিংহের ৪ উপজেলা মুক্ত দিবস ৯ ডিসেম্বর

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯৩৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৯, ২০২১
ময়মনসিংহের ৪ উপজেলা মুক্ত দিবস ৯ ডিসেম্বর

ময়মনসিংহ: ময়মনসিংহের ত্রিশাল, ফুলপুর, ঈশ্বরগঞ্জ ও গফরগাঁও মুক্ত দিবস ০৯ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এ দিনে বীর মুক্তিযোদ্ধারা এসব উপজেলা থেকে পাকিস্তানি বাহিনীকে বিতাড়িত করে নিজ নিজ উপজেলাকে মুক্ত করেন।

এদিন ১১নং সেক্টরের মেজর আফসর বাহিনীর এফজে সেক্টরের সাব-সেক্টর কমান্ডার আ. বারী মাস্টারের নেতৃত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধারা ০৮ ডিসেম্বর রাতে ত্রিশাল থানা আক্রমণ করেন। গভীর রাতে ত্রিশাল থানাকে ঘিরে পাকিস্তানি বাহিনীর সঙ্গে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কঠিন যুদ্ধ হয়। এ যুদ্ধে পরাজিত হয়ে পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের দোসররা ০৯ ডিসেম্বর ভোরে ত্রিশাল থানা ছেড়ে পালিয়ে যায়।

গফরগাঁওয়ের মশাখালী স্টেশনের দক্ষিণে শীলা নদের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে এ উপজেলায় সর্বশেষ যুদ্ধ হয় ০৫ ডিসেম্বর। এখানে বীর মুক্তিযোদ্ধারা জয়ী হলে পাকিস্তানি বাহিনী পিছু হটে। তখন ইকবাল ই কামালের নেতৃত্বে কামাল কোম্পানি ও আফসার বাহিনীর  বীর মুক্তিযোদ্ধারা তাদের ধাওয়া করে গফরগাঁও সদরসহ উপজেলার সমস্ত এলাকা হানাদার মুক্ত করেন।

০৯ ডিসেম্বর গফরগাঁওয়ের আকাশে উদিত হয় রক্তিম লাল সূর্য। ওড়ানো হয় বাংলাদেশের পতাকা। হানাদার মুক্ত হয় গফরগাঁও।  

১৯৭১ সালের এ দিনে স্বাধীনতাবিরোধী রাজাকার আলবদর ও আলশামস তথা পাকিস্তানি বাহিনীর কবল থেকে মুক্ত হয় ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলাও।

ফুলপুর উপজেলায় শেষ যুদ্ধ হয় ০৭ ডিসেম্বর। সেদিন সীমান্তবর্তী হালুয়াঘাট উপজেলা থেকে হানাদার বাহিনী পিছু হটার পথে, মধ্যনগরে মিত্রবাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধে তিনজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ও দুইজন মিত্রবাহিনীর সদস্য শহীদ হন। মধ্যনগরের এ যুদ্ধেই পতন ঘটে হানাদার বাহিনীর। ০৯ ডিসেম্বর পাকিস্তানি বাহিনী হয় ফুলপুর।

বাংলাদেশ সময়: ০৯২৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৯, ২০২১
এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa