ঢাকা, বুধবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২২ মে ২০২৪, ১৩ জিলকদ ১৪৪৫

ক্রিকেট

পার্থে পেরে উঠছে না ভারত

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮
পার্থে পেরে উঠছে না ভারত ছবি: সংগৃহীত

অ্যাডিলেড টেস্ট ৩১ রানে জিতে আগেই এগিয়ে আছে সফরকারী ভারত। কিন্তু পার্থে যে লক্ষ্য তারা পেয়েছে তা পার হতে এক প্রকার রেকর্ডই করতে হবে বিরাট কোহলিদের। 

২০১৪ সালের পর চতুর্থ ইনিংসে ২০০ রানের বেশি তাড়া করে জয় পাওয়ার রেকর্ড আছে কেবল ৬টি। পার্থে সফরকারী ভারতের সামনে স্বাগতিকরা লক্ষ্য রেখেছে ২৮৭ রানের।

তাই ৪ ম্যাচের টেস্ট সিরিজের দ্বিতীয়টি জিততে হলে রেকর্ড গড়তে হবে কোহলির ভারতের।  

লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে চতুর্থ দিন শেষে ১১২ রানেই ভারত হারিয়ে বসে আছে ৫ উইকেট। অপরাজিত আছেন হানুমা বিহারি (২৪) ও ঋশভ পান্ত (৯)। এই ম্যাচ জিততে হলে ভারতের করতে হবে আরও ১৭৫ রান। হাতে আছে একদিন। তবে উপরের দিকের বেশিরভার ব্যাটসম্যানই ফিরে যাওয়ায় ভারতের জন্য এক প্রকার পাহাড় ডিঙ্গানোর মতোই কঠিন হবে।

তৃতীয় দিন ব্যাটিংয়ে নেমে ইনিংসের চতুর্থ বলেই সাজঘরে ফেরেন লোকেশ রাহুল। তাকে শূন্য রানেই ফিরিয়ে দেন মিশেল স্টার্ক। দলীয় ১৩ রানের মাথায় নাথান লায়নের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন আরেক ওপেনার মুরালি বিজয়ও।

দলীয় ৪৮ রানের মাথায় লায়নের বলে উসমান খাজাকে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন ভারত অধিনায়ক কোহলি। আগের ইনিংসে সেঞ্চুরি করলেও এই ইনিংসে মাত্র ১৭ রানেই ফিরে যান তিনি। চেতেশ্বরা পুজারাও ৪ রানে জস হ্যাজেলউডের শিকার হয়ে মাঠ ছাড়েন। ব্যক্তিগত ৩০ রানে আউট হন রাহানে।

ভারতের হয়ে বল হাতে ৬ উইকেট নেন শামি আর এর মাধ্যমে ভারতের হয়ে টেস্টে এক বছরে সবচেয়ে বেশি উইকেটের মালিকও হন তিনি। বছরের শুরুতে দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে শুরু করে চলতি অস্ট্রেলিয়া সফর পর্যন্ত ১০ টেস্টের ১৯ ইনিংসে শামী পেয়েছেন ৪২ উইকেট। যা নির্দিষ্ট কোনো বছরে ভারতের পক্ষে সর্বোচ্চ উইকেট শিকারের রেকর্ড।

এর আগে ২০০৬ সালে ৯ ম্যাচের ১৭ ইনিংসে ৪১ উইকেট নিয়ে এই রেকর্ডের মালিক ছিলেন কিংবদন্তী লেগস্পিনার অনিল কুম্বলে। এছাড়া জসপ্রিত বুমরাহ ৩টি ও ইশান্ত শর্মা নেন ১টি উইকেট।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮
এমকেএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।