ঢাকা, বুধবার, ৮ আশ্বিন ১৪২৭, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪ সফর ১৪৪২

জলবায়ু ও পরিবেশ

কক্সবাজারে ৩০২ মিলিমিটার বর্ষণ, পাহাড় ধসের শঙ্কা বাড়ল

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০২৯ ঘণ্টা, জুন ১৮, ২০২০
কক্সবাজারে ৩০২ মিলিমিটার বর্ষণ, পাহাড় ধসের শঙ্কা বাড়ল

ঢাকা: পাহাড় ধসের শঙ্কাকে আরও বাড়িয়ে দিয়ে কক্সবাজারে মৌসুমের সর্বোচ্চ বৃষ্টি ঝড়িয়ে গেল প্রকৃতি। দক্ষিণ-পূর্বের এ জেলাটিতে ৩০২ মিলিমিটার বর্ষণ হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদফতর ৮৯ মিলিমিটার বর্ষণ হলেই অতিভারী বর্ষণ হিসেবে আখ্যা দেয়। এ হিসেবে খুবই প্রবল বর্ষণ হয়েছে কক্সবাজারে।

বুধবার (১৭ জুন) রাতে এক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বৃষ্টিপাতের এ প্রবণতা শুক্রবার (১৯ জুন) পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। সক্রিয় মৌসুমী বায়ু এবং উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় গভীর সঞ্চালণশীল মেঘমালা তৈরি হওয়ার কারণে বৃহস্পতিবার (১৮ জুন) নাগাদ চট্টগ্রাম, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের কোথাও কোথাও ভারী (৪৪-৮৮ মি.মি.) থেকে অতিভারী (৮৯ মি.মি.) বর্ষণ হতে পারে। ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণের কারণে চট্টগ্রাম বিভাগের পাহাড়ি অঞ্চলের কোথাও কোথাও ভূমিধ্স হতে পারে।

ভারী বর্ষণের কারণে পাহাড় ধসে অতীতে বেশ কয়েকবার চট্টগ্রাম বিভাগে প্রাণহানীর ঘটনা ঘটেছে।

আবহাওয়াবিদ মো. বজলুর রশিদ জানান, সাধারণ বৃষ্টিপাত কয়েকদিন ধরে স্থায়ী হলে এবং পরবর্তীতে ভারী বর্ষণ হলে পাহাড় ধসের শঙ্কা বেড়ে যায়। কয়েকদিন ধরেই চট্টগ্রামে বর্ষণ হচ্ছে। বর্তমানে দেখা দিয়েছে ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণের প্রবণতা। তাই ভূমি ধসের সতর্কতা দেওয়া হয়েছে।

অন্য এক পূর্বাভাসে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, মৌসুমী বায়ুর অক্ষ উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। আর বর্ষা বাংলাদেশের উপর সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে প্রবল অবস্থায় রয়েছে।

তাই খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম, সিলেট, ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা অথবা ঝড়াে হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারী ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

আগামী ২৪ ঘণ্টায় দিন ও রাতের তাপমাত্রা বর্ষণের ফলে ১ থেকে ২ ডিগ্রি কমে যাবে। ঢাকায় এ সময় দক্ষিণ/দক্ষিণ-পশ্চিম দিক থেকে ঘণ্টায় বাতাসের একটানা গতিবেগ থাকবে ১০ থেকে কিলোমিটার।

এদিকে ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক এক সামুদ্রিক সতর্কবার্তায় জানিয়েছেন, উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় গভীর সঞ্চালণশীল মেঘমালা তৈরি হচ্ছে। যার প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়াে হাওয়া বয়ে যেতে পারে। তাই চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে ৩ (তিন) নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। আর পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। সেই সঙ্গে নিষেধ করা হয়েছে গভীর সাগরে বিচরণ করার ক্ষেত্রে।

অন্যদিকে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে বিধায় দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোকেও এক নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

বুধবার দেশে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ঈশ্বরদী ও তেঁতুলিয়ায়, ৩২ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

বাংলাদেশ সময়: ০০২৬ ঘণ্টা, জুন ১৮, ২০২০
ইইউডি/আরআইএস/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa