bangla news

মাছ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে ত্রিপুরা: বিপ্লব

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-১৩ ৪:২৫:৪২ পিএম
বক্তব্য রাখছেন ত্রিপুরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। ছবি: বাংলানিউজ

বক্তব্য রাখছেন ত্রিপুরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। ছবি: বাংলানিউজ

আগরতলা (ত্রিপুরা): রাজধানী আগতলায় ত্রিপুরা রাজ্যভিত্তিক মৎস্যমেলা শুরু হয়েছে। শুক্রবার (১৩ ডিসেম্বর) রাজধানীর হাঁপানিয়ায় আন্তর্জাতিক মেলা প্রাঙ্গণে আয়োজিত তিন দিনব্যাপী এ মেলার উদ্বোধন করেন ত্রিপুরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। 

তিনি বলেন, কোনো রাজ্যকে উন্নতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে কুটির শিল্প ও রাজ্যের বেশির ভাগ মানুষ যেসব কাজে দক্ষ সেসব কাজে সরকারকে উৎসাহ দিতে হবে। ত্রিপুরা রাজ্যে যে পরিমাণ মাছ উৎপাদিত হয় তার বেশির ভাগ উৎপাদন করেন জনজাতি অংশের মানুষ। বর্তমান সরকার মাছ উৎপাদনে আরও বেশি গুরুত্ব দিচ্ছে। রাজ্যের মাছের চাহিদা মেটানোর জন্য প্রতিবছর ৫শ’ কোটি রুপির মাছ আমদানি করতে হয়। সেইসঙ্গে মাছের খাবার আমদানি করার জন্য আরও ২শ’ কোটি রুপি রফতানি হয়। সবমিলিয়ে বছরে ৭শ’ কোটি রুপি বাইরে চলে যায়। 

বিপ্লব কুমার দেব বলেন, রাজ্য সরকার আগামী তিন বছরের মধ্যে মাছে রাজ্যকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করার কাজ করছে।

এসময় অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- ত্রিপুরা সরকারের মৎস্য দফতরের মন্ত্রী এন সি দেববর্মা, স্থানীয় বিধায়ক মিমি মজুমদার, ত্রিপুরা সরকারের অতিরিক্ত মুখ্য সচিব এস কে রাকেশ, ইম্ফল শহরের কেন্দ্রীয় কৃষি বিশ্ব বিদ্যালয়ের আচার্য তথা সরকারের যোজনা পর্ষদের সদস্য ড. এস আয়াপ্পান, আগরতলার মৎস্য কলেজের ডিন ড. পি কে পান্ডে, মৎস্য দফতরের অধিকর্তা ডি কে চাকমা প্রমুখ। 

অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিরা রাজ্যে মাছ চাষের ক্ষেত্রে যারা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করছেন তাদের সম্মাননা দেওয়া হয়। 

ত্রিপুরা সরকারের মৎস্য দফতর ও হায়দ্রাবাদের ন্যাশনাল ফিশারিজ ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের যৌথ উদ্যোগে তিন দিনব্যাপী এ মেলা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মেলায় ত্রিপুরা সরকারের মৎস্য দফতর, প্রাণিসম্পদ বিকাশ দফতর, কৃষি ও কৃষক কল্যাণ দফতর, ফিশারি কলেজসহ বেসরকারি বিভিন্ন মৎস্য চাষি এবং মাছের জন্য তৈরি প্রক্রিয়াজাত খাবারের স্টল রয়েছে। এতে বিভিন্ন স্টলে জীবন্ত মাছ ও মাছের তৈরি বিভিন্ন খাবার সামগ্রী বিক্রি করা হচ্ছে। 

মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর মুখ্যমন্ত্রীসহ অতিথিরা স্টলগুলো ঘুরে দেখেন। 

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৯
এসসিএন/আরবি/

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-13 16:25:42