ঢাকা, সোমবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ২০ মে ২০১৯
bangla news

মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে বিজেপি ক্ষমতায়: পিযুষ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৩-১১ ৪:৪০:১১ পিএম
ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেসের সহ সভাপতি পিযুষ বিশ্বাস, ছবি: বাংলানিউজ

ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেসের সহ সভাপতি পিযুষ বিশ্বাস, ছবি: বাংলানিউজ

আগরতলা (ত্রিপুরা): ‘ক্ষমতাসীন বিজেপি গরীবের নয়, ধনীদের সরকার। ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদী ভারতবাসীকে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে দেশের ক্ষমতায় এসেছিলেন। একইভাবে ২০১৮ সালে ত্রিপুরাবাসীকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে রাজ্যের ক্ষমতায় আসা হয়। মাত্র এক বছরে ত্রিপুরা রাজ্যের মানুষ বিজেপি যে মিথ্যাবাদী, তা বুঝতে পেরেছে। তাই দলে দলে মানুষ আবার কংগ্রেসে ফিরে আসছে।’

রোববার (১০ মার্চ) সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন ডেকে এ মন্তব্য করেন ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেসের সহ সভাপতি পিযুষ বিশ্বাস।

এসময় তিনি বলেন, ২০১৮ সালে ত্রিপুরা রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি যে ইশতেহার দিয়েছিল, ভিশন ডকুমেন্ট নাম ছিল তার। কিন্তু আদতে ছিল এটি ‘ভুয়া ডকুমেন্ট’।

তিনি বলেন, বিজেপির ভিশন ডকুমেন্টে বলা হয়েছিল- এখানে দেওয়া প্রতিশ্রুতি সরকার গঠনের ১০০ দিনের মধ্যে পূরণ করা হবে। কিন্তু বাস্তবে কি হয়েছে, তা মানুষ জানতে চাইছেন।

‘ঘরে ঘরে চাকরি দেওয়া হবে বলা হয়েছিল, কিন্তু ৫০ হাজার সরকারি পদ খালি থাকলেও একটিও পূরণ করা হয়নি। সরকারি কর্মচারীদের সপ্তম বেতন কমিশন দেওয়া হবে বলা হলেও বাস্তবে তা হয়নি। প্রতিটি যুবককে স্মার্ট ফোন দেওয়ার কথা থাকলেও এখন বলা হচ্ছে একাংশ শিক্ষিত যুবকদের স্মার্ট ফোন দেওয়া হবে। সামাজিক ভাতা দুই হাজার রুপি করা হবে বললেও এখন তা বাড়িয়ে মাত্র এক হাজার রুপি করা হয়েছে, তাও আবার অনেক মানুষের নাম ভাতা প্রকল্প থেকে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে।’ উল্লেক করেন পিযুষ বিশ্বাস।

পিযুষ বিশ্বাস বলেন, বিজেপি মাত্র ১ দশমিক ৫ শতাংশ থেকে হঠাৎ করে গত বিধানসভা নির্বাচনে ত্রিপুরা রাজ্যে প্রায় ৫০ শতাংশ ভোট পেয়েছে। তা কংগ্রেসের ভোটেই হয়েছে। এই ভোট আবার কংগ্রেসে চলে আসছে। তাই আগামী নির্বাচনে বিজেপির ভোট ২ শতাংশের নিচে নেমে আসবে।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে ত্রিপুরা রাজ্যে কংগ্রেসের লড়াই হবে বিজেপি এবং সিপিআই দলের সঙ্গে সমানভাবে। নির্বাচনে কংগ্রেস ও সিপিআই জোট হওয়ার কোনো প্রশ্নই উঠে না।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৬ ঘণ্টা, মার্চ ১১, ২০১৯
এসসিএন/টিএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   আগরতলা
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14