[x]
[x]
ঢাকা, রবিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৫, ২১ অক্টোবর ২০১৮
bangla news

শীতকালীন সবজি চাষে লাভবান ত্রিপুরার চাষিরা

সুদীপ চন্দ্র নাথ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০১-১০ ৫:৫১:১১ পিএম
খিরাইয়ের আবাদ হয়েছে বেশ ভালোই

খিরাইয়ের আবাদ হয়েছে বেশ ভালোই

আগরতলা: শীতকালীন সবজি চাষে এবছর বেশ লাভবান হয়েছেন ত্রিপুরার খোয়াই জেলার অন্তর্গত কল্যাণপুর ব্লক এলাকার দ্বারিকাপুর গাওসভার বাংলা হাওর গ্রামের কৃষকরা।

বাংলা হাওর গ্রামের মাঠ থেকে এরইমধ্যে উঠতে শুরু করেছে শীতকালীন আগাম সবজি। এই সবজি স্থানীয় ব্লকের বিভিন্ন এলাকার চাহিদা মিটিয়েও চলে আসছে রাজধানী আগরতলাসহ রাজ্যে ও বাইরের রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে। এতে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা।

শীতের সূর্যোদয়ের আগে কুয়াশায় ঢাকা ভোরে ঘর থেকে সবজি ক্ষেতে বেরিয়ে পড়েন পুরুষ ও মহিলারা। এ গ্রামে প্রায়  ৭০ পরিবার কৃষক রয়েছেন। তাদের পরিশ্রমে খিরাই, বেগুন, লাউ, শিম, লাল শাক, পালংশাক ছাড়াও নানা জাতীয় রবিশস্য ফলছে।

সবজির মাঠে কর্মরত এসব কৃষকেরা বাংলানিউজকে জানান, আগাম শাক-সবজি চাষে সরকারের সহায়তায় আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন তারা। আগাম এই সবজি সংগ্রহ করতে দূর দূরান্ত থেকে মাঠে পাইকারি ব্যবসায়ীরা চলে আসায় সবজির দামও ভালো পাওয়া যাচ্ছে।

এলাকারই কৃষক প্রেমানন্দ দাস এবছর আধ বিঘা জমিতে খিরাই চাষ করেছেন। ফলন বেশ ভালো হয়েছে জানিয়ে তিনি বাংলানিউজকে বলেন, এরইমধ্যে প্রতি কেজি ৩০ থেকে ২০ রুপি দরে প্রায় ৫শ' কেজি খিরাই বিক্রি করেছি। মাঠ থেকেই কিনে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এসব সবজি।
 
প্রেমানন্দ আরো জানান, পানির অভাবে একটা সময় শীতকালীন আগাম সবজি চাষ করতে সমস্যা হতো। কিন্তু এখন প্রত্যেকের জমিতে মিনি ডিপটিউবয়েল, সাপ্লাইয়ের ব্যবস্থা আছে। গ্রামেই বসানো হয়েছে পাম্প মেশিন। ফলে আর সমস্যায় পড়তে হচ্ছে না তাদেরকে।

অপর কৃষক ক্ষিতীশ দাস জানান, স্থানীয় পঞ্চায়েতের মাধ্যমে কৃষি দপ্তর থেকে সার, বীজ, বালাই নাশকসহ নানা সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন তারা। ফলে ব্যাপকভাবে শীতকালীন সবজি চাষ করতে পারছেন।

বাংলাদেশ সময়: ০৪৪৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১১, ২০১৮
এসসিএন/এসআইজে/জেডএস

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

আগরতলা বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa
cache