ঢাকা, শনিবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৭, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৫ রজব ১৪৪২

বাণিজ্যমেলা

মেলায় দর্শনার্থীদের নজর কাড়ছে কারাপণ্য, বেড়েছে বিক্রি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৫৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২০
মেলায় দর্শনার্থীদের নজর কাড়ছে কারাপণ্য, বেড়েছে বিক্রি কারাপণ্যের স্টল। ছবি: জিএম মুজিবুর

ঢাকা: ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলায় প্রতিবারের মতন এবারও স্টল নিয়েছে বাংলাদেশ জেল। এ স্টলে রয়েছে কারাগারের কয়েদিদের বানানো পণ্যের সমাহার। রয়েছে কাঠের তৈরি সিংহাসন, বেতের তৈরি মোড়া, প্লাস্টিকের মোড়া, কাঠের নৌকা, সুতি তোয়ালে, টি-শার্ট, পাঞ্জাবি, শার্ট, লুঙ্গি, পুঁথির কলমদানিসহ শতাধিক পণ্য। দামও রয়েছে সাধের মধ্যে। দর্শনার্থীরা একবার হলেও স্টলে ঢুঁ-মারছেন।

কারাগারের সাজাপ্রাপ্ত কয়েদিদের বানানো এসব পণ্যগুলোর লাভের অর্ধেক অংশ চলে যাবে তাদের পকেটে। চাইলে লাভের টাকা কয়েদির পরিবারের কাজে লাগাতে পারবেন।

অথবা মুক্তির পর টাকা নিয়ে যেতে পারবেন। কারাপণ্যের স্টল।  ছবি: জিএম মুজিবুররোববার (১২ জানুয়ারি) মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, দোতলা বিশিষ্ট এ স্টলে পণ্যের পসরা সাজানো আছে। নির্দিষ্ট পণ্য কিনলে কম্পিউটারের মাধ্যমে ক্রেতাদের পণ্যের মূল্য রশিদ দেওয়া হচ্ছে। স্টলটিতে কর্মরত সবাই কারাগারের স্টাফ, জেলার কিংবা জেল পুলিশ। সকাল থেকে রাত পর্যন্ত দুই শিফটে ডিউটি করেছেন এসব কর্মকর্তারা।

স্টলটিতে রয়েছে দৃষ্টিনন্দন সিংহাসন। সম্পন্ন কাঠের তৈরি এ সিংহাসন আগতদের নজর কাড়ছে। বড়-ছোট ও মাঝারি আকারের সিংহাসন রয়েছেন এবার। দেশের বিভিন্ন কারাগার থেকে এগুলো আনা হয়েছে। রয়েছে স্পেশাল মোড়া, ঝাড়ু, পুঁথির তৈরি হ্যান্ডব্যাগ, শোবিজসহ নানা পণ্য। দামও রয়েছে সাধ্যের মধ্যে। এ স্টলে ১০০ থেকে চার হাজার টাকার মধ্যে পাবেন এসব পণ্য। এছাড়া প্রথমবারের মতো এসেছে টি-শার্ট, পাঞ্জাবি, শার্ট। এগুলো দামও রয়েছে ক্রেতার সাধ্যের মধ্যে। মেলার এ স্টলে ১৫০ থেকে ৩২০ টাকার মধ্যে পাবেন টি-শার্ট, পাঞ্জাবি, শার্ট ও লুঙ্গি। বাইরের কোনো মার্কেট থেকে অনেক কম মূল্যে এসব পণ্য দেওয়া হচ্ছে বলে জানান সংশ্লিষ্টরা। কারাপণ্য।  ছবি: জিএম মুজিবুরবাচ্চু নামে একজন দর্শনার্থী বাংলানিউজকে বলেন, ওই স্টল থেকে একটি টি-শার্ট নিলাম। দেখে মনে হয়েছে কোয়ালিটি ভালো। দামও কম। মার্কেট থেকে এটা ১৫০ টাকায় পাওয়া যেতো না। ওই স্টল থেকে আমার বন্ধু বেশকিছু পণ্য কিনেছেন। পরে তার কথা মতো ওই স্টল আসা। দামেও কম আছে।

স্টলটির ম্যানেজার ও ডেপুটি জেলার মো. আব্দুল্লাহিল ওয়ারেচ বাংলানিউজকে বলেন, এ বছর আমাদের রেকর্ড পরিমাণ বিক্রি হচ্ছে। প্রথম দিন থেকে অনেক স্টলে বিক্রি না হলেও আমাদের বিক্রি চলছে। তবে, দর্শনার্থীর সাড়া পাওয়ায় নিজেদের কাছেও ভালো লাগছে। এসব পণ্যের লাভের অর্ধেক অংশ যে কয়েদি বানিয়েছেন তিনি পাবেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০২০
ইএআর/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa