ঢাকা, সোমবার, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

এভিয়াট্যুর

বিশ্বকাপের পরে কাতার বাংলাদেশিদের জন্য চ্যালেঞ্জ হবে

মাজেদুল নয়ন, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৯৪৬ ঘণ্টা, মে ২০, ২০১৭
বিশ্বকাপের পরে কাতার বাংলাদেশিদের জন্য চ্যালেঞ্জ হবে কাতারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসহুদ আহমেদ/ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

দোহা, কাতার থেকে: বাংলাদেশ থেকে প্রতি মাসেই গড়ে ৭ থেকে ৮ হাজার মানুষ কাতারে আসছে। ২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপ কেন্দ্র করে ব্যাপকহারে নির্মাণ শ্রমিকের প্রয়োজন দেখা দিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যের এ দেশটিতে। তবে বাংলাদেশ থেকে এখনও অনেক অদক্ষ শ্রমিক আসছে। বিশ্বকাপের পরে এতো শ্রমিকের চাহিদা থাকবে না। তখন অদক্ষ শ্রমিকদের বিষয়টি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে।

শুক্রবার (২০ মে) দিনগত রাতে দোহার হামাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রিজেন্ট এয়ারওয়েজের ঢাকা-দোহা রুটের উদ্বোধনী ফ্লাইটকে অভ্যর্থনা জানানো শেষে বাংলানিউজের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন কাতারে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত আসহুদ আহমেদ।

তিনি বলেন, দক্ষ শ্রমিকের চাহিদা রয়েছে কাতারে।

প্রফেশনাল যেমন ডাক্তার, প্রকৌশলী ও টেকনিক্যাল দক্ষ লোকেরও যথেষ্ট অভাব। রয়েছে দক্ষ নার্সের চাহিদা।
রিজেন্ট এয়ারওয়েজের ঢাকা-দোহা রুটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান/ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমআসহুদ আহমেদ বলেন, এখানে কাজের ধরন ও দক্ষতার ওপর শ্রমিকের আয় নির্ভর করে। এখনও আমাদের শ্রমিকরা দক্ষ নয়। এখানে অদক্ষ লোকেরা বেতন কম পান। এখানে আসা শ্রমিকেরা বিশেষ কোনো বিষয়ে দক্ষ হলে কিংবা ডিপ্লোমা বা কোনো ডিগ্রি থাকলে তাদের বেতন অনেক বেশি হতো। কিন্তু এখন সেটা হচ্ছে না।

তারপরও অনেক শ্রমিকের চাহিদা রয়েছে বলে জানান রাষ্ট্রদূত। গত  মাসে গড়ে ৭ থেকে ৮ হাজার শ্রমিক কাতারে এসেছে বলেও জানান তিনি।

আসহুদ আহমেদ বলেন, সরকারি হিসাব অনুযায়ী, কাতারে তিন লাখ ২০ হাজার বাংলাদেশি শ্রমিক রয়েছেন। এখন ডাক্তারের সংখ্যাও রয়েছে অনেক। প্রকৌশলীরাও ভালো কাজ করছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩৩ ঘণ্টা, মে ২০, ২০১৭
এমএন/ওএইচ/এএ

**
রিজেন্টে দোহায় প্রথম ফ্লাইটে উৎসবের আমেজ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa