ঢাকা, বুধবার, ২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ আগস্ট ২০২২, ১৮ মহররম ১৪৪৪

তারার ফুল

সালতামামি ২০১৪

বারোমাসের ঢালিউড

কামরুজ্জামান মিলু, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৪৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৪, ২০১৪
বারোমাসের ঢালিউড (বাঁ থেকে) ‘হিরো দ্য সুপারস্টার’ ছবিতে শাকিব খান এবং ‘তারকাঁটা’ ছবিতে আরিফিন শুভ ও বিদ্যা সিনহা মিম

দেখতে দেখতে শেষ হয়ে আসছে ২০১৪। তাই হিসাব কষার পালা।

দেশীয় চলচ্চিত্র শিল্পে লাভ-লোকসানের খতিয়ান সারাবছর কেমন ছিলো তা জানা দরকার। গত ১২ মাসে সব মিলিয়ে ৬৮টি ছবি মুক্তি পেয়েছে। পুরনোদের পাশাপাশি নতুনের আবাহনও দেখা গেছে এগুলোতে। তবে নির্মাতাদের মুখ থেকে লোকসানের হতাশাই বেশি বেরিয়ে এসেছে। বছরটিকে পুরোপুরি সফল বলা না গেলেও চলচ্চিত্রাঙ্গন ছিলো আলোচনা-সমালোচনার কেন্দ্রে।

গত চার বছরের মধ্যে ২০১০ সালে ৫৭টি, ২০১১ সালে ৪৮টি, ২০১২ সালে ৫০টি এবং ২০১৩ সালে ৫২ ছবি মুক্তি পেয়েছিলো। এবার সে সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬৭। এর মধ্যে ডিজিটাল প্রযুক্তিতে তৈরি হয়েছে অনেক ছবি। কিন্তু সেগুলো বেশিরভাগই মানহীন বলে মন্তব্য করেছেন সংশ্লিষ্টরা। ছবি মুক্তির সংখ্যা বাড়লেও দর্শক মন জয় করতে না পারায় ব্যবসা বাড়েনি। অনেক ছবি চালিয়ে প্রেক্ষাগৃহ মালিকরা তাদের সপ্তাহের খরচও তুলতে পারেননি। কয়েকটি ছবি দুই-একদিন পর প্রেক্ষাগৃহ থেকে নামিয়ে দেওয়ার নজিরও আছে। আবার কিছু ছবি মুক্তি পেয়েছে নামমাত্র প্রেক্ষাগৃহে।

আগে ৩৫ মিমি ফরম্যাটে ছবি নির্মাণ করে প্রযোজক-পরিবেশকরা প্রদর্শকদের দিতেন। প্রদর্শকরা নিজেদের অর্থে স্থাপিত মেশিন দিয়ে ছবিগুলো প্রদর্শন করতেন। এখন হয়েছে উল্টোটা। বসুন্ধরা স্টার সিনেপ্লেক্স, ব্লকবাস্টার সিনেমাস, মধুমিতা, বলাকা সিনেওয়ার্ল্ড, শ্যামলী সিনেপ্লেক্স এবং সনি ছাড়া দেশের প্রায় ২০০ প্রেক্ষাগৃহে প্রজেক্টরের সাহায্যে ডিজিটাল ছবি প্রদর্শন করতে হয়। এসব প্রজেক্টরের ভাড়া নির্মাতাদেরই গুনতে হয়।

চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত মুক্তিপ্রাপ্ত ছবির তালিকায় রয়েছে ‘কি দারুণ দেখতে’,  ‘দাবাং’, ‘দাগ’, ‘মনের মধ্যে লেখা’, ‘তোমার কাছে ঋণী’, ‘আকাশ কতো দূরে’, ‘অগ্নি’, ‘লোভে পাপ পাপে মৃত্যু’, ‘স্বপ্নছোঁয়া’, ‘প্রেম কি অপরাধ’, ‘জীবনঢুলী’, ‘কুসুমপুরের গল্প’, ‘সীমারেখা’, ‘রাজত্ব’, ‘অনন্তকাল (ফরএভার)’, ‘৭১-এর সংগ্রাম’, ‘অনুক্রোশ’, ‘দবির সাহেবের সংসার’, ‘জোনাকির আলো’, ‘ডেয়ারিং লাভার’, ‘তোকে ভালোবাসতেই হবে’, ‘এক নম্বর আসামি’, ‘মায়ের মমতা’, ‘জান’,  ‘আমি শুধু চেয়েছি তোমায়’, ‘তারকাঁটা’, ‘ফাঁদ’, ‘দুটি মনের পাগলামী’, ‘মোস্ট ওয়েলকাম টু’, ‘আই ডোন্ট কেয়ার’, ‘হিরো দ্য সুপারস্টার’, ‘হানিমুন’, ‘প্রিয়া তুমি সুখী হও’, ‘হেডমাস্টার’, ‘মুক্তি’, ‘কঠিন প্রতিশোধ’, ‘অদৃশ্য শত্রু’, ‘কখনো ভুলে যেও না’, ‘অল্প অল্প প্রেমের গল্প’, ‘আমরা করবো জয়’, ‘আগে যদি জানতাম তুই হবি পর’, ‘লাভ স্টেশন’, ‘তুই শুধু আমার’, ‘সেরা নায়ক’, ‘বৈষম্য’, ‘ভালোবাসতে মন লাগে’, ‘ক্ষোভ’, ‘চার অক্ষরের ভালোবাসা’, ‘বৃহন্নলা’, ‘সেদিন বৃষ্টি ছিল’, ‘সর্বনাশা ইয়াবা’, ‘পিঁপড়াবিদ্যা’, ‘হিটম্যান’, ‘অনেক সাধের ময়না’, ‘স্বপ্ন যে তু্ই’,‘জানে না এ মন’, ‘হরিজন’, ‘কিস্তিমাত’, ‘এক কাপ চা’, ‘প্রেম করবো তোমার সাথে’, ‘অনেক সাধনার পরে’, ‘মেঘমল্লার’, ‘একাত্তরের মা জননী’, ‘হৃদয়ে ৭১’, ‘জিরো থেকে টপ হিরো’, ‘ভালোবাসলে দোষ কি তাতে’। এ ছাড়া ২৬ ডিসেম্বর মুক্তি পাচ্ছে ‘দেশা: দ্য লিডার’ ও ‘ক্ষনিকের ভালোবাসা’।

মৌলিক গল্পের ছবির অভাব ছিলো লক্ষণীয়। বেশিরভাগ ছবির বিরুদ্ধে নকলের অভিযোগ উঠেছে প্রকটভাবে। গল্পের মানের কারণেই তারকা উপস্থিতি থাকলেও এক বা দুই সপ্তাহের বেশি কোনো ছবিই চলেনি।  

ব্যবসাসফল ছবির সংখ্যা কম হলেও চলচ্চিত্রাঙ্গনে প্রাপ্তি হয়েছে অনেক। মোস্তফা সরয়ার ফারুকী পরিচালিত ‘পিঁপড়াবিদ্যা’ সিঙ্গাপুর আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে সিলভার স্ক্রিন অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হয়। এরপর কেরালা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের প্রতিযোগিতা বিভাগে নির্বাচিত হয় ছবিটি। প্রেক্ষাগৃহেও ভালো সাড়া ফেলতে সক্ষম হয় ‘পিঁপড়াবিদ্যা’।

খালিদ মাহমুদ মিঠুর ‘জোনাকির আলো’ ভারতের মুম্বাইয়ে দ্বাদশ এশিয়ান চলচ্চিত্র উৎসবের প্রতিযোগিতা বিভাগে মনোনীত হয়। এর বাইরে ‘জোনাকির আলো’ চলচ্চিত্রের জন্য আমেরিকার দ্য ওয়াল্ড ইন্ডিপেনডেন্ট ফিল্ম ফেস্টিভ্যালের এবারের আসরে পুরস্কার জেতেন ছবিটি।

নাচ-গান-অ্যাকশনে ভরপুর মসলাদার ছবির বাইরে এসব অর্জন আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশীয় চলচ্চিত্রের পরিচিতি বাড়াচ্ছে। এই ইতিবাচক আয়নায় চোখ রেখে পুরনো বছরের হতাশা ভুলে নতুন বছরে মানসম্পন্ন নির্মাণ, নতুন নতুন গল্প আর তারকাদের মনকাড়া কাজ দর্শকদের মুগ্ধ করবে, এ প্রত্যাশা রইলো।

আলোচিত ৫ ছবি
* পিঁপড়াবিদ্যা (মোস্তফা সরয়ার ফারুকী)
* তারকাঁটা (মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ)
* কিস্তিমাত (আশিকুর রহমান)
* আমি শুধু চেয়েছি তোমায় (অশোক পাতি ও অনন্য মামুন)
* এক কাপ চা (নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূল)

ব্যবসাসফল ৫ ছবি
* হিরো দ্য সুপারস্টার (শাকিব খান, অপু বিশ্বাস)
* তারকাঁটা (মৌসুমী, আরিফিন শুভ, বিদ্যা সিনহা মিম)
* হিটম্যান (শাকিব খান, অপু বিশ্বাস)
* মোস্ট ওয়েলকাম টু (অনন্ত-বর্ষা)
* অগ্নি (আরিফিন শুভ, মাহি)

প্রশংসিত ৫ ছবি
* বৃহন্নলা (মুরাদ পারভেজ)
* জীবনঢুলী (তানভীর মোকাম্মেল)
* একাত্তরের মা জননী (শাহ আলম করিণ)
* আকাশ কত দূরে (সামিয়া জামান)
* হরিজন (মির্জা সাখাওয়াত হোসেন)

বাংলাদেশ সময় : ২০৪২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৪, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa