ঢাকা, রবিবার, ১০ আশ্বিন ১৪২৯, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৭ সফর ১৪৪৪

তারার ফুল

স্বপ্নিল পথে তানিয়া

কামরুজ্জামান মিলু, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৫৩ ঘণ্টা, জুলাই ১৬, ২০১৪
স্বপ্নিল পথে তানিয়া ছবি : নূর /বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

রূপকথার গল্প কে না শুনেছেন। রূপকথার রাজ্যের মানুষের গল্প পড়তে বা শুনতে কার না ভালো লাগে।

তাদের জীবনটা যে স্বপ্ন আর আলোয় আলোয় রঙিন। তানিয়া বৃষ্টির কাজের শুরুটা অনেকটা রূপকথার গল্পের মতোই।

বিজ্ঞাপনের নন্দিত ভুবনে ৫ ফুট ৪ ইঞ্চি উচ্চতার এ মেয়েটির পথচলা শুরু হয়েছিল গ্রামীণফোনের একটি বিজ্ঞাপনচিত্র দিয়ে। তিনি আলোচিত হন শাকিব খানের সঙ্গে আবাসন প্রকল্পের একটি বিজ্ঞাপনচিত্রের মডেল হয়ে। এখন বড় পর্দায়ও কাজ করছেন। সম্প্রতি বাংলানিউজের বিনোদন বিভাগে কথা হচ্ছিল তার সঙ্গে।

মুন্সীগঞ্জের মেয়ে তানিয়া বৃষ্টি দুই বছর আগে ‘ভিট-চ্যানেল আই টপ মডেল’ প্রতিযোগিতায় সৌন্দর্যের পরীক্ষায় দ্বিতীয় রানারআপ হওয়ায় প্রথম পরিচিতি পান। দুই বোনের মধ্যে তিনি ছোট। বড় বোন সোনিয়া আক্তার জ্যোতি জাতীয় পর্যায়ের টেনিস খেলোয়াড়। তানিয়ার আগ্রহ ছিল নাচে। ধীরে ধীরে বিনোদন অঙ্গনে কাজের সাধ জাগে তার মনে। ছিলেন সুযোগের অপেক্ষায়। ঢাকায় মামার বাড়িতে থেকে হাবিবুল্লাহ বাহার বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়ার পর সুযোগ এলো। নাম লেখালেন ‘ভিট-চ্যানেল আই টপ মডেল’ প্রতিযোগিতায়।

অল্প সময়ে বেশকিছু ভালো কাজ করেছেন তানিয়া বৃষ্টি। মডেল হিসেবে ‘এশিয়ান ডুপ্লেক্স টাউন’, ‘সিটি ব্যাংক’, ‘ইফাদ ইজি নুডুলস’, ‘জেএস জুয়েলার্স’ , ‘কসকো সাবান’-এর বিজ্ঞাপনে কাজ করেন। নাটকে অভিনয় প্রসঙ্গে তার ভাষ্য, ‘নাটকে কাজ করেছি। তবে খুব বেশি না। ফেরদৌস হাসান রানার ‘প্রমিলা ক্রিকেট কোচিং’, আশরাফী মিঠু ‘আলোর পথে’ নাটকে দর্শক আমাকে দেখেছে। তবে আমার মূল লক্ষ্য বড় পর্দায় স্থায়ী হওয়া। ’

লক্ষ্যপূরণের পথে হাঁটি হাঁটি পা করে এগোচ্ছেন তিনি। সম্প্রতি অভিনয় করেছেন আকরাম খানের পরিচালনায় ‘ঘাসফুল’ ছবিতে। ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত এ ছবিতে তার নায়ক আসিফ নূর। তানিয়া বললেন, ‘এখানে নিজের নামের চরিত্রে অভিনয় করেছি। একটি চিঠিকে কেন্দ্র করে কাহিনী সাজানো। ছবিটিতে বিভিন্ন রূপে দেখা যাবে আমাকে। ’

জোসেফ-জুলির প্রেমকাহিনী অবলম্বনে ‘দরজার ওপাশে’ নামের আরেকটি ছবিতে অভিনয় করছেন তানিয়া বৃষ্টি। জাদুবাস্তবতার গল্প নিয়ে এটি পরিচালনা করছেন সরদার মোহাম্মদ শাকিল। এতে জুলি চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। আনন্দ-বেদনার এ গল্পে মোট তিনটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। এ ছবিতে তার সহশিল্পী শাহেদ শরীফ খান।

আসন্ন রোজার ঈদে তার অভিনীত লেনিন হায়দারের ‘বোকা প্রেমিক’ এবং রায়হান খানের ‘যদি না বলো’ নাটক দুটি প্রচার হতে পারে।

তবে বড় পর্দায় কাজ করার আগ্রহটা বেশি তার। শাকিব খানের বিপরীতে তার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের একটি ছবিতে সামনে কাজ করার সম্ভাবনা রয়েছে। বড় পর্দায় কাজ করার ভাবনা নিয়ে তানিয়া জানান, ‘আমার ইচ্ছা বড় পর্দার নায়িকা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করা। আগামীতে ভালো পরিচালক ও সহশিল্পীর সঙ্গে কাজ করতে চাই। ’

এখন অভিনয়ই তানিয়ার ধ্যান-জ্ঞান। শোবিজের স্বপ্নিল পথে বহুদূর যেতে চান তিনি।

তাই বিয়ে-প্রেম-বিয়ের কথা আপাতত গুরুত্ব দিয়ে ভাবছেন না। নতুন নতুন ভালো কাজ করে সাফল্যের চূড়ায় পৌঁছাতে চান তিনি। যেখানে সুখের বৃষ্টি পড়বে রিমঝিম।

বাংলাদেশ সময় :  ১৯৪৫ ঘণ্টা, জুলাই ১৬, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa