ঢাকা, শনিবার, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৫ আগস্ট ২০২০, ২৪ জিলহজ ১৪৪১

ক্রিকেট

এবারের আইপিএলে যেসব চমক থাকছে

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৪৭ ঘণ্টা, জানুয়ারী ২৮, ২০২০
এবারের আইপিএলে যেসব চমক থাকছে ছবি: সংগৃহীত

ইঙ্গিতটা আগেই দেওয়া হয়েছিল। এবার আনুষ্ঠানিক ঘোষণাও হয়ে গেল। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) এবারের আসর হতে যাচ্ছে অনেকটা ভিন্ন স্বাদের। যুক্ত হচ্ছে বেশকিছু নতুন বিষয়। এর মধ্যে থাকছে অল-স্টার ম্যাচ, নো-বল আম্পায়ারের মতো চমক।

‘ইএসপিএনক্রিকইনফো’ জানিয়েছে, অল-স্টার ম্যাচের জন্য আইপিএলের ৮ দলকে দুই ভাগে করা হবে। অর্থাৎ, ভারতের উত্তর-পূর্বের চার রাজ্যের ফ্র্যাঞ্চাইজি- কিংস ইলেভেনে পাঞ্জাব, দিল্লি ক্যাপিটালস, রাজস্তান রয়্যালস এবং কলকাতা নাইট রাইডার্স- এই চার দলের খেলোয়াড়রা খেলবেন এক দলে।

আর দক্ষিণ-পশ্চিমের চার দল- চেন্নাই সুপার কিংস, রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু, সানরাইজার্স হায়দরাবাদ এবং মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সকে নিয়ে গঠিত হবে দ্বিতীয় দলটি।

তবে ভারতীয় একাধিক সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, ২৯ মার্চ থেকে শুরু হতে চাওয়া আইপিএলের এবারের আসর শুরুর তিনদিন আগে মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামেই অনুষ্ঠিত হবে অল-স্টার ম্যাচ। আর দেশি আর বিদেশি খেলোয়াড়- এভাবেই ভাগ করা হবে দুই দল। মূলত আইএপিলের প্রচার ও প্রসার বাড়ানোর জন্যই এমনটা করা হবে। আর এসব সিদ্ধান্তের পেছনে মূল ভূমিকা রেখেছেন বিসিসিআই’র নতুন সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী।

এবারের আইপিএলের সবচেয়ে বড় চমক হতে যাচ্ছে ‘নো-বল আম্পায়ার’। মাঠের আম্পায়াররা প্রায়ই এই জায়গাটায় ভুল করেন এবং বিষয়টা নিয়ে অতীতে বহু অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনাও ঘটেছে। ফলে বিতর্ক এড়াতে আইপিএলে মাঠে শুধু নো-বল নিয়ে কাজ করবেন একজন আম্পায়ার।

গত আসরেই মুম্বাইয়ের বিপক্ষে ব্যাঙ্গালুরুর এক ম্যাচ শেষে আম্পায়ারিং নিয়ে ক্ষোভ ঝেরেছিলেন বিরাট কোহলি। ওই ম্যাচে মুম্বাইয়ের লাসিথ মালিঙ্গার একটি নো-বল খেয়াল করেননি মাঠের আম্পায়ার এস রবিকে, যার প্রভাব পড়ে ম্যাচের ফলাফলে। শেষ পর্যন্ত ৬ রানে হেরে যায় কোহলির দল। এমনকি ম্যাচ জিতেও আম্পায়ারিং নিয়ে ক্ষোভ ঝারেন মুম্বাইয়ের অধিনায়ক রোহিত শর্মা। এই ভুলের কিছুদিন পরে আইসিসি’র অ্যালিট প্যানেল থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয় রবিকে।  

‘নো-বল আম্পায়ার’ নিয়ে আইসিসি অবশ্য এখনও ইতিবাচক সিদ্ধান্ত দেয়নি। তাদের কাছে বরং নিয়মিত টেলিভিশন আম্পায়ার ব্যাপারটাই ঠিক বলে মনে হয়েছে। কিন্তু ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ড (বিসিসিআই) আইপিএলের মাধ্যমে এই নতুন পদ্ধতির পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করতে চায়।

এছাড়া আইপিএলের এবারের আসর থেকে থাকছে ‘কনকাশন সাবস্টিটিউট’ পদ্ধতি। অর্থাৎ, ব্যাট করতে গিয়ে বাঁ বল অথবা ফিল্ডিং করার সময় কোনো খেলোয়াড় গুরুতর আহত হলে, তার বদলে স্কোয়াডের অন্য কেউ মাঠে নামতে পারবে।  

আগেই বলা হয়েছিল, এবারের আইপিএলে কোনো জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠান থাকছে না। এবার সেই সিদ্ধান্তই ফের নিশ্চিত করা হয়েছে। ২৪ মে মুম্বাইয়ের মাঠেই গড়াবে ফাইনাল ম্যাচ। রাউন্ড রবিন লিগ, দুটি কোয়ালিফায়ার, একটি এলিমিনেটর ও ফাইনাল মিলিয়ে মোট ৬২টি ম্যাচ মাঠে গড়াবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৮, ২০২০
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa