bangla news

আইপিএলে দল পাননি যারা

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১২-১৯ ৯:৫৪:১৩ পিএম
.

.

১৩তম ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) নিলাম শেষ হয়েছে। এবারের নিলামে দল পাননি বাংলাদেশের মুশফিকুর রহিম, মোস্তাফিজুর রহমানসহ পাঁচ ক্রিকেটার। তবে দল না পাওয়াদের তালিকায় বাংলাদেশের পাঁচজন ছাড়াও আছে টি-টোয়েন্টির অনেক বড় এবং অতি পরিচিত নাম।

বাংলাদেশ থেকে আইপিএলে সবচেয়ে বেশিবার প্রতিনিধিত্ব করেছেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু ম্যাচ ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব গোপন করায় নিষিদ্ধ হওয়ায় এবারের নিলামে নাম ওঠেনি বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের। তিনি থাকলে নিশ্চিত দল পেতেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না। 

বাংলাদেশ থেকে এবার এবারের নিলামে মুশফিক ছাড়াও তালিকায় রাখা হয়েছিল মোস্তাফিজ, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির রহমান এবং সাইফউদ্দিনকে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দল পাননি কেউই। এর মধ্যে মুশফিক, মোস্তাফিজকে তবু নিলামে তোলা হয়েছিল, বাকিদের ক্ষেত্রে সেটাও করে হয়নি।

এদিকে বাংলাদেশের পাঁচ ক্রিকেটার ছাড়াও দল না পাওয়াদের মধ্যে সবচেয়ে বড় চমক দুর্দান্ত ফর্মে থাকা ক্যারিবীয় ওপেনার শাই হোপ। এছাড়া বড় তারকাদের মধ্যে আরও আছেন অ্যাডাম জাম্পা, জেমস প্যাটিনসন, লিয়াম প্ল্যাঙ্কেট, মার্টিন গাপটিল, এভিন লুইস, টিম সাউদি, জেসন হোল্ডার, কলিন ইনগ্রাম, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট, শন অ্যাবট, ম্যাথু ওয়েড, অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস, কুশল পেরেরা, ম্যাট হেনরি, শন মার্শ, কলিন মুনরো, বেন কাটিং, ইউসুফ পাঠানের মতো তারকা ক্রিকেটার।

এবারের আসরের নিলামে মোট ৬২ জন খেলোয়াড়কে কিনে নিয়েছে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো। এর মধ্যে বিদেশি খেলোয়াড় ২৯ জন। সবচেয়ে বেশি দামে বিক্রি হয়েছেন অজি অলরাউন্ডার প্যাট কামিন্স। তাকে কিনতে ১৫ কোটি ৫০ লাখ রুপি খরচ করেছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১০ কোটি ৭৫ লাখ রুপি খরচ করে অজি অলরাউন্ডার গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে কিনে নিয়েছে কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব। আর ১০ কোটি রুপিতে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু কিনে নিয়েছে প্রোটিয়া অলরাউন্ডার ক্রিস মরিসকে।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১৯, ২০১৯
এমএইচএম

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ক্রিকেট আইপিএল
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-12-19 21:54:13