bangla news

এসজির ৬০টি বল পাবেন মুশফিক-কোহলিরা

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-১১-০৯ ৩:৩৫:০৪ পিএম
এসজির ৬০টি বল পাবেন মুশফিক-কোহলিরা

এসজির ৬০টি বল পাবেন মুশফিক-কোহলিরা

২২ নভেম্বর ঐতিহাসিক ম্যাচ খেলতে নামবে বাংলাদেশ। কলকাতার ইডেন গার্ডেনসে দুই ম্যাচ সিরিজের শেষ ম্যাচটি ভারতের জন্যও ঐতিহাসিক ম্যাচ। দুই দলই প্রথমবারের মতো খেলতে নামবে ফ্লাডলাইটের কৃত্রিম আলোর নিচে, সাদা পোশাকে। প্রথমবারের মতো খেলতে নামবে গোলাপি বলে দিবারাত্রির টেস্ট।

দিবারাত্রির টেস্টে অন্যরা এতোদিন কোকাবুরা আর ডিউকের গোলাপি বল ব্যবহার করলেও এবার বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচে দেখা যাবে নতুন ধরনের বল। এসজি কোম্পানির বল দিয়ে ইডেনের ম্যাচ খেলানো হবে।

এরই মধ্যে প্রথম ধাপে ভারতীয় বোর্ডকে এসজি বল দেওয়ার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন। ২০১৬-১৮ দুই মৌসুমে ভারতের দুলীপ ট্রফিতে গোলাপি বলে খেলা হয়েছিল। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কাছে ওই দুই আসরে বল সরবরাহ করেছিল কোকাবুরা। ১১টি আন্তর্জাতিক দিবারাত্রির টেস্ট সম্পন্ন হয়েছে। বাংলাদেশ-ভারত দ্বিতীয় টেস্টে তথা ১২তম দিবারাত্রির টেস্টে এই প্রথম অফিসিয়ালি এসজির গোলাপি বল ব্যবহার করা হবে।

এসজি কোম্পানির মার্কেটিং অ্যান্ড সেলস ডিরেক্টর পরশ আনন্দ জানিয়েছেন, ‘আমরা প্রথম ধাপে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের কাছে বল পৌঁছে দেওয়ার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। ৭২টি বল চাওয়া হলেও পরের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রথম ধাপে বোর্ডের কাছে দেওয়া হবে ৬০টি (৫ ডজন) বল। সেগুলো বাংলাদেশ আর ভারতের অনুশীলনের জন্য ভাগ করে দেওয়ার কথা শুনেছি। বোর্ডের সবুজ সংকেত পাওয়া মাত্র আমরা ম্যাচে খেলার বল পাঠিয়ে দেব।’

এর আগে গত ৭ নভেম্বর এসজি কোম্পানি থেকে কিছু গোলাপি বল ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডে পাঠানো হয়। কোম্পানির কিছু সীমাবদ্ধতা (লজিস্টিক) থাকায় শুরুতেই সব বল পাঠানো হয়নি।

আগামী ১৪ নভেম্বর ইন্দোরে শুরু প্রথম টেস্ট। ম্যাচ পাঁচদিন গড়ালে দ্বিতীয় ম্যাচের আগে দুই দল হাতে পাবে তিন দিন। তিন দিনের অনুশীলনের জন্য দেওয়া হবে ৬০টি বল। ম্যাচ ডে’র আগেই ভারতীয় বোর্ডে পৌঁছে যাবে দিবারাত্রির গোলাপি এসজি বল।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩৪ ঘণ্টা, নভেম্বর ০৯, ২০১৯
এমআরপি

        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-11-09 15:35:04