ঢাকা, রবিবার, ৭ আশ্বিন ১৪২৬, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯
bangla news

রোনালদো সারাদিন আয়না দেখে সময় কাটাতেন: ফোরলান

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৮-১৮ ৪:২৯:২০ পিএম
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের দুই সাবেক তারকা ফোরলান ও রোনালদো: ছবি-সংগৃহীত

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের দুই সাবেক তারকা ফোরলান ও রোনালদো: ছবি-সংগৃহীত

সম্প্রতি পেশাদারি ফুটবলকে বিদায় জানিয়েছেন ২০১০ বিশ্বকাপের গোল্ডেন বুট জয়ী দিয়েগো ফোরলান। ইউরোপে পেশাদারি ফুটবলের শুরুতে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে দুই বছর কাটিয়েছিলেন এই উরুগুইয়ান ফরোয়ার্ড। যেখানে তিনি সতীর্থ হিসেবে পান তখনকার উঠতি তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও ডেভিড বেকহামের মতো তারকাদের। 

এবার সেই সময়ের ওল্ড ট্রাফোর্ডের কোচ স্যার অ্যালেক্স ফার্গুসন, বেকহাম ও রোনালদো নিয়ে কিছু তিক্ত এবং মজাদার স্মৃতি উগরে দিয়েছেন ফোরলান। ৪০ বছর বয়সী তারকা জানান, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ড্রেসিংরুমে অত্যন্ত ‘আত্মভিমানী’ ছিলেন, ‘যিনি সবসময় আয়নার সামনে থাকতে চাইতেন।’ 

অবশ্য ওল্ড ট্রাফোর্ডে রোনালদো কতটা গুরুত্বপূর্ণ ছিলেন তা স্বীকার করেছেন ফোরলান। বেকহাম রিয়াল মাদ্রিদে চলে যাওয়ার পর তার ট্রেডমার্ক ‘সাত নাম্বার’ জার্সির উত্তরাধিকারী হয়েছিলেন পর্তুগিজ উইঙ্গার। পরে ২০০৩-০৯ সাল পযর্ন্ত রেড ডেভিলদের জার্সিতে খেলে সিআর সেভেনও নাম লেখান সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। এরপর যোগ দেন জুভেন্টাসে। 

ওল্ড ট্রাফোর্ডে থাকাকালীন স্যার ফার্গুসনের অধীনে নিজের জাত চেনান রোনালদো। সেই সময়ের তরুণ তুর্কী রোনালদোর স্মৃতি হাতড়াতে গিয়ে ফোরলান বলেন, ‘রোনালেদো ড্রেসিংরুমে অত্যন্ত আত্মভিমানী ছিলেন, বেকহামের মতো ছিলেন না তিনি। ক্রিস্টিয়ানো সবসময় আয়নার সামনে থাকতে চাইতেন। সে সারাদিন আয়না দেখে সময় কাটাতেন।’ 

ইউনাইটেডে নিজের শেষ মৌসুমে রোনালদোকে সতীর্থ হিসেবে পান ফোরলান। ২০০৪ সালে উরুগুইয়ান তারকা রেড ডেভিলদের ছেড়ে স্প্যানিশ ক্লাব ভিয়ারিয়ালে যোগ দেন। 

ফোরলান স্মৃতিচারণ করেছেন ইউনাইটেডের সাবেক কোচ স্যার ফার্গুসন এবং বেকহামের মধ্যে ঘটে যাওয়া আলোচিত দ্বন্দ্ব নিয়েও। ইংলিশ তারকার ওল্ড ট্রাফোর্ড ছাড়ার পেছনে এটিকে কারণে হিসেবে দেখেন তিনি। ফোরলান জানান, ২০০৩ সালে রোনালদোর পূর্বসূরী বেকহাম এবং স্যার ফার্গুসনের মধ্যে কুখ্যাত ‘হেয়ারড্রায়ার ট্রিটমেন্ট’ নিয়ে তর্ক লেগেছিল।

উরুগুইয়ান ফরোয়ার্ড স্মৃতি থেকে জানান, আর্সেনালের বিপক্ষে এফএ কাপে হারের পর স্যার ফার্গুসন ড্রেসিংরুমে বেকহামের দিকে একটি বুটে লাথি মারেন, সেই বুট ইংলিশ তারকার মুখে আঘাত করে এবং চোখের ওপর কেটে যায়। এর কয়েক মাস পর বেকহামকে রিয়ালের কাছে বিক্রি করে দেয় ইউনাইটেড। 

ফোরলান বলেন, ‘লকার রুমে ফার্গুসন এবং বেকহাম একজন আরেকজনকে অপমান করতে শুরু করেন। দুজনে একে অপরকে বাজেভাবে অপমান করতে থাকতে এবং তা আগের চেয়ে খারাপের দিকে যাচ্ছিল। ফার্গুসন আলোচনা শেষ হয়েছে এমন ভাব নিয়ে ওঠে যাচ্ছিলেন কিন্তু এরপরই বেকহাম কিছু একটা বলেন। কোচ (ফার্গুসন) ঘুরে দাঁড়িয়ে পড়ে থাকা একটি বুটে লাথি মারেন তার (বেকহাম) দিকে।’ 

‘আমরা দেখলাম রক্ত এবং ভাবলাম ‘না, এমন ঘটনা ঠিক নয়’। কিন্তু মুহুর্তের মধ্যে দেখলাম দুজনে মারামারির জন্য প্রস্তুত হচ্ছে। রয় কিন এবং ফন নিস্তলরয় তাদেরকে আলাদা করার জন্য ওঠে আসে।’ 

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৮ ঘণ্টা, আগস্ট ১৮, ২০১৯
ইউবি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ফুটবল
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-08-18 16:29:20