ঢাকা, রবিবার, ১০ চৈত্র ১৪২৫, ২৪ মার্চ ২০১৯
bangla news

অভিজ্ঞতার অভাবই ব্যর্থতার কারণ মানছেন রাহি

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৩-১৪ ২:৪৮:২১ পিএম
আবু জায়েদ রাহি। ছবি: সংগৃহীত

আবু জায়েদ রাহি। ছবি: সংগৃহীত

পুরো নিউজিল্যান্ড সফরেই এক-দুইজন ছাড়া বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা ব্যর্থ। পাশাপাশি বোলাররাও নিজেদের প্রমাণ করতে পারেননি। বিশেষ করে টেস্টে পেসাররা যারপরনাই ব্যর্থ। আর এই ব্যর্থতার পেছনে কারণ হিসেবে উঠেছে অভিজ্ঞতার অভাব। এমনটা জানাচ্ছেন টাইগার পেসার আবু জায়েদ রাহি।

দলে থাকা পেসারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অভিজ্ঞতা মোস্তাফিজুর রহমানের। তিনি খেলেছেন মোটে ১৩টি টেস্ট। বাকিদের মধ্যে রাহি নিজে খেলেছেন ৫টি, এবাদত হোসেন ও খালেদ আহমেদ ২টি করে। আর অভিজ্ঞতার এই অভাবকেই ব্যর্থতার প্রধান কারণ মানছেন রাহি।

তিন ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথম দুটিতেই ইনিংস ব্যবধানে হারার পর তৃতীয় টেস্টের আগে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন রাহি। বলেন, ‘আমাদের যারা পেস বোলার খেলছে তাদের মধ্যে মোস্তাফিজ শুধু ১১টি ম্যাচ (১৩টি) খেলেছে। আমার কাছে মনে হয় যে আমাদের আরও বেশি অভিজ্ঞ হওয়া উচিত বা আমাদের আরও খেলানো উচিত। অন্যান্য দেশের যে বোলাররা রয়েছে আপনারা দেখেন তারা অনেকেই অনেকগুলো টেস্ট খেলেছে। আমি মনে করি আমাদেরও অনেক টেস্ট খেলা উচিত।’

টেস্ট ক্রিকেটটাকে বুঝতে হলে আরও বেশি ম্যাচ খেলতে হবে, এমনটাই ভাবনা তরুণ রাহির। তার মতে টেস্টে ভালো করতে হলে অভিজ্ঞতা ছাড়া কোনো পথই নেই। বলেন, ‘টেস্ট খেলাটা হলো অভিজ্ঞতার ব্যাপার। আপনি যতো বেশি টেস্ট খেলবেন তত বেশি আপনার অভিজ্ঞতা হবে। আপনি তত বেশি বুঝতে পারবেন টেস্ট ক্রিকেটটা কেমন। আমার কাছে মনে হয় যে আমাদের অনেক টেস্ট খেলা উচিত।’

‘ওয়ালশের সঙ্গে কথা বলেছি। আরও কাজ করতে হবে। তবে দেশের থেকে এখানে সুইং বেশি পাচ্ছি বলে। এটাও একটা ভালো দিক। এছাড়া সাউদির (টিম) বাবল বলটাও শেখার চেষ্টা করছি। সিরিজের পর সাউদির সঙ্গে এটা নিয়ে কথা বলবো।’

১৬ মার্চ ক্রাইস্টচার্চে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টেস্টে মুখোমুখি হবে দু’দল।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৪৮ ঘণ্টা, মার্চ ১৪, ২০১৯
এমকেএম/এমএমএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ক্রিকেট
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14