ঢাকা, মঙ্গলবার, ৪ আষাঢ় ১৪২৬, ১৮ জুন ২০১৯
bangla news

রিয়াল যুগের অবসান!

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৯-০৩-০৬ ৩:৩০:৫৭ পিএম
আয়াক্সের কাছে হেরে চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা জয়ের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে রিয়ালের-ছবি: সংগৃহীত

আয়াক্সের কাছে হেরে চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপা জয়ের স্বপ্নভঙ্গ হয়েছে রিয়ালের-ছবি: সংগৃহীত

চ্যাম্পিয়নস লিগের শিরোপাকে একপ্রকার নিজস্ব সম্পত্তিই বানিয়ে ফেলেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। টানা তিনবার শিরোপা জয়ের রেকর্ডও গড়ে ফেলেছিল। কিন্তু পচা শামুকে পা কাটা যাকে বলে, ঠিক তাই হয়েছে এবার। এক সমেয়র ঐকিহ্যবাহী আয়াক্স, যারা এখন নিজেদের হারিয়ে খুঁজছে তাদের কাছেই শেষ ষোলোর দ্বিতীয় লেগে রীতিমতো উড়ে গেছে লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। এই পরাজয়ের মাধ্যমে একটা যুগেরও শেষ দেখতে পাচ্ছে ফুটবল বিশ্ব।

বুধবার (৬ মার্চ) ঘরের মাঠে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচে নিজেদের ইতিহাসে সবচেয়ে বাজে হারের মুখ দেখেছে রিয়াল। আর তাদের এই তিক্ত অভিজ্ঞতা উপহার দিয়েছে ডাচ জায়ান্ট আয়াক্স। কিন্তু যে ভাবে তারা স্প্যানিশ জায়ান্টদের উড়িয়ে দিয়েছে সেটাই সবাইকে অবাক করে দিয়েছে।

অথচ প্রথম লেগে আয়াক্সের মাঠে ২-১ গোলে জয় নিয়ে শেষ আটে এক পা দিয়েই রেখেছিল সান্তিয়াগো সোলারির শিষ্যরা। কিন্তু ঘরের মাঠ তথা সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে ফিরেই ভয়াবহ এক অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হতে হলো তাদের।

পরিসংখ্যানের দিকে তাকালে রিয়ালের এই পরাজয় সত্যিই লজ্জার। কেননা, সেই ১৯৯৪-৯৫ মৌসুমের পর প্রথম লেগ জেতার পর কখনো কোনো ইউরোপীয় প্রতিযোগিতা থেকে বাদ পড়েনি তারা। সেবার উয়েফা কাপে ওদেনস বোল্ডক্লাবের কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছিল। আর এবার আয়াক্সের কাছে অর্থাৎ, দুবারই অপেক্ষাকৃত দুর্বল প্রতিপক্ষের কাছে হেরে।

পিছিয়ে থেকেও রিয়ালকে ঘরের মাঠে ৪-১ গোলে পরাজিত করা মোটেই সহজ কাজ নয়, তাও দুই লেগ মিলিয়ে ৫-৩ গোলের ব্যবধানে। এই পরাজয় রিয়ালকে আরও এক লজ্জায় ডুবিয়েছে। এর মাধ্যমে ২০১২-১৩ মৌসুমে চেলসির পর ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন হয়েও কোয়ার্টারে যেতে ব্যর্থ হওয়া একমাত্র দল এখন রিয়াল।

৪-১ গোলের স্কোর লাইন, ঘরের মাঠে ইউরোপীয় প্রতিযোগিতার কোনো ম্যাচে রিয়ালের সবচেয়ে বড় হার। ২০০৪ সালের পর এবারই প্রথম ঘরের মাঠে টানা চতুর্থ ম্যাচে পরাজয় দেখলো মাদ্রিদের ক্লাবটি, এমনটা এর আগে মাত্র তিনবার ঘটেছে।

চলতি মৌসুমে ঘরের মাঠে রিয়ালের টানা পরাজয়ের শুরুটা হয়েছে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি জিরোনার কাছে ২-১ গোলে হেরে। এরপর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনার কাছে ৩-০ গোলে হেরে কোপা দেল রে আর একই প্রতিপক্ষের কাছে ১-০ গোলে হেরে লা লিগার শিরোপার স্বপ্নভঙ্গও হয়।

মাত্র তৃতীয় দল হিসেবে বার্নাব্যুতে চ্যাম্পিয়নস লিগের ম্যাচে চার গোল করার কীর্তিতে নাম লিখিয়েছিল আয়াক্স। এর আগে ২০০০ সালে বায়ার্ন মিউনিখ ও ২০১৫ সালে শালকে একই কীর্তি গড়েছিল।

শুরুতে গোল পেয়েছে, চ্যাম্পিয়নস লিগে এমন সর্বশেষ ৪৮ ম্যাচে অপরাজিত আয়াক্স। সর্বশেষ এমনটা ঘটলো রিয়ালের বিপক্ষে, যা তাদের ২২ বছর পর কোয়ার্টার ফাইনালে জায়গা করে দিল।

আয়াক্সের কাছে হেরে আপাতত চলতি মৌসুমটা শূন্য হাতেই শেষ করতে হচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদকে। তিনটি মূল প্রতিযোগিতার শিরোপা হাতছাড়া হয়ে গেছে তাদের (লা লিগায় শীর্ষে থাকা বার্সা থেকে ১২ পয়েন্ট পিছিয়ে) । এখন বাকি ম্যাচগুলো নিজেদের সম্মান রক্ষার খাতিরেই জিততে চাইবেন মদ্রিচ-রামোসরা। সেই লক্ষ্যে তাদের সব দুঃখ ভুলে আগামী ম্যাচে রিয়াল সোসিয়েদাদের মুখোমুখি হতে হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩১ ঘণ্টা, মার্চ ০৬, ২০১৯
এমএইচএম/এমএমএস

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন :   ফুটবল
        ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa
cache_14 2019-03-06 15:30:57