ঢাকা, মঙ্গলবার, ১০ কার্তিক ১৪২৮, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

খেলা

বদলে গেছে অনুশীলন

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০৩১ ঘণ্টা, আগস্ট ২২, ২০১০
বদলে গেছে অনুশীলন

ঢাকা: কোচ জেমি সিডন্সকে এতটা ব্যস্ত হতে আগে কখনো কী দেখা গেছে? উত্তর দিলেন আগে সুযোগ ছিলো না। সময় হয়নি।



হাতে অনুশীলন নির্দেশকা। ক্রিকেট ইনডোর স্টেডিয়ামে খালেদ মাহমুদ সুজনকে কাজ বুঝিয়ে দিয়ে পাশের নেটে পেস বোলারদের দায়িত্ব দিলেন ভিডিও এনালিস্ট নাসির আহমেদকে। সবকিছু ঠিকঠাক হচ্ছে কী না, কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে দেখার পর দৌঁড়ে চলে যান শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে। পুবদিকের গেটের উঁচু জায়গা দাঁড়িয়ে ফিল্ডিং এবং ফিটনেস প্রশিক্ষণ খানিক্ষণ দেখে নেন। এভাবে সাড়ে তিন ঘন্টার অনুশীলন নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটান জাতীয় দলের প্রধান কোচ জেমি সিডন্স।

সত্যিই অন্য যে কোন সময়ের চেয়ে আলাদা দিন কেটেছে জাতীয় দলের প্রাথমিক ক্যাম্পের ক্রিকেটারদের। প্রথম দিন থেকেই কঠোর শ্রম দিতে হয়েছে। তামিম ইকবালের মুখেও প্রশংসা,“এরকম আগে কখনোই হয়নি। আমি মনে করি চমৎকার একটি ব্যাটিং সেশন ছিলো। দুই-আড়াই ঘন্টার সেশন। খুবই ভালো!”

চারটি দলে ভাগ করে অনুশীলনের ছক সাজিয়েছিলেন প্রধান কোচ। যার দুটি মাঠে অন্য দুটি ইনডোর এবং নেটে। একাংশ অবশ্য জিমনেসিয়ামেও কাটিয়েছেন। শেষ বিকালে প্রতিটি ক্রিকেটারকেই দেখা গেলো কান্ত-পরিশ্রান্ত।

সিডন্সকে এখন সব কিছু একা করতে হয় না। দায়িত্ব দেওয়ার মানুষ পেয়ে গেছেন। বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে তিনি বলেন,“এখন কোচিং স্টাফ বেড়েছে। অতিরিক্ত হিসেবে একজন ফিল্ডিং কোচ পেয়েছি। বোলিং কোচ আসছেন। হাতে যথেষ্ট সময়ও আছে। অবশ্যই ভালো প্রশিক্ষণ হবে। না হয়ে উপায়ই নেই। ”

সিডন্স এই প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের নাম দিয়েছেন ‘স্কিল ডেভলপমেন্ট ট্রেনিং’। তার পরিকল্পনাতেই সব কিছু হচ্ছে। তিনি জানালেন আপাতত নিউজিল্যান্ড সিরিজ পর্যন্ত ক্যাম্প হলেও মূল লক্ষ্য বিশ্বকাপ পর্যন্ত ধারাবাহিকতা রাখা। ”

প্রতিদিনই হয়তো অনুশীলন হবে। তবে প্রথম দিনটা একটু বিশেষ কারণে আলাদা নজর কেড়েছে। সবারই মনযোগ ছিলো নতুন ফিল্ডিং কোচ জুলিয়ান ফাউন্টেনের দিকে। নতুন এই কোচকে মনে ধরেছে জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের। অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তাজর মুখে শোনা গেলে প্রশংসা। অনেক কিছু জানেন এই কোচ। বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম.বিডিকে বলেন,“অনেক লেখা পড়া করেন এই কোচ। মোট কথা ফিল্ডিং নিয়ে গবেষণা করেছেন। আগের যে কোন সময়ের চেয়ে ভালো হবে। ”

এরপর আনুষ্ঠানিক সংবাদ ব্রিফিংয়ে বলে বলেছেন,“অনেক বেশি পেশাদার। দলের জন্য খুব ভালো মনে হয়েছে। প্রথম দিন কাজ করে ভালো লেগেছে। ক্যাম্প শেষ হতে আরো তিন সপ্তাহ বাকি। আশা করি এর মধ্যে কিছুটা উন্নতি করা সম্ভব হবে। ”

ফিল্ডিংয়ে অনেক দিন ধরেই সমস্যা বয়ে বেড়াচ্ছে বাংলাদেশ। চাইলেই হুট করে সেখান থেকে বেড়িয়ে আসা সম্ভব নয়। মাশরাফির মতে,“এটা এমন নয় যে, একদিন দুইদিনে হচ্ছে। ফিল্ডিংটা উন্নতি করা যায়। তবে সময়ের ব্যাপার। আশা করি নিউজিল্যান্ড সফরে আগে যা করেছি, তার চেয়ে ভালো হবে। ”

ক্রিকেটারদের উন্নতির জন্য ইংল্যান্ড থেকে কোচ আনা হয়েছে। তার হাত ধরেই উন্নতির পথ খুঁজে পাবে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশ সময়: ২২০০ ঘন্টা, আগস্ট ২২, ২০১০

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa