ঢাকা, বুধবার, ৮ আশ্বিন ১৪২৭, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৪ সফর ১৪৪২

ক্রিকেট

হেরেও দ্বিতীয় পর্বে বাংলাদেশ

স্পোর্টস করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৫৬ ঘণ্টা, মার্চ ২০, ২০১৪
হেরেও দ্বিতীয় পর্বে বাংলাদেশ ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম থেকে: দুর্বল হংকংয়ের কাছে হেরে গিয়েও দ্বিতীয় পর্ব নিশ্চিত করলো বাংলাদেশ। নিজেদের স্বপ্নপূরণের ম্যাচে বাংলাদেশকে ২ উইকেটে হারিয়েছে হংকং।



টসে জিতে হংকং দলপতি জে জে আতকিনসন বাংলাদেশকে হারিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করার যে স্বপ্ন দেখেছিলেন তা পূরণ হলো ঠিকই, কিন্তু বাংলাদেশও পৌঁছে গেলো সুপার টেনে।   এবারই প্রথম বাছাইপর্বে অংশ নিয়ে হংকংয়ের বিরুদ্ধে এ কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হলো।

বাংলাদেশের ব্যাটিং ব্যর্থতাই দুর্বল হংকংয়ের কাছে পরাজয়ের কারণ বলে মনে করা হচ্ছে। তবে হংকংয়ের ইনিংসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ করা ইরফান আহমেদের ক্যাচ মিস না হ হলে খেলার ফলাফল অন্যরকম হতে পারতো।

টাইগারদের বিপক্ষে জয়ের জন্য মাত্র ১০৯ রানের টার্গেটে মাঠে নামা হংকং ৮ উইকেটে দুই বল বাকি থাকতে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায়।   ১৯ দশমিক ৪ ওভারে ১১৪ রান সংগ্রহ করে ক্রিকেটের নবীন দলটি।

ব্যাটিংয়ে নেমে দ্বিতীয় ওভারের দ্বিতীয় বলেই ওয়াকাস বরকতের উইকেট হারায়। তবে এরপর খানিকক্ষণ রান তোলার চেষ্টা করলেও অষ্টম ওভারে ৪৪ রানের মাথায় বিপজ্জনক ইরফান আহমেদকে (৩৪) ফিরিয়ে হংকং দলের রানের চাকা চেপে ধরেন সাকিব।

অর্ধশতকের আগেই অধিনায়ক আতকিনসনের উইকেটও তুলে নেন সাকিব। অর্ধশতকে পৌঁছানোর পর হংকং দলের চতুর্থ ও পঞ্চম উইকেটের পতন ঘটে। উইকেট তুলে নেন ‍মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (মার্ক চ্যাপম্যান) ও আল আমিন হোসেন (বাবর হায়াত)।

এরপর ষোলতম ওভারের শেষ বলে দলীয় ৮৩ রানের মাথায় নিজাকাত খানের উইকেট তুলে নেন মাহমুদুল্লাহ। ১০০ রানের মাথায় আঠারতম ওভারে মুনির ধর ও ১৯তম ওভারে তানভীর আফজলের উইকেট তুলে নেন যথাক্রমে আবদুর রাজ্জাক ও সাব্বির রহমান।

হংকংয়ের পক্ষে সর্বোচ্চ রান আসে মুনির ধরের (৪৫ বলে ৩৬ রান) ব্যাট থেকে।

এর আগে, দুর্বল হংকংয়ের বিপক্ষে চরম ব্যাটিং ব্যর্থতার পরিচয় দেয় টাইগাররা। ১৬ ওভার ৩ বলে মাত্র ১০৮ রানে গুটিংয়ে যায় বাংলাদেশ।

টাইগার দলের ব্যাটিং লাইনআপ ধুমড়ে মুচড়ে দেন হংকংয়ের বোলার নাদিম আহমেদ ও নিজাকাত খান। নাদিম নিয়েছেন ৪টি এবং নিজাকাত নিয়েছেন তিনটি উইকেট। আর তানভীর আফজল দু’টি ও ইরফান আহমেদ নেন একটি উইকেট।

ইনিংসের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলেই শূন্য রানে সাজঘরে ফেরেন ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল। ওভারের শেষ বলে তার পথ ধরেন ওয়ান ডাউনে নামা সাব্বির আহমেদ। এ দু’জনের উইকেট ঝুলিতে ভরেন তানভীর।

তামিম-সাব্বিরের বিদায়ের পর সাকিবকে নিয়ে পরিস্থিতি সামলাবার চেষ্টা করেন ওপেনার এনামুল হক বিজয়। কিন্তু দলীয় অর্ধশতক পূরণ করে ষষ্ঠ ওভারের শেষ বলেই নাদিমের বলে বোল্ড হয়ে যান বিজয়। এরপর ক্রিজে নামেন দলপতি মুশফিকুর। তাদের দু’জনের ব্যাটে ভর করে বড় সংগ্রহের দিকেই এগোচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু দলীয় ৮৫ রানের মাথায় ইরফান আহমেদের বলে নিজাকাত খানের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে সাকিব সাজঘরে ফিরলে খেই হারিয়ে ফেলেন মুশফিকও। মাত্র ৪ রান যোগ করতেই নিজাকাতের বলে মুনিরকে ক্যাচ দিয়ে আউট হন টাইগার কাপ্তান।

এরপর সাজঘরে ফেরার মিছিলে নামেন বাংলাদেশ দলের লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানরা। ৯৬ রানে নাদিমের বলে মাহমুদুল্লাহ বোল্ড, ১০১ রানের মাথায় পরপর ফরহাদ রেজা ও আবদুর রাজ্জাক নিজাকাতের বলে উইকেটকিপার আতকিনসনের হাতে ক্যাচ, ১ রান যোগ হতেই নাদিমের বলে রুবেল হোসেন বোল্ড এবং সর্বশেষ নাদিমেরই বলে বাবর হায়াতের হাতে আল আমিন হোসেন ক্যাচ তুলে দিলে টাইগার ইনিংসের সমাপ্তি ঘটে। অপরাজিত ছিলেন নাসির হোসেন ১৪* (২৮)।

দলের জয়ে অনবদ্য অবদান রাখায় বাংলাদেশ ব্যাটিংয়ে ধস নামানো হংকং দলের নাদিম আহমেদ প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন।

বাংলাদেশ সময়: ২২২৩ ঘণ্টা, মার্চ ২০, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa