ঢাকা, শনিবার, ১ কার্তিক ১৪২৮, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

স্বর্ণালংকারের জন্যই রাজশাহীতে শিক্ষক মায়াকে হত্যা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৪৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১
স্বর্ণালংকারের জন্যই রাজশাহীতে শিক্ষক মায়াকে হত্যা

রাজশাহী: রাজশাহীতে নিজ বাড়িতে সাবেক প্রধান শিক্ষক মায়া রানি ঘোষ (৬৮) হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় মিলন শেখ (৪০) নামে সন্দেহভাজন এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার কাছ থেকে নিহত মায়ার লুট হওয়া স্বর্ণালঙ্কার ও মোবাইল ফোনটিও উদ্ধার করা হয়েছে।

 

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত ব্যক্তি জানিয়েছেন স্বর্ণালংকারের জন্যই বাড়িতে একা পেয়ে শিক্ষক মায়াকে হত্যা করা হয়।

গ্রেফতারকৃত মিলন শেখ রাজশাহী মহানগরীর ফুদকিপাড়া এলাকায় কালু শেখের ছেলে।

মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) দিনগত রাতেই তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। রাতভর পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বুধবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে তাকে সাংবাদিকদের সামনে আনা হয়। বোয়ালিয়া থানা কম্পাউন্ডে হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে প্রেসব্রিফিং করে পুলিশ।  

এ সময় রাজশাহী মহানগরীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিবারণ চন্দ্র বর্মণ জানান, সাবেক প্রধান শিক্ষক মায়াকে হত্যা করে তার গলার চেইন, হাতের বালা ও কানের দুল নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন মিলন। এ পরিকল্পনার অংশ হিসেবে কয়েকদিন আগে থেকে তিনি বাড়ি ভাড়া নেওয়ার নাম করে মায়ার বাড়িতে যাতায়ত শুরু করেন। মঙ্গলবারও তিনি মায়ার বাড়িতে যান। এ সময় বাড়িতে একা পেয়ে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে স্বর্ণালঙ্কার ও মোবাইল ফোন নিয়ে পালিয়ে যান মিলন।

এদিকে ঘটনার পরপরই অপরাধীকে শনাক্ত ও গ্রেফতারে মাঠে নামে পুলিশ। পরে রাতেই মিলনকেই শনাক্তের পর সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে গ্রেফতার করা হয়। তার বাড়ি থেকে সাড়ে তিন ভরি স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করা হয়। এছাড়া মিলনের দেখানো একটি মার্কেটের ছাদ থেকে মায়ার মোবাইল ফোন ও সিমকার্ড উদ্ধার করা হয়।  

জিজ্ঞাসাবাদে মিলন জানিয়েছেন স্বর্ণালংকার লুট করার জন্যই বাড়িতে একা পেয়ে তিনি এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটিয়েছেন। তাই মিলনকে মায়া হত্যা মামলার মূল আসামি হিসেবে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।

আদালতে হাজিরের পর স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ডের কথা রয়েছে মিলনের। এরপর তাকে এই মামলায় কারাগারে পাঠানো হবে বলেও জানান বোয়ালিয়া থানার এই পুলিশ কর্মকর্তা।

এর আগে মঙ্গলবার (২১ সেপ্টেম্বর) মহানগরীর ঘোষপাড়া এলাকার নিজ বাড়িতে খুন হন মায়া। স্বামী-সন্তানহীন মায়া টিনশেডের নিজের বাড়িতে একাই থাকতেন। তিনি মহানগরীর মন্নুজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। ২০১০ সালে চাকরি থেকে অবসর নেন। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাওয়ার পর মেঝেতে পড়ে থাকা অবস্থায় তার মরদেহ পায় পুলিশ।

আরও পড়ুন>>রাজশাহীতে অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক খুন

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৬ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১
এসএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa