ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ বৈশাখ ১৪৩১, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

সিলেট আদালতে যাওয়ার পথে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩১৪ ঘণ্টা, মার্চ ৫, ২০২৪
সিলেট আদালতে যাওয়ার পথে যুবককে কুপিয়ে হত্যা

সিলেট: আদালতে মামলার হাজিরা দিতে যাওয়ার পথে জুনায়েদুল ইসলাম (২৭) নামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ। এ ঘটনায় গুরুতর আহত হয়েছেন নিহত জুনায়েদুলের ভাই জাহিদুল ইসলাম (৩৩)।

 

মঙ্গলবার (৫ মার্চ) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার উত্তর কুশিয়ারা ইউনিয়নের রুকনপুর গ্রামের জামে মসজিদের সামনে এ ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ থানা পুলিশে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে।

নিহত জুনায়েদুল ইসলাম ও আহত জাহেদুল ইসলাম সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম গৌরীপুর ইউনিয়নের কলমপুর গ্রামের কনাই মিয়ার ছেলে।  

আহতের বরাত দিয়ে স্থানীয়রা ও পুলিশ জানান, একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশাযোগে জুনায়েদুল ও জাহেদুল মামলার হাজিরা দিতে সিলেটের আদালতে যাচ্ছিলেন। পথিমধ্যে ফেঞ্চুগঞ্জের রুকনপুর গ্রামের জামে মসজিদের পাশে অটোরিকশা পৌঁছানো মাত্র ১০/১৫ জন দুর্বৃত্ত হামলা চালিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এতে ঘটনাস্থলেই জুনায়েদুলের মৃত্যু হয়। আহতদের চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা আহত জাহেদুলকে দ্রুত উদ্ধার করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

ফেঞ্চুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) আরিফ হোসাইন বাংলানিউজকে বলেন, পূর্ব বিরোধ থেকে জুনায়েদুল ও জাহেদুলের ওপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। এ সময় ঘটনাস্থলে জুনায়েদুল ইসলামের মৃত্যু হয়। আহতাবস্থায় জাহেদুলকে হাসপাতালে পাঠিয়েছেন স্থানীয়রা।  

বালাগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বদিউজ্জামান বলেন, মারামারি নিয়ে স্থানীয় প্রতিপক্ষের সঙ্গে তাদের বিরোধ ছিল। এ বিরোধ থেকে ২০২২ সালে হতাহতদের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ওই মামলায় হাজিরা দিতে গেলে প্রতিপক্ষরা তাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এতে জুনায়েদুল ইসলাম ঘটনাস্থলেই মারা যান।  

এদিকে স্থানীয়দের ধারণ করা এক ভিডিওচিত্রে গুরুতর আহত জাহেদুল জানান, বালাগঞ্জের আহমদ আলীর ছেলেরা চারটি মোটরসাইকেলে এসে তাদের ওপর দা নিয়ে এলোপাতাড়ি হামলা চালায়। হামলাকারীদের মধ্যে মজনু, বাছিত, এনাম, মেহাম্মদ আলী ও আলী হোসেনের নাম উল্লেখ করেছেন তিনি।  

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসা স্থানীয় উত্তর কুশিয়ারা চেয়ারম্যান আহমদ জিলু জানান, হতাহত ও হামলাকারী উভয়পক্ষের বাড়ি বালাগঞ্জ উপজেলায়। এ দুই পরিবারের মধ্যে পূর্ব শত্রুতাও রয়েছে। অতীতে উভয় পক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এরই জের ধরে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটলো।  

বাংলাদেশ সময়: ১৩১৫ ঘণ্টা, মার্চ ০৫, ২০২৪
এনইউ/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।