ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

তথ্যপ্রযুক্তি

দেশে হবে ৫৫৫ জয় ডিজিটাল ইমপ্লয়মেন্ট সার্ভিস সেন্টার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৫ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২২
দেশে হবে ৫৫৫ জয় ডিজিটাল ইমপ্লয়মেন্ট সার্ভিস সেন্টার

নাটোর: দেশের সব উপজেলাসহ ৫৫৫টি জয় ডিজিটাল ইমপ্লয়মেন্ট সার্ভিস সেন্টার স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

তিনি বলেন, সারা দেশের প্রত্যক জেলা ও উপজেলার তরুণ-তরুণীরা প্রশিক্ষণ নিয়ে ফ্রিল্যান্সার, ই-কর্মাস উদ্যোক্তারা বাড়িতে বসেই কাজ করতে পারবেন।

 

মঙ্গলবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরের দিকে জেলার সিংড়া উপজেলা মিলনায়তনে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে ডিজিটাল আইডি কার্ড ও সার্টিফিকেট বিতরণ এবং প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মধ্যে মাসকালাই বীজ ও সার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।  

প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, ঘাতকরা পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যা করে তাঁর সোনার বাংলাকে হত্যা করতে চেয়েছিল। সেই অসমাপ্ত মুক্তির সংগ্রাম সমাপ্তি করেছেন বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মাত্র ১৩ বছরে তাঁর সততা, সাহসিকতা আর দূরদর্শিতার নেতৃত্ব দিয়ে একটি স্বল্প উন্নত দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়েছেন। বাংলাদেশ খাদ্য উৎপাদনে বিশ্বের তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে।

মৎস্য উৎপাদনে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে। জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করেছেন। শুধু কৃষিজীবী ও শ্রমজীবী ভাই-বোনরা নয় আমাদের শিক্ষিত তরুণ প্রজন্ম ডিজিটাল বাংলাদেশের কল্যাণে প্রযুক্তি শিক্ষায় শিক্ষিত হচ্ছে। ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা প্রযুক্তি শিক্ষা নিচ্ছে।  

তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনা ৬৮ হাজার কৃষকদের নামে ১০ টাকায় অ্যাকাউন্ট খুলে দিয়েছেন। যাতে কৃষকরা ভর্তুকির টাকা নিজের অ্যাকাউন্টে সরাসরি পায়। কেউ যেন তাদের সঙ্গে অনিয়ম ও দুর্নীতি করতে না পারে। সিংড়ার চলন বিলের কৃষকরা যেন যথাযথভাবে কৃষি ফসল উৎপাদিত করতে পারেন। সেজন্য শেখ হাসিনা কৃষকদের মধ্যে বিনামূল্য সার, ব্রীজ ও সেচের ব্যবস্থা করেছেন। ফলে আমাদের কৃষি উৎপাদন ৯১ হাজার মেট্রিন টন বেড়ে ২ লাখ মেট্রিন টন ফসলে উন্নতি হয়েছে। চলন বিলের খাদ্য দেশের চাহিদা পূরণ করছে।  

আগামী সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীককে বিজয়ী করার আহ্বান জানিয়ে জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, আপনাদের বিবেকের ওপর ছেড়ে দিলাম, আপনি বিবেচনা করেন ১৩ বছরে বাংলাদেশে যে উন্নয়ন হয়েছে তা বিগত কোনো সরকার করতে পেরেছে কিনা।

বিতরণ অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এম এম সামিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন সিংড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ ওহিদুর রহমান, সিংড়া পৌরসভার মেয়র মো. জান্নাতুল ফেরদৌস, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো. সেলিম রেজা, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাহাদাৎ হোসেন প্রমুখ।  

সভায় ১৬০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ডিজিটাল সনদ ও পরিচয়পত্র, ৭০ জন কৃষকের মধ্যে বিনামূল্যে সার ও বীজ এবং কৃতি শিক্ষার্থী ও শ্রেষ্ঠ শিক্ষক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দেওয়া হয়।  

বাংলাদেশ সময়: ২১৫০ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২২
এসআরএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa