ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৬ শাবান ১৪৪৫

স্বাস্থ্য

জনবল সংকটে বাবুছড়া ইউনিয়নের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫৭ ঘণ্টা, মার্চ ২৫, ২০২৩
জনবল সংকটে বাবুছড়া ইউনিয়নের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র

খাগড়াছড়ি: জনবল সংকটে পড়েছে খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা উপজেলার বাবুছড়া ইউনিয়নের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র। ইউনিয়নের একমাত্র চিকিৎসাসেবা কেন্দ্রের এমন চিত্র হলেও যেন দেখার কেউ নেই।

কেন্দ্রের দায়িত্বে যারা আছেন তারা ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করেন না বলে দাবি এলাকাবাসীর। চিকিৎসকসহ জনবল বাড়িয়ে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

পাহাড়ি জেলার দুর্গম ও জনবহুল ইউনিয়ন ‘বাবুছড়া ইউনিয়ন’ এর ৪৩ গ্রামের প্রায় ৩০ হাজার মানুষের একমাত্র ভরসাস্থল ‘ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র’। প্রায় ৩৫ বছরের পুরানো এ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রটি জনবল সংকটের কারণে যেনতেনভাবে চলছে। মুখ থুবড়ে পড়েছে এ ইউনিয়নের স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা।

ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে তিনজন মেডিকেল অফিসার, একজন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার ও একজন ফার্মাসিস্ট থাকার কথা থাকলেও কর্মরত আছেন শুধু মাত্র একজন মেডিকেল অফিসার।  

এলাকাবাসীর অভিযোগ, একজন মেডিকেল অফিসারও ঠিক মতো দায়িত্ব পালন করেন না। ফলে চিকিৎসাসেবা চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

এক্ষেত্রে প্রসূতি মা, ডায়রিয়া ও কলেরাসহ বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্যসেবা নিতে স্থানীয় রোগীদের অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে। এতে এলাকাবাসীর অনেকেই বাধ্য হয়ে দীঘিনালা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বা খাগড়াছড়ি জেলা সদর হাসপাতালে যেতে হচ্ছে। এতে সময় ও অর্থ দুটিই ব্যয় হচ্ছে স্থানীয়দের।

স্থানীয় বাসিন্দা আব্দুল করিম ও সুভাশীষ চাকমা বলেন, একটু অসুস্থ হলেই হয় দীঘিনালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কিংবা খাগড়াছড়ি সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য যেতে হয়। ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রটিতে চিকিৎসক নিয়মিত বসে না, ওষুধও নাই।

এদিকে স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির ভেতরে ও বাইরে নোংরা পরিবেশ। গত ছয়মাসেও স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি পরিষ্কার করা হয়েছে বলে মনে হয় না। স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রের এমন অবস্থায় অসন্তুষ্ট। তাদের অভিযোগ, রোগীরা সঠিকভাবে চিকিৎসাসেবা থেকে বঞ্চিত।

দীঘিনালার বাবুছড়া ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) চেয়ারম্যান সন্তোষ জীবন চাকমা বাংলানিউজকে বলেন, বৃহত্তর বাবুছড়া ইউনিয়নে প্রায় ৩০ হাজার মানুষ বসবাস করে। অথচ স্বাস্থ্যকেন্দ্রে চিকিৎসক নেই, চিকিৎসার পরিবেশ নেই। কিছু হলে উপজেলা সদরে যেতে হয়। বিশেষ করে এখানে গরিব ও প্রসূতি মায়েদের চিকিৎসা নেই বললেই চলে।

দীঘিনালা উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তনয় তালুকদার বাংলানিউজকে বলেন, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটির লোকবল সংকট রয়েছে। বিষয়টি ইতোমধ্যে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে একজন মেডিকেল অফিসার সেখানে কর্তব্যরত আছেন তাকে নিয়মিত দায়িত্ব পালনের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৭ ঘণ্টা, মার্চ ২৫, ২০২৩
এডি/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।