ঢাকা, সোমবার, ২৩ মাঘ ১৪২৯, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৪ রজব ১৪৪৪

পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্য

নদীর পাঙাশের কেজি ৭৫০ টাকা!

জাহিদুল ইসলাম মেহেদী, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৪২ ঘণ্টা, নভেম্বর ১, ২০২২
নদীর পাঙাশের কেজি ৭৫০ টাকা!

বরগুনা: ইলিশ ধরায় ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষে নদী ও সাগরে বেড়েছে সামুদ্রিক মাছের সরবরাহ। ইলিশের পাশাপাশি পাঙাশের আমদানিও বেড়েছে।

ফলে খুশি উপকূলীয় জেলেরা।

মঙ্গলবার (১ নভেম্বর) সন্ধ্যায় বরগুনা পৌর মাছ বাজারে ইলিশের পাশাপাশি নদীর বড় বড় পাঙাশ মাছ দেখা যাচ্ছে। পাঙাশ বিক্রি হচ্ছে কেজি প্রতি ৭৫০ টাকা দরে। এবার উপকূলের মৎস্যঘাটগুলোতে ইলিশের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে কেনা-বেচার ধুম পড়েছে পাঙাশেরও।

পাঙাশ মাছের দাম এতো কেন, জানতে চাইলে খুচরা মাছ ব্যবসায়ী কামাল বলেন, ভালো জিনিস খেতে হলে দাম তো একটু বেশি দিতেই হবে। এটা চাষের পাঙাশ না। স্থানীয় নদীগুলোর পাঙাশ। এর স্বাদ যে কোনো মাছের চেয়ে ভালো। এ মাছে তেল অনেক। কোনো গন্ধও নাই। কম দামের পাঙাশে এক ধরনের গন্ধ থাকে। সামুদ্রিক মাছের প্রজনন মৌসুমে নদী ও সাগর মোহনায় মাছ সংরক্ষণের লক্ষ্যে সরকারি নিষেধাজ্ঞা শেষে সাগরে ও নদীতে বড় বড় পাঙাশ মাছ জেলেদের জালে ধরা পড়ছে।

এনায়েত নামে এক ক্রেতা বলেন, আকারে বড় হওয়ায় ব্যবসায়ী বেশি দামে বিক্রি করছেন। এ মাছের কেজি ৭৫০ টাকা। নদীর ভালো পাঙাশ খেতে অনেক মজা।

রশিদ নামে আরেক ক্রেতা বলেন, এ বাজারে আট থেকে ১৪ কেজি পর্যন্ত ওজনের পাঙাশ যেন সোনার দামে বিক্রি হচ্ছে। যদি ৭৫০ টাকা দিয়ে পাঙাশ কিনতে হয়, তাহলে ইলিশ কতো টাকা দিয়ে কিনবো? যাদের টাকা আছে, তারা মন চাইলে এ দামে কিনে নিয়ে যাবে। আমার মতো ক্রেতা এটা কিনবে না, এটা নিশ্চিত।

মাছ বিক্রেতা বাঁধন বলেন, আমি দাম চাচ্ছি ৭৫০ টাকা। দেখি ক্রেতারা কত দাম কয়। কত দামে বিক্রি করবো এখনও ঠিক করিনি। রাত পর্যন্ত কী হয় দেখি। নদীর পাঙাশ বলে বেশি দামে কিনতে হয় আমাদের। বিভিন্ন খাবার হোটেলে এ মাছের চাহিদা রয়েছে।

৬ অক্টোবর রাত ১২টার পর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন ইলিশের অভয়াশ্রমে সব ধরনের মাছ ধরা বন্ধ ছিল।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪০ ঘণ্টা, নভেম্বর ১, ২০২২
এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa