ঢাকা, সোমবার, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ আগস্ট ২০২২, ১৬ মহররম ১৪৪৪

নির্বাচন ও ইসি

বেড়ায় এমপিপুত্রের জয়, জামানত হারাচ্ছেন ভাইসহ ৪ মেয়র প্রার্থী

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭১৭ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৯, ২০২১
বেড়ায় এমপিপুত্রের জয়, জামানত হারাচ্ছেন ভাইসহ ৪ মেয়র প্রার্থী ওপরে রঞ্জন, দ্বিতীয় সারিতে আব্দুল বাতেন, সাদিয়া, নিচে বাঁয়ে মাসুদ ও কে এম আব্দুল্লাহ

পাবনা: পাবনার বেড়া পৌরসভা নির্বাচনে বর্তমান মেয়র আব্দুল বাতেনসহ চার মেয়র প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হচ্ছে।  

রোববার (২৮ নভেম্বর) তৃতীয় ধাপের এ নির্বাচনে বেড়া পৌরসভায় ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হয়।

 

পাবনা জেলার সিনিয়র নির্বাচন অফিসার ও জেলা রিটানিং কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান ফলাফলের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।  

বেড়া পৌরসভার ১৮ কেন্দ্রের মোট ভোটার ৪২ হাজার ৮১৮ জন। মেয়র পদে একই পরিবারের তিন প্রার্থীসহ পাঁচজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। সব প্রার্থী মিলে ভোট পেয়েছেন ৩০ হাজার ৬৪টি।  

ফলাফল অনুযায়ী আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট আসিফ শামস রঞ্জন ২১ হাজার ৮৮৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। বেড়া উপজেলার আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সভাপতি বর্তমান মেয়র আব্দুল বাতেন নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন তিন হাজার ৬৬০ ভোট। আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সদস্য এএইচএম ফজলুর রহমান মাসুদ রেল ইঞ্জিন প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন তিন হাজার ৪৭৯ ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী কেএম আব্দুল্লাহ জগ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮১৭ ভোট এবং শামসুল হক টুকুর ভাতিজি এসএম সাদিয়া আলম মোবাইল ফোন প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২২৫ ভোট। শতকরা ৭০ ভাগের বেশি ভোট পড়েছে।  
  
পাবনা জেলার সিনিয়র নির্বাচন অফিসার ও রিটানিং কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান জানান, প্রদত্ত ভোটের শতকরা আট শতাংশ ভোট অর্থাৎ তিন হাজার ৭৫৪ ভোট না পেলে প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। সে ক্ষেত্রে বর্তমান মেয়র আব্দুল বাতেন, এএইচএম ফজলুর রহমান মাসুদ, কেএম আব্দুল্লাহ এবং এসএম সাদিয়া আলমের জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।  

আওয়ামী লীগ প্রার্থী অ্যাডভোকেট আসিফ শামস রঞ্জন সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও বর্তমান সংসদ সদস্য (এমপি) অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকুর বড় ছেলে। আর টুকুর আপন ছোট ভাই হলেন আব্দুল বাতেন। এছাড়া এসএম সাদিয়া আলম বর্তমান মেয়র এবং শামসুল হক টুকুর বড় ভাইয়ের মেয়ে।

অলোচিত বেড়া পৌরসভার এ নির্বাচনকে ঘিরে রয়েছে নানা জল্পনা কল্পনা। দীর্ঘ ২৫ বছর পরে বেড়া পৌরসভার মেয়র পদে থাকা আব্দুল বাতেন এবার ভাতিজার কাছে পরাজিত হলেন।

এ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে শুধু বেড়া পৌরসভাতেই বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) চার প্লাটু‍ন সদস্য মোতায়েন করা হয়। এছাড়া প্রতিটি কেন্দ্রে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), পুলিশের স্ট্রাইকিং ফোর্স, আনসার ও সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করেন।  

অনিয়ম, প্রভাব বিস্তার ও নিরাপত্তার জন্য মেয়র আব্দুল বাতেনকে দেওয়া হয়েছিল স্পেশাল সিকিউরিটি।  

নির্বাচনী এলাকায় অবাধে প্রবেশের জন্য তাকে উচ্চতর আদালতের মাধ্যমে প্রশাসনিকভাবে ব্যক্তিগত গানম্যানসহ ১০ সদস্যের একটি অস্ত্রধারী পুলিশ দল দেওয়া হয়েছিল।

রোববার (২৮ নভেম্বর) সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলাকালে কোনো বিশৃঙ্খলার খবর পাওয়া যায়নি।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৯, ২০২১
এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa