ঢাকা, শনিবার, ২১ মাঘ ১৪২৯, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১২ রজব ১৪৪৪

নির্বাচন ও ইসি

গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা পরিবর্তন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৫৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৭, ২০২২
গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা পরিবর্তন

ঢাকা: গত ১২ অক্টোবর বন্ধ ঘোষিত গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনের নতুন তারিখ আগামী ৪ জানুয়ারি রাখার পর এবার রিটার্নিং কর্মকর্তা পরিবর্তন করল নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঢাকার আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তাকে এই পদে নিয়োগ দিয়েছে সংস্থাটি।

বুধবার (০৭ ডিসেম্বর) নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. জাহাঙ্গীর স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন থেকে বিষয়টি জানা গেছে।

এতে উল্লেখ করা হয়েছে, পূর্বের জারি করা প্রজ্ঞাপনে ‘আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা, রাজশাহী অঞ্চল, রাজশাহী’ শব্দ ও চিহ্নসমূহের পরিবর্তে ‘আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা, ঢাক অঞ্চল, ঢাকা’ শব্দ ও চিহ্নসমূহ প্রতিস্থাপিত হবে।

গত ১২ অক্টোবর অনুষ্ঠিত গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনে ব্যাপক অনিয়ম সিসি ক্যামেরায় পর্যবেক্ষণের পর প্রধান নির্বাচন কমিশনার প্রথমে ৫০টি কেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা ঘোষণা করেন। এরপর রিটার্নিং কর্মকর্তাও পরে একটি কেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে ভোটগ্রহণের যৌক্তিকতা না থাকায় পুরো নির্বাচন বন্ধ করে দেয় ইসি। এরপর গঠিত তদন্ত কমিটি ৬৮৫ জনের শুনানি করে ব্যাপক অনিয়মের প্রমাণ পায় ওই ৫১ কেন্দ্রে। এছাড়া অবশিষ্ট কেন্দ্রগুলোর সিসি ক্যামেরার ফুটেজও খতিয়ে দেখে অনিয়মের প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি।

এরপর সেই কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে গাইবান্ধার এক অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক, পাঁচ এসআই, নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামসহ ১৩৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বরখাস্ত করাসহ বিভিন্ন শাস্তির সিদ্ধান্ত দেয় কমিশন। ওই সকল কর্মকর্তাদের নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষকে শাস্তি বাস্তবায়ন করে আগামী এক মাসের মধ্যে অবহিত করার নির্দেশও দেয় নির্বাচন আয়োজনকারী সংস্থাটি।

সম্প্রতি এই সিদ্ধান্ত দেওয়ার পর মঙ্গলবার (০৬ ডিসেম্বর) নির্বাচনের পুনর্তারিখ ঘোষণা করে ইসি। আর বুধবার এসে রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসেবে সাইফুল ইসলামের পরিবর্তে নিয়োগ দেওয়া হলো মো. ফরিদুল ইসলামকে।

সাবেক ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়ার মৃত্যুতে শূন্য ঘোষিত গাইবান্ধা-৫ আসনের উপনির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা হলেন—মাহমুদ হাসান রিপন (আওয়ামী লীগ), এ এইচ এম গোলাম শহীদ রঞ্জু (জাতীয় পার্টি), অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম (বিকল্প ধারা), নাহিদুজ্জামান নিশাদ (স্বতন্ত্র) ও সৈয়দ মাহবুবুর রহমান (স্বতন্ত্র)।

সাঘাটা ও ফুলছড়ি দুটি উপজেলা নিয়ে এ সংসদীয় আসন গঠিত। এতে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৩৯ হাজার ৭৪৩ জন। এর মধ্যে ফুলছড়ির সাতটি ইউনিয়নে ১ লাখ ১৪ হাজার ৬৭৬ জন এবং সাঘাটার ১০টি ইউনিয়নে ২ লাখ ২৫ হাজার ৭০ জন।

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৭, ২০২২
ইইউডি/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa