ঢাকা, শনিবার, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৮ মে ২০২৪, ০৯ জিলকদ ১৪৪৫

শিক্ষা

গুচ্ছভর্তি পরীক্ষা: খুবি উপকেন্দ্রে ৮৮৮৬ পরীক্ষার্থী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৩৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
গুচ্ছভর্তি পরীক্ষা: খুবি উপকেন্দ্রে ৮৮৮৬ পরীক্ষার্থী

খুলনা: গুচ্ছ পদ্ধতিতে দেশের ২৪টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০২৩-২০২৪ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক/স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ২৭ এপ্রিল এবং ০৩ ও ১০ মে অনুষ্ঠিত হবে।

এ ভর্তি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের লক্ষ্যে নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে বুধবার (২৪ এপ্রিল) দুপুরে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের (খুবি) শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ ভবনের সম্মেলন কক্ষে প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

 

সভায় সভাপতিত্ব করেন খুবির উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা।  

সভায় জানানো হয়, গুচ্ছ পদ্ধতিতে স্নাতক প্রথম বর্ষে ‘এ’ (বিজ্ঞান) ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা আগামী ২৭ এপ্রিল দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত খুবি ক্যাম্পাসসহ রেভারেন্ড পলস্ হাই স্কুল, হোপ পলিটেকনিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল ইনস্টিটিউট এবং দেলদার আহমেদ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হবে।

এদিন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ৫ হাজার ৩১৩ জন, রেভারেন্ড পলস্ হাই স্কুলে ৯৫৭ জন, হোপ পলিটেকনিকে ৭৯৬ জন এবং দেলদার আহমেদ সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১ হাজার ৮২০ জন পরীক্ষার্থীর আসন ব্যবস্থা করা হয়েছে। এছাড়াও এদিন বিকেল ৩টা থেকে ৪টা পর্যন্ত শুধুমাত্র খুবি ক্যাম্পাসে স্থাপত্য বিষয়ে বিশেষ অংকন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। পরবর্তীতে আগামী ৩ মে ‘বি’ ইউনিট এবং ১০ মে ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত শুধুমাত্র খুবি ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিত হবে।

সভায় বিভিন্ন দিক আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, খুবি উপকেন্দ্রে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় পরীক্ষার্থীরা মোবাইলফোনসহ কোনো ধরনের ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস, ব্যাগ, বই নিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন না। বিশ্ববিদ্যালয়ের মেইন গেট দিয়ে সুশৃঙ্খলভাবে তাদের ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে হবে। কোনো অভিভাবক বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে পারবেন না। তবে পরীক্ষা শুরুর নির্দিষ্ট সময়ের আগে আসা পরীক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসসহ অন্যান্য পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবেন। ভর্তি পরীক্ষা চলাকালে গল্লামারী পুলিশ বক্সের মোড় থেকে জিরোপয়েন্ট পর্যন্ত সব ধরনের যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রণে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী ব্যবস্থা নেবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টিকারযুক্ত যানবাহন প্রবেশ করতে পারবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী ব্যক্তিগত যানবাহন ব্যবহার করেন তাদের যানবাহনে বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোগ্রামযুক্ত স্টিকার লাগানোর জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ক্যাম্পাস ও ক্যাম্পাসের বাইরে আশপাশের নিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা রক্ষায় অতিরিক্ত পুলিশ, গোয়েন্দা সংস্থা, র‌্যাব ও সাদা পোশাকে নিরাপত্তা সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন।  
এই পরীক্ষা সংক্রান্ত বা সংশ্লিষ্ট অন্য কোনো বিষয়ে জানার প্রয়োজন হলে খুবির চারুকলা স্কুলের ডিন ও ভর্তি পরীক্ষার ফোকালপয়েন্ট প্রফেসর ড. নিহার রঞ্জন সিংহের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হয়। ভর্তি পরীক্ষা চলাকালীন কোনো সাংবাদিক পরীক্ষার হলে প্রবেশ করতে পারবেন না, তবে ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত তথ্য ও চিত্রের প্রয়োজন হলে ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার প্রতিনিধিদের বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ ও প্রকাশনা বিভাগের পরিচালকের সাথে আগেই যোগাযোগ করতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সভায় বক্তব্য রাখেন খুবির ট্রেজারার প্রফেসর অমিত রায় চৌধুরী। সঞ্চালনা করেন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন চারুকলা স্কুলের ডিন ও ভর্তি পরীক্ষার ফোকালপয়েন্ট প্রফেসর ড. নিহার রঞ্জন সিংহ, ছাত্রবিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মো. শরীফ হাসান লিমন, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ভারপ্রাপ্ত) শেখ শারাফাত আলী, প্রধান প্রকৌশলী (ভারপ্রাপ্ত) এস এম মনিরুজ্জামান, জনসংযোগ ও প্রকাশনা বিভাগের পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মো. মইনুল হোসেন, শাখা প্রধান (প্রশাসন) উপ-রেজিস্ট্রার দীপক চন্দ্র মণ্ডল, শাখা প্রধান (এস্টেট) কৃষ্ণপদ দাশ, নিরাপত্তা তত্ত্বাবধায়ক উপ-রেজিস্ট্রার মো. নাজিম উদ্দিন, নির্বাহী প্রকৌশলী (পরিবহন) মো. শাহ নওরোজ এবং প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষে খুলনা রেঞ্জ পুলিশের এসপি (অপারেশনস্) মো. রিয়াজুল কবির, খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (সিটিএসবি) মো. আশরাফ হোসেন, সহকারী পুলিশ কমিশনার (সদর) গোপীনাথ কাঞ্জিলাল, সহকারী পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. আবুল কালাম আজাদ ও মো. আনোয়ার হোসেন মিয়া, এনএসআই খুলনা মেট্রোর সহকারী পরিচালক মুনিফ মুহতাসীন, খুলনা জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. আরিফুল ইসলাম, ডিবির পুলিশ পরিদর্শক কাজী কামাল হোসেন, জেলা পুলিশের পরিদর্শক (অপরাধ শাখা) মো. খালেকুজ্জামান, ওজোপাডিকোর সহকারী পরিচালক (বিবিবি-৪) রেজভী আহমেদ রিংকুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধিরা

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ২৪, ২০২৪
এমআরএম/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।